* জামাল খাসোগি হত্যা: ১৭ সৌদি নাগরিকের ওপর নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের           * মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় আজীবন কাজ করেছেন মওলানা ভাসানী           * আমার স্ত্রী সত্যিই দারুণ: জাস্টিন বিবার           * চট্টগ্রাম টেস্টে নেই তামিম           * টাঙ্গাইলের দুই আসনে মনোনয়নপত্র কিনলেন কাদের সিদ্দিকী           *  নতুন আইপ্যাড আনল অ্যাপল           *  সুনামগঞ্জ পৌর মেয়রের সঙ্গে ভারতের সহকারী হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ           * রাজশাহীতে বাস উল্টে নিহত ১, আহত ১০           * বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত           * নবদম্পতির বিয়ের ছবি নিলামে উঠছে           * খাসোগি হত্যা ১৭ সৌদি নাগরিকের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা           * স্পেনকে হারিয়ে প্রতিশোধ ক্রোয়েশিয়ার           * গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর অনুষ্ঠান থেকে এসে মুক্তিযোদ্ধা মানিক শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বেই সারাদেশে হবে নৌকার বিজয়            * নির্বাচন থেকে সরে গেলেন নিজামীপুত্র           *  বাইসাইকেলের ফ্রেমে ফেনসিডিল পাচার           *  কম খরচে সিসিটিভি ক্যামেরা কিনতে চান?           *  স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে তাহসান-মেহজাবিন           * আইয়ুব বাচ্চু একজনই ছিল, একজনই থাকবে           * নির্বাচন এক ঘণ্টাও পেছাবেন না           * টেলরের ব্যাটে প্রতিরোধ জিম্বাবুয়ের           
* জামাল খাসোগি হত্যা: ১৭ সৌদি নাগরিকের ওপর নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের           * মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় আজীবন কাজ করেছেন মওলানা ভাসানী           * আমার স্ত্রী সত্যিই দারুণ: জাস্টিন বিবার          

