*  ত্রিশালে বিসমিল্লাহ্‌ ফুডস্'র আড়ালে নোংরা পরিবেশে পণ্য তৈরি !           *  ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স রোগীদের চরম ভোগান্তি           * ময়মনসিংহ সদর উপজেলা শাখা যুবলীগের আয়োজিত আলোচনা সভা ও কেক কাটা অনুষ্ঠানে মেয়র টিটু            * অবৈধ ভাবে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় শিশুসহ ২৪ নারী-পুরুষ আটক           * নির্বাচন আর পেছানোর সুযোগ নেই : সিইসি            * আসিয়া বিবিকে আশ্রয় দিতে চায় কানাডা           * ধোনির সঙ্গে দিন কাটাতে চান পাকিস্তানের সানা           * আস্থা রাখুন : ফখরুল            * আলোর মুখ দেখছেন বিমানের ১৩৭ কেবিন ক্রু            * মাদারীপুরে স্পিডবোট ডুবি, তিন যাত্রীর লাশ উদ্ধার           * ভোট পেছানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত আজ           * গাজায় প্রবেশ করে ইসরায়েলি বাহিনীর হামলা, নিহত ৭           * বগুড়ায় নৌকা চান অপু           *  ফরিদগঞ্জে হত্যা মামলায় পিতা-পুত্রের যাবজ্জীবন           * খেলায় মনোযোগ দাও, সাকিবকে প্রধানমন্ত্রী           * ধেয়ে আসছে ‘গাজা’, ২ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত           * দরজা খুলতেই নওয়াজ ঝাঁপিয়ে পড়েন           * তিন উইকেট হারিয়ে লাঞ্চ বিরতিতে বাংলাদেশ           * অনাহারে নয়, সমৃদ্ধির পথে এগোবে ইরান           *  জানুয়ারির আগেই রাজশাহী হবে পলিথিনমুক্ত          
* নির্বাচন আর পেছানোর সুযোগ নেই : সিইসি            * আসিয়া বিবিকে আশ্রয় দিতে চায় কানাডা           * ধোনির সঙ্গে দিন কাটাতে চান পাকিস্তানের সানা          

জলদস্যুরা আত্মসমর্পণ করলে কর্মের ও আবাসস্থলের ব্যবস্থা করা হবে বরগুনায় জলদস্যুদের আত্মসমার্পন অনুষ্ঠানে -স্বরাট্রমন্ত্রী

