* আবুধাবিতে নিউজিল্যান্ডের রুদ্ধশ্বাস জয়           *  চার হাজারে ফোরজি ফোন দিচ্ছে রবি           *  দাদি হলেন মমতাজ           *  ছয় মাস পর্ন সাইট বন্ধের নির্দেশ হাইকোর্টের           *  সাত খুন মামলার রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশ           * হারানো সন্তানকে খুঁজে ফিরছেন বাবা-মা           *  ময়মনসিংহের নান্দাইলে দিনমজুরকে পিটিয়ে হত্যা           * নেত্রকোনায় পিএসসিতে অনুপস্থিত ৪ হাজার শিক্ষার্থী           * সুইজারল্যান্ডের কাছে পাত্তাই পেল না বেলজিয়াম            * ক্ষেপনাস্ত্র হামলা স্থগিত হুতি বিদ্রোহীদের           * ওয়াসার অনিয়ম ধরতে দুদকের অভিযান           * বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ রাবি শাখার আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু           * গাজীপুর কাপাসিয়া যানজট নিরসনে ট্রাফিক ব্যবস্থা চালু           * গাজীপুরে প্রশাসনের আপত্তিতে জেলা ইজতেমা প্রথম দিনেই সম্পন্ন           * কাঁদতে কাঁদতে পরীক্ষা দিলো তৈশী           * নেত্রকোনা-৩ অবশেষে মানিকের ভাগ্যেই জুটবে নৌকা এ আশাই তৃণমূলের           * সাত বছরের সাজার বিরুদ্ধে খালেদার আপিল           *  খুলনা-২ শেখ জুয়েলের জন্য মাঠ ছাড়লেন এমপি মিজান           *  ইয়াবাসহ বহিষ্কৃত এএসআই গ্রেপ্তার           *  ভোটেও নেই ফালু          
* নেত্রকোনায় পিএসসিতে অনুপস্থিত ৪ হাজার শিক্ষার্থী           * সুইজারল্যান্ডের কাছে পাত্তাই পেল না বেলজিয়াম            * ক্ষেপনাস্ত্র হামলা স্থগিত হুতি বিদ্রোহীদের          

কৃষকদের প্রিয় হয়ে উঠছে কেঁচো জৈব সার

স্টাফ রিপোর্টার, | মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ২০, ২০১৬
কৃষকদের প্রিয় হয়ে উঠছে কেঁচো জৈব সার
ঠাকুরগাঁওয়ে ক্রমেই কেঁচো জৈব সার প্রিয় হয়ে উঠেছে কৃষকদের কাছে। সদর উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের ৩টি গ্রামের কৃষকরা এখন জমিতে রাসায়নিক সার ব্যবহার না করে কেঁচো জৈব সার প্রয়োগ করে উৎপাদন করছেন বিভিন্ন শাক সবজিসহ ফসল। সেই সাথে নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে অন্যের কাছে বিক্রি করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। ইতোমধ্যে এটি সদর উপজেলা ছাড়িয়ে আরো ৩ উপজেলায় ছড়িয়ে গেছে।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের কৃষকরা একসময় শুধুমাত্র রাসায়নিক সার ব্যবহার করে ফসল উৎপাদন করতেন। এতে জমির অম্লত্ব ও ক্ষারত্ব বৃদ্ধি পায়। এ অবস্থায় কৃষি বিভাগের পরামর্শে ২০১৫ সালে ওই ইউনিয়নের ছোট বালিয়া গ্রামের ২ শতাধিক কৃষক সিমেন্টের রিং ও বিশেষায়িত কেঁচো দিয়ে প্রথম শুরু করেন কেঁচো জৈব সার তৈরি কাজ। এজন্য সিমেন্টের তৈরি রিংয়ে গোবর দিয়ে সেখানে ২শ থেকে ২শ ৫০টি কোঁচো ছেড়ে দিয়ে প্লাস্টিক দিয়ে ঢেকে রাখা হয়। ৩০-৪০ দিনের মধ্যে কেঁচোগুলো বিপাকীয় প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাদের মল ত্যাগ এবং মুখের বিশেষ লালা দিয়ে তৈরি করে কেঁচো জৈব সার। ওই সার জমিতে প্রয়োগ করে আশানুরূপ উৎপাদন পেয়ে ওই সারের চাহিদা বেড়ে যায়। পরের বার বগুলাডাঙ্গী গ্রামের ৩শ ও বানিয়াপাড়া  গ্রামের ২ শতাধিক পরিবারে নিজ বাড়িতে কেঁচো সার উৎপাদন করতে থাকে। এ সার প্রযোগ করলে জমিতে রাসায়নিক সার প্রয়োগ করতে হয় না। জমির স্বাস্থ্য ও মাটির গুণাগুণ ভাল থাকে এবং উৎপাদন আগের চাইতে বৃদ্ধি পায়।

