* সোনালী শীষের আড়ালে সুবিনয়ের অপসাংবাদিকতা           * ডাক্তারদের সেবার মনোভাব কম: স্বাস্থ্যমন্ত্রী           * ফুলপুরে জঙ্গীবাদ বিরোধী মা সমাবেশ অনুষ্টিত           * দুই মণ গাঁজাসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার            * নামাযে অজু নিয়ে সন্দেহ হলে কি করবেন?           * ৭-২৮ অক্টোবর ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ           * মদ না খেয়েও মাতাল যারা!           * মোদির দলের হয়ে লড়বেন অক্ষয়-কঙ্গনা-সুনিল           * পাকিস্তানকে সবক শেখাতে চান ভারতের সেনাপ্রধান           * পৃথিবীকে বাংলাদেশ থেকে শিখতে বলল বিশ্বব্যাংক           * নগ্ন হয়ে ঘর পরিষ্কার করে তার মাসিক আয় ৪ লাখ টাকা            * প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে সন্তানকে হত্যা করলো মা            * মোস্তাফিজ একজন ম্যাজিসিয়ান : মাশরাফি            * ত্রিশালে দাখিল মাদ্রাসায় অভিভাবক সমাবেশ            * সিরাজদিখানে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামীলীগ মনোনয়ন প্রত্যাশী গিয়াস উদ্দিনের গণসংযোগ ও উঠান বৈঠক            * পূর্বধলায় গ্রাম পুলিশদের মাঝে বাই সাইকেল বিতরণ           * বেনাপোলে পিস্তল-গুলি ও গাঁজাসহ আটক-১           * পূর্বধলায় কবর থেকে শিশুর গলিত লাশ তুলে মর্গে প্রেরণ            * হালুয়াঘাটে জাল দলিলে পাহাড়ী কাষ্ঠল উদ্ভিদের বাগান দখল           * ২ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অভিযানে জুয়ার আসর হইতে ০৫ জনকে আটক          
* সোনালী শীষের আড়ালে সুবিনয়ের অপসাংবাদিকতা           * ডাক্তারদের সেবার মনোভাব কম: স্বাস্থ্যমন্ত্রী           * মোদির দলের হয়ে লড়বেন অক্ষয়-কঙ্গনা-সুনিল          

