* ময়মনসিংহে পিবিআই’য়ের প্রতি আস্থা হারাচ্ছে জনগন            * ফরিদপুরে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন           * ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগকে শুভেচ্ছা জানালেন ইকবাল হোসেন           * বদলগাছীতে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেবা গুলো প্রত্যন্ত গ্রাামের চেহারা বদলে দিয়েছে           * কুড়িগ্রামে যুবক-যুবতির মরদেহ উদ্ধার            * গাজীপুরের পূবাইলে নিজ হাতে থানা বানিয়ে নিজেই হলেন প্রথম বন্দি            * ফুলপুরে বিদায়ী ইউএনও’কে বিভিন্ন সংগঠনের সংবর্ধনা           * জামালপুরে বিপদসীমার ওপরে যমুনার পানি, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত            * বন্যহাতির আক্রমণে প্রাণ গেল সাবেক ছাত্রদল নেতার           * গুরুতর অসুস্থ সৈয়দ আশরাফ সংসদ থেকে ছুটি নিলেন            * ৬০ থেকে ৪৮ কেজি হওয়ার রহস্য জানালেন স্বস্তিকা            * গাজীপুরকে ক্লিন সিটি গড়তে উচ্ছেদ অভিযান শুরু           * পরিসংখ্যানে এগিয়ে পাকিস্তান, সাফল্যে ভারত            * কিমকে ‘হিরো’ বললেন ট্রাম্প           * ছয় দিনের সফরে লন্ডন-নিউইয়র্ক যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী           * পিবিআইয়ের রিপোর্ট প্রত্যাখ্যান করেছে সাংবাদিকরা মচিমহায় কোন ঘটনা ঘটেনি            * ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের ৭৫ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন           * ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন           * যমুনার পানি বিপদসীমা ছুঁই ছুঁই           * ‘পরকীয়া জানাজানি হওয়ায়’ গৃহবধূর আত্মহত্যা          
* জামালপুরে বিপদসীমার ওপরে যমুনার পানি, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত            * ৬০ থেকে ৪৮ কেজি হওয়ার রহস্য জানালেন স্বস্তিকা            * পরিসংখ্যানে এগিয়ে পাকিস্তান, সাফল্যে ভারত           

ফুলবাড়ীর ফেলানী হত্যাকাণ্ডের ৫ বছর

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল.গাইবান্ধা প্রতিনিধি | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ৭, ২০১৬
ফুলবাড়ীর ফেলানী হত্যাকাণ্ডের ৫ বছর
আজ ৭ জানুয়ারি। ২০১১ সালের এই দিনে ভারতীয় রক্ষী বাহিনী বিএসএফ-র গুলিতে নির্মম হত্যাকাণ্ডের স্বীকার হয় কুড়িগ্রামের
রামখানা অনন্তপুর সীমান্তে ফেলানী।

দীর্ঘ সাড়ে চার ঘণ্টা কাঁটাতারে ঝুলে থাকে ফেলানীর মৃত দেহ। গণমাধ্যমসহ বিশ্বের মানবাধিকার সংগঠনগুলোর তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে ভারত। দুই দফায় বিচারিক রায়ে খালাস দেয়া হয় অভিযুক্ত বি এস এফ সদস্য অমিয় ঘোষকে। এ রায় প্রত্যাখ্যান করে ভারতীয় মানবাধিকার সংগঠন মাসুম এর সহযোগিতায় ভারতীয় সুপ্রিমকোর্টে রিট আবেদন করে ফেলানীর পরিবার।

দিনটি ছিল শুক্রবার। ভোর সোয়া ৬টার দিকে ভারতীয় বিএসএফ"র গুলিতে বিদ্ধ হয়ে আধাঘণ্টা ধরে ছটফট করে নির্মমভাবে মৃত্যু হয় কিশোরী ফেলানীর। এর পর সকাল পৌনে ৭টার থেকে নিথর দেহ কাঁটাতারের উপর ঝুলে থাকে দীর্ঘ সাড়ে ৪ ঘণ্টা। এ ঘটনায় বিশ্বব্যাপী তোলপাড় শুরু হলে ২০১৩ সালের ১৩ আগস্ট ভারতের কোচবিহারে জেনারেল সিকিউরিটি ফোর্সেস কোর্টে ফেলানী হত্যা মামলার বিচার শুরু হয়। এ কোর্টে স্বাক্ষীদেন ফেলানীর বাবা নূর ইসলাম ও মামা হানিফ। ওই বছরের ৬ সেপ্টেম্বর আসামী অমিয় ঘোষকে খালাস দেয় কোর্ট।

পরে রায় প্রত্যাখ্যান করে পুন:বিচারের দাবী জানায় ফেলানীর বাবা। ২০১৪ সালের ২২ সেপ্টেম্বর পূর্ণ:বিচার শুরু হলে ১৭ নভেম্বর আবারও আদালতে সাক্ষ্য দেন ফেলানীর বাবা। ০৩ জুলাই ২০১৫ এ আদালত পুনরায় আত্মসীকৃত আসামী অমিয় ঘোষকে খালাস দেয়। এতে হতাশা প্রকাশ করেন ফেলানীর স্বজনরা।

ফেলানীর মামা আবু হানিফ জানায়, ফেলানীকে নিয়ে বিচারকদের রায় গ্রহণযোগ্য নয়, আমরা হতাশ।এ রায় প্রত্যাখ্যান করে ভারতীয় মানবাধিকার সংগঠন মাসুম এর সহযোগিতায় ১৪ জুলাই ২০১৫ তারিখে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টে রিট করেন ফেলানীর বাবা নূর-ইসলাম । সুপ্রিম কোর্ট শুনানি শেষে রিট আবেদন গ্রহণ করে আদেশ প্রদান করে। এখানে সুবিচার প্রত্যাশা করেন তিনি।

ফেলানীর মা জাহানারা বেগম বলেন, এ আদালতে বিচার না পেলে আন্তর্জাতিক আদালতে বিচার চাইবো।

কুড়িগ্রাম পাবলিক প্রসিকিউটর এ্যাড. এস,এম,আব্রাহাম লিংকন বলেন, ফেলানী হত্যার দায় স্বীকার করার পরেও বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষ বেকসুর খালাস পাওয়ায় ন্যায় বিচার নিশ্চিত হয়নি।

তবে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে গঠিত বেঞ্চে শুনানি শেষে ফেলানীর পরিবারের রিট আবেদন গ্রহণ করে আদেশ দেয়া হয়েছে, তাই এবার ফেলানীর পরিবার ন্যায় বিচার পাবেন বলে প্রত্যাশা করেন তিনি। ফেলানী হত্যাকাণ্ডের সুবিচারের মাধ্যমে দুই দেশের সরকারী সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হোক, বন্ধ হোক গোলাগুলি, বন্ধ হক সীমান্ত হত্যা এমনটাই প্রত্যাশা সীমান্ত-বাসীদের।

অপরাধ সংবাদ/রা




আরও পড়ুন



প্রধান সম্পাদকঃ
ড. মো: ইদ্রিস খান

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

সিয়াম এন্ড সিফাত লিমিটেড
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close