বরগুনা প্রতিনিধি: | শুক্রবার, অক্টোবর ২১, ২০১৬
জলদস্যুরা আত্মসমর্পণ করলে কর্মের ও আবাসস্থলের ব্যবস্থা করা হবে
বরগুনায় জলদস্যুদের আত্মসমার্পন অনুষ্ঠানে -স্বরাট্রমন্ত্রী
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, আমাদের দেশে কাজের অভাব নেই, দস্যুতা ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসুন। ফিরে এলে অবশ্যই সরকার বিবেচনা করবে। বরগুনা সার্কিট হাউজ ময়দানে আনুষ্ঠানিকভাবে জলদস্যুদের আত্মসমর্পণকালে তিনি এ কথা বলেন।স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন সুন্দরবনের দস্যু “সাগর বাহিনীর” প্রধানসহ তার সহযোগী ১৩ জলদস্যু। বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) বেলা ১২টার দিকে বরগুনা সার্কিট হাউজ ময়দানে তারা আত্মসমর্পণ করেন।এ সময় মন্ত্রী বলেন, দস্যু দমনে সরকার অনেক পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। এরই মধ্যে কোস্টগার্ডকে আধুনিকায়ন করা হচ্ছে এবং তাদের সব ধরনের জলযান দেওয়া হয়েছে। এছাড়া পুলিশ বাহিনীকে শক্তিশালী করার জন্য জনবল বৃদ্ধি করা হচ্ছে। তিনি বলেন, যারা আত্মসমর্পণ করেছেন তাদের জন্য আমরা সরকারের কাছে সুপারিশ করবো। আমার জানা মতে, সাগরে এখন খুব বেশি দস্যু নেই। যারা আছেন তারা খুব তাড়াতাড়ি আত্মসমর্পণ করুন। আর যারা মদদ দিচ্ছেন তাদের অবস্থাও করুন হবে। তিনি আরো বলেন, আপনারা যারা সরকারের আহ্বানে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছেন তাদের ধন্যবাদ। আর যারা এখনো আসেননি তারা শিগগির ফিরে আসুন।  মন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশ একটি সমৃদ্ধশালী দেশ। হাজার হাজার পর্যটক সুন্দরবনে আসেন। যারা দস্যুতা করছেন তাদের জন্য জিরো টলারেন্স। প্রধানমন্ত্রী এ ব্যাপারে খুব কঠোর আবার মানবিকও। এসময় গণমাধ্যমকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, সাংবাদিক সাহেবরা খুব কষ্ট করেছেন। দিনরাত পরিশ্রম করে সংবাদ পরিবেশন করেছেন, এখনো করছেন। আমরা আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।
র‌্যাব-৮ ব্যাটালিয়ানের পরিচালক পিএসসি লেঃ কর্ণেল মোঃ ইফতেখারুল মাবুদের সভাপতিত্বে এসময় উপস্থিত ও বক্তব্য প্রদান করেন, প্রধান অতিথি বাংলাদেশ সরকারের স্বরাস্ট্রমন্ত্রী মোঃ আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এমপি, বিশেষ অতিথি র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহম্মেদ বিপিএম (বার) এডিশনাল আইজিপি, বরগুনা জেলা প্রশাসক ড. মহা. বশিরুল আলম, জেলা পরিষদ প্রশাসক আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর কবীর, কোষ্টগার্ড দক্ষিন জোনের কমান্ডার ক্যাপ্টেন মোঃ ইকরাম হোসেন, বরিশাল রেঞ্জের ভারপ্রাপ্ত ডিআইজি মোঃ আকরাম হোসেন, বরগুনার পুলিশ সুপার বিজয় বসাক প্রমূখ।
অনুষ্ঠানে র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনিজর আহমেদ বলেছেন, যারা দস্যুদের মদদ ও টাকা দিচ্ছেন তাদের অবস্থাও ওই সব দস্যুদের মতো হবে, যারা বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। বেনজির বলেন, দস্যুরা এতো অস্ত্র, গোলাবারুদ ও টাকা কোথায় পায় তা ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দস্যুদের নিয়ন্ত্রণে এ অঞ্চলে একটি টাস্কফোর্স গঠন করেছেন। র‌্যাবের ডিজিকে যার প্রধান করা হয়েছে। আর এই টাস্কফোর্সের সফলতাই হল এই দস্যুদের আত্মসমর্পণ। আত্মসমর্পণকৃত দস্যুদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, এসব দস্যুদের দেখে কি মনে হচ্ছে তারা এতো টাকার মালিক? কেউ নিশ্চয়ই তাদের মদদ দিচ্ছেন। র‌্যাবের ডিজি বলেন, এখনো যারা দস্যুতায় লিপ্ত আছেন তারাও খুব শিগগিরই এদের মতো আত্মসমর্পণ করবেন। সুন্দরবন এবং বনের যত সম্পদ আছে তাও রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব। আর সমুদ্রসীমাকে আমরা অবশ্যই রক্ষা করবো, সে সমুদ্র থাকবে দস্যুমুক্ত।  তিনি আরো বলেন, ‘আমার জানা মতে, সুন্দরবনের ওই অঞ্চলে মোট ৬টি বাহিনী সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করে। যার মধ্যে ৪টি বাহিনী আত্মসমর্পণ করেছে। বাকী ২টি বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানাবো তারাও যেন আমাদের কাছে আত্মসমর্পণ করে। না হলে র‌্যাবের মুখোমুখি হলে জীবন নিয়ে ফিরে যেতে দেওয়া হবে না। তাই আশা করি সবাই আত্মসমর্পণের এ সুযোগ নেবেন। এসময় তিনি জঙ্গিদের উদ্দেশ্যে বলেন, যারা এখনো পলাতক আছেন তাদেরও শক্ত হাতে দমন করা হবে।
আত্মসমার্পনকারী জলদস্যুরা হলেন, সাগর বাহিনীর প্রধান আলমগীর শেখ ওরফে সাগর, কামরুল ফকির, আ. মালেক, আ. কাদের শেখ, হাফিজুর রহমান শেখ, কবির সরদার, দেলোয়ার শেখ, হাসান সরদার, নান্না ফকির, তোহিদুল ইসলাম, রাজু শেখ, লিটন হাওলাদার, তারিকুল গাজী। তাদের বাড়ি বাগেরহাট ও মোড়েলগঞ্জ উপজেলায়। আত্মসমর্পণকালে দস্যুরা আটটি বিদেশি একনলা বন্দুক, তিনটি দেশীয় একনলা বন্দুক, একটি বিদেশি দোনালা বন্দুক, দুইটি পয়েন্ট টুটুবোর এয়ার রাইফেল, চারটি এলজি এবং দুইটি কাটারাইফেল ও ৫৯৬ রাউন্ড গোলাবারুদ জমা দেন। সাগর বাহিনীর দলনেতা সাগর বলেন, এই দুর্বিসহ জীবনকে ত্যাগ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যেতে চাই বলে আজ আমাদের এই আত্মসমর্পন। আমরা ভালো হয়ে আর দশজন ভালো মানুষের মত পরিবার পরিজন নিয়ে সুখে শান্তিতে বসবাস করতে চাই। এর আগে, বঙ্গোপসাগরে দস্যু দমনে সুন্দরবনের বিভিন্ন পয়েন্টে বিশেষ অভিযান চালানো হয়। র‌্যাবের তথ্যানুযায়ী এর আগে ২০১৬ সালের ৩১ মে সুন্দরবনের কুখ্যাত জলদস্যু মাষ্টার বাহিনীর ১০ জন, ২০১৬ সালের ১৪ জুলাই মজনু ও ইলিয়াস বাহিনীর ১১ জন এবং সর্বশেষ ২০১৬ সালের ৭ সেপ্টেম্বর আলম ও শান্ত বাহিনীর ১৪ জন কুখ্যাত জলদস্যু বিপুল পরিমান অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ র‌্যাব-৮ বাটালিয়ানের কাছে আত্মসমর্পন করেন।




আরও পড়ুন



সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close