সৈয়দপুরে তিস্তা সেচ প্রকল্পের ২শ কোটি টাকা লোপাটের পায়তারা

(সৈয়দপুর, নীলফামারী) | শুক্রবার, মার্চ ২৫, ২০১৬



সৈয়দপুরে তিস্তা সেচ প্রকল্পের ২শ কোটি টাকা লোপাটের পায়তারা
: সৈয়দপুরে তিস্তা সেচ প্রকল্পে বগুড়া ক্যানেলের জমি অধিগ্রহণ ও ক্ষতিপূরণের অর্থ পরিশোধের নামে প্রাথমিকভাবে সরকারের ২শ কোটি টাকা লোপাটের পায়তারা শুরু হয়েছে। বিশিষ্টজনরা বলছেন, বাস্তবে এটি আরও বেশি হতে পারে। এ ক্যানেলের অবশিষ্ট নয় হাজার ৯৭৫ বর্গমিটার আয়তনের (দৈর্ঘ্য ৭৫০০ মিটার, প্রস্থ ১৩৩ মিটার) কাজ সম্পন্ন করতে ইতোমধ্যে জমি চিহ্নিতের প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। বর্তমানে চলছে জমির রকম (শ্রেণি) নির্ধারণের জরিপ। আর এজন্য বাড়তি অর্থ বাগিয়ে নিতে রাতারাতি আবাদি ডাঙ্গা জমিকে বাস্ত বানাতে বসতবাড়ি গড়ে তোলা হচ্ছে। ধানি (দোলা) জমিতে লাগানো হচ্ছে গাছের চারা। ডোবায় টাঙ্গিয়ে দেয়া হচ্ছে মাছ চাষের সাইনবোর্ড। সমানতালে চলছে এসব কাজ। এ কাজের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন এলাকার আজাহার, ভূপেষ, সোহাগসহ একাধিক ব্যক্তি। গত ৩ দিন সরেজমিনে এলাকায় গিয়ে এ চিত্র চোখে পড়ে। জরিপ দলের কালি কলমের চিহ্নে টাকা লোপাটের সেতু নির্মিত হচ্ছে। এজন্য কদরও বেড়েছে জরিপ দলের। বাড়তি অর্থ পকেটে নেয়ার আশায় শুরু হয়েছে টাকার খেলাও। তবে মূল অর্থ ভাগবাটোয়ারা করতে অনুসরণ করা হচ্ছে পিপিপিআর পদ্ধতি (পাবলিক, প্রাইভেট, পার্টনার, সরকার কর্মকর্তা ও ভূমি মালিক মিলে অংশিদার)। ৩৪ হাজার ৫শ মিটার দীর্ঘ এ ক্যানেলের ২৭ হাজার মিটারের খনন কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। অবশিষ্ট রয়েছে সাত হাজার ৫শ মিটার দৈর্ঘ্যরে খনন কাজ। ক্যানেলের প্রস্থ রয়েছে ১৩৩ মিটার। আর এ কাজটি সম্পন্ন করতে ছয়টি মৌজার ২৩৭ একর ৫০ শতক জমি অধিগ্রহণ করা হবে। এসব মৌজা হলো সৈয়দপুরের বারাইশাল পাড়া, লক্ষনপুর পশ্চিমপাড়া, পার্বতীপুরের বেলাইচন্ডি, কুঠিপাড়া, জয়রামপুর ও রামপুরা। চলতি বছরের মে মাসের মধ্যেই অধিগ্রহণকৃত জমি ও ক্ষতিপূরণের টাকা পরিশোধ করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। এক্ষেত্রে সরকারের তিনটি দপ্তর কাজ করছে। এর মধ্যে রয়েছে জমি অধিগ্রহণ অধিদপ্তর (এলএও), বন বিভাগ ও গণপূর্ত। এ নিয়ে মুঠোফোনে কথা হয় নীলফামারীর জমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা (এলএও) মৌসুমি আফরিদার সঙ্গে। তিনি জানান, বর্তমান বাজার মূল্যের সঙ্গে অতিরিক্ত ৫০ ভাগ যোগ করে জমির মূল্য মালিকদের পরিশোধ করা হবে। সৈয়দপুর উপ-নিবন্ধক (সাব রেজিস্ট্রার) অফিস সূত্র জানায়, বর্তমানে বাড়াইশাল পাড়া মৌজার বাস্ত জমির প্রতি শতকের মূল্য দুই লাখ ৫০ হাজার, ডাঙ্গা ৭৭ হাজার ৮০০, দলা ৩০ হাজার ৮৬০ ও ডোবা সাত হাজার ৭২৩, বাঁশঝাড়ের মূল্য এক লাখ ২০ হাজার টাকা। কিন্তু কতিপয় অসাধু কর্মকর্তাদের পরামর্শে ভূমি মালিকরা ফসলের ডাঙ্গা জমিকে বাস্ত জমিতে পরিণত করতে রাতারাতি বাড়িঘর তুলছে। এতে করে ৭৭ হাজার ৮০০ টাকা শতকের আবাদি ডাঙ্গা জমির মূল্য দুই লাখ ৫০ হাজার টাকায় ঠেকছে। এর সঙ্গে সরকার ৫০ ভাগ ভুতর্কি যোগ করছে। সবমিলে ৭৭ হাজার ৮০০ টাকা শতকের ডাঙ্গা জমির মূল্য দাঁড়াচ্ছে তিন লাখ ৭৫ হাজার টাকা। সেই হিসাবে সরকারের প্রতি শতকে বাড়তি দিতে হবে দুই লাখ ৫৮ হাজার ৩০০ টাকা। এমনই ঘটনা ঘটছে অন্যান্য মৌজায়ও। এতে করে সরকারের কমপক্ষে ২০০ কোটি টাকা লোপাটের সম্ভবনা রয়েছে। এদিকে ধানি জমিতে (দোলা) রাতারাতি গাছের চারা লাগিয়ে বনায়ন করা হচ্ছে। বাঁশের মোটা কঞ্চিও বাঁশে রূপ নিচ্ছে। কথা হয় সামাজিক বনায়ন নার্সারী ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র সৈয়দপুরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুস মোনায়েমের সঙ্গে। তিনি জানান, সরকারের অর্থে ভূমি মালিকদের প্রতিটি গাছের চারার মূল্য ৫০০ ও একটি বাঁশের দাম ২০০ টাকা দেয়া হবে। একই সঙ্গে ফলদ বৃক্ষ ও বড় গাছের ক্ষতিপূরণ বাবদ দেয়া হবে তিন হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত। অথচ হাট বাজারে গাছের চারা বিক্রি হচ্ছে প্রতিটি ১০ টাকা দরে। একই নিয়ম অনুসরণ করে গণপূর্ত দপ্তরও বসত বাড়ির ক্ষতিপূরণ দেবে বলে জানা গেছে। তবে অনিয়মের মাত্রা নির্ভর করবে জরিপ দলের রিপোর্টের ওপর। আর এ জরিপ দল পরিচালিত হচ্ছে নীলফামারী জমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তার নেতৃত্বে।
জরিপকারী দলের অনিয়ম নিয়ে ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা মৌসুমী আফরিদার সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, এ বিষয়টি সার্ভেয়ার শরীফ উদ্দিন ভাল বলতে পারবেন। তবে সার্ভেয়ার (জরিপকারী) শরীফ উদ্দিন বলেন, আমরা হুকুমের গোলাম। ডাঙ্গা জমিকে বাস্ত আর আবাদি জমিকে রাতারাতি বনায়ন করার বিষয়ে জানতে চাইলে বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ডা. শাহাজাদা সরকার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, লোভী ব্যক্তিরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে এ অনৈতিক কর্মকান্ড করছে।




আরও পড়ুন



প্রধান সম্পাদকঃ
ড. মো: ইদ্রিস খান

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

সিয়াম এন্ড সিফাত লিমিটেড
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close