* বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ রাবি শাখার আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু           * গাজীপুর কাপাসিয়া যানজট নিরসনে ট্রাফিক ব্যবস্থা চালু           * গাজীপুরে প্রশাসনের আপত্তিতে জেলা ইজতেমা প্রথম দিনেই সম্পন্ন           * কাঁদতে কাঁদতে পরীক্ষা দিলো তৈশী           * নেত্রকোনা-৩ অবশেষে মানিকের ভাগ্যেই জুটবে নৌকা এ আশাই তৃণমূলের           * সাত বছরের সাজার বিরুদ্ধে খালেদার আপিল           *  খুলনা-২ শেখ জুয়েলের জন্য মাঠ ছাড়লেন এমপি মিজান           *  ইয়াবাসহ বহিষ্কৃত এএসআই গ্রেপ্তার           *  ভোটেও নেই ফালু           *  কুড়িগ্রামে পারিবারিক কলহের জেরে বৃদ্ধের আত্মহত্যা           *  নেত্রকোণায় তরুণীর লাশ উদ্ধার           *  সংসদে আটটি আসন দাবি হিজড়াদের           * প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা শুরু           *  দীপিকার জন্য সুখবর           *  নিষেধাজ্ঞা মোকাবেলায় বহুমুখী পরিকল্পনা রয়েছে: ইরান           *  সবার আগে সেমিতে পর্তুগাল           * পালিয়ে বিয়ের পর লাশ হলেন মল্লিকা            * ভোট বর্জন ভুল ছিল: ড. কামাল           * বেনাপোল সীমান্ত থেকে বিপুল পরিমান ফেন্সিডিল উদ্ধার           * জামাল খাসোগি হত্যা: ১৭ সৌদি নাগরিকের ওপর নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের          
*  খুলনা-২ শেখ জুয়েলের জন্য মাঠ ছাড়লেন এমপি মিজান           *  কুড়িগ্রামে পারিবারিক কলহের জেরে বৃদ্ধের আত্মহত্যা           *  নেত্রকোণায় তরুণীর লাশ উদ্ধার          

