*  ভারত থেকে অবৈধ অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তে কড়াকড়ি            * আওয়ামী লীগের সম্মেলন: আলোচনায় জয় ও পুতুল           * ডাক্তার স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে নিলো স্ত্রী, হেলিকপ্টারে ঢাকায় স্থানান্তর!           * রাখে আল্লাহ মারে কে হৃদপিণ্ড থেমে যাওয়ার ছয় ঘন্টা পর বেঁচে উঠলেন নারী            * ঘিরে ধরেছে ভক্তরা, বিরক্ত গ্রেটা থুনবার্গ           * প্রতিদিনই আমাদের নগ্ন হতে হয়, লুকোচুরির কিছু নেই: কোয়েল           * বিয়ের অনুষ্ঠানে নাচ থামানোয় তরুণীর মুখে গুলি           *  বঙ্গোপসাগরে জেলের জালে দৈত্যাকৃতির মাছ বঙ্গোপসাগরে জেলের জালে দৈত্যাকৃতির মাছ            * সালমানকেই স্বামী হিসেবে চান অনন্যা            * ২৫ টাকার চাকরি থেকে এখন হোটেল মালিক, গরিবদের খাওয়ান ফ্রিতে            * পাকিস্তানের ৬২৯ তরুণীকে চীনে বিক্রি            * সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের সেই ‘কোটিপতি পিয়ন’ আটক           * আত্মহত্যার চেষ্টা করা প্রেমিকাকে আইসিইউতে বিয়ে!            * বালুর নিচে মিললো নিখোঁজ শিশুর মরদেহ           *  পেঁয়াজ বিক্রি করবে পুলিশ            *  এবার ঘুমানোর জন্য চাকরি, বেতন ১ লাখ টাকা            *  গোলাগুলি থেকে শতাধিক মানুষকে বাঁচাল মুসলিম শিক্ষার্থী            *  ভারতীয় বোলারদের তুলোধুনো করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ২০৭ রান            * নির্বাচনে যারা নৌকার সাথে মোনাফিকি করেছে তাদের স্থান নৌকায় হতে পারে না ------ আমির হোসেন আমু এমপি           * শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পৌঁছে গেছে নতুন বই বছরের প্রথম দিনেই বই উৎসবে ভাসবে শিক্ষার্থীরা          
*  পৃথিবীর অনেক দেশের তুলনায় আমরা মেধাবী: তথ্যমন্ত্রী            * রুয়ান্ডায় ভূমিধসে ৩৮ জন নিহত           * সাতসকালে সড়কে গেল একই পরিবারের তিন প্রাণ          

ঈদকে সামনে রেখে শৈলকুপা থানা পুলিশের গ্রেফতার বাণিজ্য!