কুষ্টিয়ায় সংগ্রহ অভিযান গম কৃষকের সরবরাহ করছেন সাংসদ

অপরাধ সংবাদ ডেস্ক | বৃহস্পতিবার, জুন ৯, ২০১৬
কুষ্টিয়ায় সংগ্রহ অভিযান
গম কৃষকের সরবরাহ করছেন সাংসদ
 কুষ্টিয়ায় সরকারী গম সংগ্রহ অভিযান প্রায় শেষ পর্যায়ে। কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি গম ক্রয়ের নিয়ম থাকলেও চলতি বছর কুষ্টিয়ার অধিকাংশ গুদামে কৃষি সহায়ক কার্ডধারীরা গম বিক্রির জন্য সরকারী খাদ্য গুদামের ধারে কাছেও যেতে পারেননি। কৃষকদের গম সরকারী গুদামে সরবরাহ করছেন স্থানীয় সাংসদ, ক্ষমতাশীন দলের নেতা ও গম ব্যবসায়ীরা। ফলে গমের ন্যায্য মুল্য হতে বঞ্চিত হচ্ছেন সাধারণ কৃষকরা। এতে গম চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন তারা।
কুষ্টিয়া খাদ্য অফিস সুত্র জানিয়েছে, চলতি মৌসুমে জেলায় সরকারি ভাবে কেজি প্রতি ২৮ টাকা দরে কুষ্টিয়া জেলায় গম সংগ্রহ অভিযানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৭ হাজার ৫’শ ৭৭ মেট্রিক টন। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশী গম ক্রয় করা হচ্ছে দৌলতপুরে ২ হাজার ৬’শ ৪৮ মে. টন। সদর উপজেলায় ১ হাজার ১’শ ২৫ মে. টন, কুমারখালীতে ১ হাজার ৬’শ ১০ মে. টন, খোকসায় ৬’শ ১২ মে. টন, মিরপুরে ৬’শ ১২ মে. টন ও ভেড়ামারায় ৯’শ ৭০ মে. টন। নীতিমালা অনুযায়ী কৃষি উপকরণ সহায়তা কার্ড রয়েছে এমন কৃষকরা কার্ড দেখিয়ে ৫০ কেজি থেকে ৩ টন পর্যন্ত গম খাদ্যগুদামে বিক্রির নিয়ম থাকলেও সিন্ডিকেট চক্রই সরবরাহ করছেন লক্ষ্যমাত্রার গম।
দৌলতপুর খাদ্য গুদামে গিয়ে দেখা যায়, বিক্রয়ের অপেক্ষায় দাড়িয়ে আছে সারি সারি গম বোঝাই ট্রাক ও নসিমন। কিন্তু দেখা নেই গমের মালিক কৃষকের। লাইনে দাড়িয়ে থাকা নসিমন চালক বাদল জানালেন গমের মালিক স্থানীয় সাংসদ রেজাউল হক চৌধুরী। এমপির বাড়ি থেকে ১২০ বস্তা করে মোট ৫টি নসিমনে ৬’শ বস্তা গম নিয়ে গুদামে এসেছেন। নসিমন চালক বাদল আরো জানান, গত কয়েক দিন ধরেই তারা এমপির গম নিয়ে এসে গুদামে আনলোড করছেন। দিনাজপুর, মেহেরপুর ও বামুন্দির কয়েকটি গুদাম থেকেও গম নিয়ে আসা হয়েছে। গম’র মালিক স্থানীয় এমপির ভাই ও প্রভাবশালী শামসুল।
গুদামজাত করার অপেক্ষায় থাকা গমের বস্তায় রয়েছে খাদ্য অধিদপ্তরের সিল। সেখানে কোন কৃষক না থাকলেও গুদামের ভিতরে পাহারায় রয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের ক্যাডার বাহিনী। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, স্থানীয় সাংসদ রেজাউল হক চৌধুরীর ভাই টোকন চৌধুরী ও এলাকার প্রভাবশালী শামসুল বিভিন্ন স্থান থেকে নিম্নমানের গম কিনে সরকারী গুদামে সরবরাহ করছে। দৌলতপুর উপজেলা খাদ্য অফিসারে রুমে গিয়ে দেখা যায় উজ্জল নামের এক ব্যক্তি বসে আছেন। কথা হলে তিনি নিজেকে কৃষক বলে দাবি করেন। তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উজ্জল আসলে এমপির ভাই টোকন চৌধুরীর ক্যডার। কোন কৃষক গম নিয়ে যেন গুদামের ঢুকতে না পারে তার দ্বায়িত্বে আছেন ক্যডার উজ্জল।
কৃষক শুকুর আলী জানান, তালিকায় নাম থাকার পরও আমাদের গম সরকারী গুদামে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না। নেতারা বলেছেন তোর কার্ড আমাদের কাছে দিয়ে মিষ্টি খাওয়ার টাকা নিয়ে যা। আমাদের ছাড়া কোন গম গুদামে ঢুকবে না।
স্থানীয় এমপির ভাই টোকন চৌধুরী বলেন, আমরা পলিটিক্র করি। আমরা কিছু করলেও দুর্নাম হবে, না করলেও দুর্নাম হবে। আর দল চলাতে হলেও কিছু টাকার দরকার হয়।
উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা আবুল কালাম জানান, সরকারী নীতিমালা অনুযায়ী কৃষি উপকরণ সহায়তা কার্ড রয়েছে এমন কৃষকরা কার্ড দেখিয়ে গুদামে গম সরবরাহ করছে। এমপির বাড়ি থেকে গম আসছে নসিমন চালকের এমন বক্তব্যে খাদ্য কর্মকর্তা জানান, ওরা হয়ত জানে না। যেখান থেকে মাল লোড করছে সেখান থেকে এমপির বাড়ির সামনে দিয়ে আসতে হয়, তাই ওরা মনে করেছে গম এমপির বাড়ি থেকে এসেছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৗফিকুর রহমান জানান, এখন পর্যন্ত কোন অভিযোগ পায়নি। অভিযোগ পেলে আমরা সরজমিনে গিয়ে কোন অনিয়ম দেখলে অবশ্যয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। নিয়মের বাইরে কোন কিছুই হতে দেয়া হবে না।
এ ব্যাপারে স্থানীয় এমপি রেজাউল হক চৌধুরীর ০১৭১৬-০২৬৪৭৫ নম্বার সেল ফোনে যোগাযোগ করলে তার ভাতিজা ফোন রিসিভ করে জানান, চাচা অসুস্থ্য, এখন কথা বলতে পারবে না।
কুমারখালী উপজেলা খাদ্য গুদামে গিয়ে কয়েক ট্রাক গম দেখা যায়। এর মধ্যে একটি ট্রাকের চালক সেলিম জানান, তার ট্রাকের গম দিনাজপুর থেকে আনা হয়েছে। গমের মালিক কুমারখালীর স্থানীয় এক গম ব্যবসায়ী। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যান কমিশন নিয়ে পছন্দের লোকদের দিয়ে এসব গম করছেন। শুধু দৌলতপুর ও কুমারখালী নয়, জেলার অপর ৩ উপজেলা ভেড়ামারা, মিরপুর ও খোকসায় গম ক্রয়ে একই ধরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।




আরও পড়ুন



সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close