সংস্কারের অভাবে অস্তিত্ব সংকটে,নাটোরের ৩২টি নদ-নদী

তাপস কুমার, নাটোর: | সোমবার, জানুয়ারী ২৩, ২০১৭
সংস্কারের অভাবে অস্তিত্ব সংকটে,নাটোরের ৩২টি নদ-নদী
হারিয়ে যেতে বসেছে নাটোরের ছোট-বড় প্রায় ৩২টি নদ-নদী। পানির অভাবে মিলছে না মাছ। কৃষিকাজেও বেড়েছে খরচ। এক সময় এখানে বড় নৌকা-স্টিমার চলত। বর্তমানে শুষ্ক মৌসুমের আগেই হারিয়ে যায় এসব নদীর প্রাণ। হারিয়ে যেতে বসেছে জেলার বড়াল, মুছা, নারোদ, নন্দকুজা, আত্রাইসহ ছোট বড় অধিকাংশ নদী। চলাচল না থাকায় পাড়েই অলস পড়ে আছে নৌকাগুলো।
নাটোরের এসব নদীর আয়তন ক্রমশই হ্রাস পাচ্ছে। জীববৈচিত্র্য ধ্বংসসহ হারিয়ে যাচ্ছে মিঠাপানির দেশি প্রজাতির নানা প্রকার মাছ। সময়ের বিবর্তনে চলনবিল আজ মৃত প্রায়। এক সময়  যে বিল পানিতে থৈথৈ করত সেখানে আজ সবুজ ফসলের সমাহার। বর্ষা মৌসুম ছাড়া বছরের অধিকাংশ সময়ই পানিশূন্য থাকে নদীগুলো। নদীর বুক চিরে রেললাইন ও মহাসড়ক নির্মাণসহ অপরিকল্পিতভাবে ব্রিজ-কালভার্ট, স্লুইসগেট, বাঁধ-ক্রসবাঁধ এবং বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ, দখলসহ নানা কারণে অস্তিত্ব হারাচ্ছে।
ইতিহাস ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চলন্ত বিল থেকে চলনবিল নামের উৎপত্তি। চলনবিল মৎস্য ও শস্যভান্ডার হিসেবে খ্যাত। হাজারো অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত হয়ে ওঠে শীতকালে। এর ভিতর দিয়ে প্রবাহিত ছিল খর¯্রােতা বহু নদী-খাল। নদ-নদীগুলোর মধ্যে করতোয়া, ফুলজোড়, আত্রাই, বড়াল, গুড়, হিজলী, তুলশী, ইছামতি, নন্দকুজা, গুমানী, চৈচুয়া, ভাদাই, চিকনাই, বানগঙ্গা, কুমারডাঙ্গা, মরা আত্রাই ও মরা করতোয়া, গাড়াদহ উল্লে¬খযোগ্য। নাটোর পৌর শহরের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত নারদ নদ এখন প্রভাবশালীদের দখলে। এ নদের দুই পাশ দখল করে গড়ে উঠেছে বস্তি, দোকানপাটসহ নানা স্থাপনা। অতীতের চলনবিল ছিল বিশাল। বছরের অধিকাংশ সময়ই পানিতে থৈথৈ করত চলনবিল। নৌকাই ছিল যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম। ১৯০৯ সালের পাবলিক ওয়ার্কস ডিপার্টমেন্টের জরিপ অনুযায়ী প্রাচীন চলনবিলের আয়তন ছিল প্রায় ১ হাজার ৮৮ বর্গকিলোমিটার। খরা মৌসুমে শুকিয়ে গিয়ে দাঁড়ায় ৩৬৮ বর্গকিলোমিটারে।
১৯৪০ সালে পূর্ববঙ্গ রেলওয়ে প্রচার বিভাগের তথ্যমতে, তখন এর আয়তন ছিল ৪৪১ বর্গমাইল। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, ১৯১৪ সালে ব্রিটিশ আমলে চলনবিলের মধ্য দিয়ে পূর্ব  থেকে পশ্চিমে সিরাজগঞ্জ হতে পদ্মার হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পর্যন্ত  রেললাইন নির্মাণ করা হয়। তখন থেকেই বিলের অপেক্ষাকৃত উঁচু উত্তরাঞ্চল থেকে দক্ষিণাঞ্চলে পানির স্বাভাবিক প্রবাহে ভাটা পড়ে। এরপর থেকেই চলনবিলের আয়তন সংকীর্ণ হতে শুরু করে। পদ্মা নদীর পলি জমে গত কয়েক দশকে নদ-নদীগুলোর দক্ষিণাংশের প্রায় ২১ বর্গকিলোমিটার এলাকা শুকিয়ে গেছে। সিরাজগঞ্জের হাটিকুমরুল-বনপাড়া মহাসড়ক নির্মাণের পর পানি প্রবাহে আরও বেশি প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছে। ফলে পলি জমে দ্রুত ভরাট হচ্ছে। জরিপে আরও দেখা গেছে, বিলে পানি সরবরাহকারী নদী দ্বারা বছরে প্রায় ৬ দশমিক ৩ মিলিয়ন ঘনফুট পলি জমা হয়। আর ১ দশমিক ৫ মিলিয়ন ঘনফুট পলি বিভিন্ন নদী ও ক্যানেল দিয়ে বের হয়ে যায়। অর্থাৎ বছরে প্রায় ৪.৮ মিলিয়ন ঘনফুট পলি জমা হয় এই বিলে। এই পলি যদি ৩৬৮ বর্গকিলোমিটার এলাকায় সমভাবে বিস্তৃতি করে দেওয়া হয় তাহলে প্রতি বছর এর উচ্চতা প্রায় ১.২৭ সেন্টিমিটার করে বৃদ্ধি পায়।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চলনবিলকে রক্ষা করতে হলে যমুনা ও পদ্মা নদীসহ চলনবিলের প্রধান প্রধান নদী ও খাল ড্রেজিংয়ের আওতায় এনে পানির প্রবাহ সৃষ্টি ও ধারণক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে। জন-অংশগ্রহণের ভিত্তিতে চলনবিল অথরিটি প্রতিষ্ঠার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। সংশি¬ষ্টরা বলছেন, সংস্কারের অভাবে দ্রুত মানচিত্র  থেকে হারিয়ে যেতে পারে নদীগুলো। তাই জেলার কৃষি ও জীববৈচিত্র্যের স্বার্থে এখনই কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি।




আরও পড়ুন



সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close