বগুলাডাঙ্গী গ্রামের কৃষক জিয়াউর রহমান জানান, তিনি পিয়াজ-মরিচ, আলু ও লালশাক ক্ষেতে কেঁচো জৈব সার প্রয়োগ পূর্বের চেয়ে অনেক বেশি উৎপাদন  পেয়েছেন।

ছোট বালিয়া গ্রামের কৃষক ময়নুল ইসলাম ১ বিঘা জমিতে এ সার প্রয়োগ করে লাউ ও করলার চাষ করেছিলেন। খরচ হয়েছিল প্রায় ৩৫ হাজার টাকা। পরবর্তীতে ফলনকৃত লাউ-করলা বিক্রি করে পেয়েছেন ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এ ফলনে তিনি খুব খুশি।

সনেকা বেগম নামে এক কৃষাণি জানান, বাড়িতে রিং বসিয়ে মহিলারাই এটি দেখাশুনা করতে পারে। তিনি এ পর্যন্ত প্রায় ১ হাজার টাকার সার বিক্রি করেছেন। এছাড়াও ছোট বালিয়া গ্রামে ২ টন জৈব সার প্রস্তুত হয়। প্রস্তুতকৃত সার নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে বাইরে বিক্রি করে ওই গ্রামের কৃষকেরা মাসে ২৪ হাজার টাকা আয় করছেন।

এরই ধারাবাহিকতায় বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ২শ, রানীংশংকৈল উপজেলার দেড়শ ও হরিপুর উপজেলার ৫০ বাড়িতে কেঁচো জৈবসার উৎপাদন শুরু হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, কেঁচো জৈব সার শতক প্রতি ২/৪ কেজি প্রয়োগ করতে হয়। এ সার প্রয়োগ করলে রাসায়নিক সার প্রয়োগ করতে হয় না। কোন প্রকার রাসায়নিক সার, কীটনাশক প্রয়োগ না করে প্রাকৃতিকভাবে কেঁচো জৈব সার প্রয়োগ করে তুলনামূলকভাবে বেশি ফসল উৎপাদন করা সম্ভব।

এ ব্যাপারে বালিয়া ইউনিয়ন কৃষি কর্মকর্তা আব্দুর রহিম জানান, জমিতে রাসায়নিক সার বারবার প্রয়োগ করলে জমির অম্লত্ব ও ক্ষারত্ব বৃদ্ধি পায়। আর কেঁচো সার প্রয়োগ করলে জমির গুণগত মান ঠিক থাকে এবং জমির অন্যান্য চাহিদা পূরণ হয়। এ কারণে রাসায়নিক সারের চাইতে কেঁচো সারে ফসল উৎপাদন ভাল হয়। মাটির উর্বরা শক্তি ঠিক থাকে এবং বিভিন্ন পোকার উপদ্রব কম হয়।

এ ব্যাপারে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আরশেদ আলী  জানান, ঠাকুরগাঁও জেলার জমিতে ব্যাপক জৈব সারের ঘাটতি রয়েছে। জমির সুস্বাস্থ্য রক্ষায় জৈব সারের বিকল্প নেই। ইতোমধ্যে  সদর উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের ৩টি গ্রামে জৈব সার উৎপাদন শুরু হয়েছে। গ্রামের কৃষান কৃষাণিরা বাড়িতে বসে গোবর থেকে কেঁচো জৈব সার তৈরি করে রাসায়নিক সার ছাড়াই ফসল উৎপাদন করছেন।

অন্যদিকে নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে অবশিষ্ট সার বিক্রি করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। এখানকার কৃষকদের লাভ দেখে অন্যন্য উপজেলার চাষিরাও জৈবসার তৈরিতে উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন। ইতোমধ্যে কেঁচো জৈব সার সদর উপজেলা থেকে রানীশংকৈল, বালিয়াডাঙ্গী ও হরিপুর  উপজেলাতেও ছড়িয়ে পড়েছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে খুব শিগগির ঠাকুরগাঁও জেলা জৈব কৃষির আওতায় আসবে  এবং মাটির উন্নয়ন ঘটিয়ে ফসলের উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব হবে।




আরও পড়ুন



সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close