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি | শুক্রবার, জুলাই ৩, ২০১৫
ঈদকে সামনে রেখে শৈলকুপা থানা পুলিশের গ্রেফতার বাণিজ্য!
ঝিনাইদহের শৈলকুপা থানায় প্রতিনিয়তই চলছিলো গ্রেফতার বাণিজ্য। এরপর আবার সামনে পবিত্র ঈদুল ফিতর। ঈদকে সামনে রেখেই তারা মেতেছে বেপরোয়া গ্রেফতার বাণিজ্যে।
তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, শৈলকুপা থানার বর্তমান ওসি এম,এ হাশেম খান সততা ও ভদ্রতার মুখোশ পরে হরহামেশাই চালিয়ে যাচ্ছে তার গ্রেফতার বাণিজ্য। প্রতি রাতেই উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে সাধারণ মানুষকে হয়রানিমূলক আটক করে থানায় এনে দাবী করছে মোটা অংকের টাকা। যারা টাকা দিতে অসম্মতি জ্ঞাপন করছে তাদেরকে পেন্ডিং ও নাশকতাসহ বিভিন্ন মামলা দিয়ে পাঠানো হচ্ছে শ্রীঘরে। আর যারা টাকা দিতে রাজি হচ্ছে তাদেরকে রাতের আধারেই ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
ওসি এম,এ হাশেম খান গত ৬ মাস পূর্বে এই থানায় যোগদান করার পর থেকে হয়রানি ও গ্রেফতার আতঙ্কে রাতের ঘুম হারাম হয়ে গেছে উপজেলার সাধারণ মানুষের। বিশেষ করে ঈদকে সামনে বেশী বেপরোয়া হয়ে উঠেছে শৈলকুপা থানা পুলিশ।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলার ধলহরাচন্দ্র গ্রামের এক ব্যক্তি জানান, গত ১ মাস ধরে এই গ্রামে রাতের আধারে অভিযান চালিয়ে এস,আই রায়হান, এ,এস,আই সুজন ও মাহবুব প্রায় ২০ জন সাধারণ মানুষকে হয়রানিমূলক আটক করে ভয়ভীতি দেখিয়ে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ঘটনাস্থলেই ছেড়ে দেয়।
বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে উপজেলার ব্রাহিমপুর এলাকা থেকে মানবপাচারে জড়িত থাকার একাধিক অভিযোগে অভিযুক্ত নুরুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশ। পরে রাতের আধারেই মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে তাকে ছেড়ে দেয়। এ ঘটনায়  এলাকার সাধারণ মানুষ, জণপ্রতিনিধি ও সচেতন মহলের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।  
এছাড়াও গত মাসের ২১ তারিখে কবিরপুর থেকে প্রসূতি হত্যা মামলার প্রধান আসামী আয়েশা ক্লিনিক এর মালিক সাইদুল ইসলামকে এস,আই রায়হান গ্রেফতার করে। পরে নাশকতা মামলাসহ ৫/৬ টি মামলা দেয়ার ভয় দেখিয়ে তার কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। বাধ্য হয়ে তার পরিবার ৩০ হাজার টাকা দিতে রাজি হলে তাকে ঐ মামলায়ই চালান দেওয়া হয়।
এদিকে প্রতিনিয়তই সাধারণ মানুষকে হয়রানিমূলক রাতের আধারে থানায় এনে মামলার ভয় দেখিয়ে মোটা অংকের নেয় পুলিশ। অন্যথায় তাদেরকে নাশকতাসহ বিভিন্ন পেন্ডিং মামলায় চালান করা হয়। আবার প্রকৃত অপরাধীদের ধরে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সন্দেহভাজন মামলায় চালান দেখানো হয়।
রাতে অভিযান ডিউটিতে থাকা পুলিশের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ উঠেছে, তারাবী নামাজ শেষে বাড়ীতে ফেরা মুসল্লীদেরকেও বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করে থাকে তারা।
উল্লেখ্য, পবিত্র শবেবরাতের রাতে কবিরপুর গ্রামের মধু শেখের ছেলে ১০ম শ্রেণীর ছাত্র রাফাত নামাজ শেষে বাড়ীতে ফিরছিলো। পথিমধ্যে অভিযান ডিউটিতে থাকা এস,আই রায়হান তাকে আটক করে বেধড়ক পিটিয়ে রক্তাত্ব জখম করে প্রথমে হাসপাতালে ও পরে থানায় নিয়ে যায়। পর দিন সকাল ১০টায় তার পরীক্ষা থাকায় তাকে ছেড়ে দেয়। এ ঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা সৃষ্টি হয়।
তবে পুলিশী হয়রানির শিকার উপজেলার নিরপরাধ ব্যক্তিরা পুলিশের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করবে বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে। অযথা পুলিশী হয়রানির হাত থেকে রেহাই পেতে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে এলাকার সাধারণ মানুষসহ সচেতন মহল, সুধী সমাজ ও জণপ্রতিনিধিরা।
এসব বিষয়ে সাংবাদিকদের কাছে কোন প্রকার তথ্য দিতে নারাজ শৈলকুপা থানা পুলিশ। এছাড়াও বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিষয়েও কোন তথ্য দিতে চায়না পুলিশ। এমনকি সাংবাদিকরা কোন তথ্য নিতে স্ব-শরিরে থানায় গেলে গাত্রদাহ হয় ওসি হাশেম খানসহ অন্যান্য দূর্নীতিবাজ অফিসারদের।
স্থানীয় সাংবাদিকদের অভিযোগ, তথ্য নিতে থানায় গেলে বিভিন্ন ভাবে হয়রানির শিকার হতে হয় তাদের।
এ বিষয়ে শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এম,এ হাশেম খান তার বিরুদ্ধে সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি সাংবাদিকদের প্রতি যথেষ্ট আন্তরিক।  




আরও পড়ুন



২. সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ মোঃ খায়রুল আলম রফিক
৩. নির্বাহী সম্পাদক ঃ প্রদীপ কুমার বিশ্বাস
৪. প্রধান প্রতিবেদক ঃ হাসান আল মামুন
প্রধান কার্যালয় ঃ ২৩৬/ এ, রুমা ভবন ,(৭ম তলা ), মতিঝিল ঢাকা , বাংলাদেশ । ফোন ঃ ০১৭৭৯০৯১২৫০
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close