* ‘হাটের খাজনা ১০০ টাকা হলে সারাবছর ২৫০ টাকায় গরুর মাংস’           *  শাহবাগে ইমরানের ওপর আবার ‘হামলা’           *  পানি কমেছে তিস্তায়, বেড়েছে তিন নদীতে           *  ফুলবাড়ীয়ায় নিখোঁজের দুই দিন পর কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার           * হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী ‘পাপ্পু’ ও ‘মিনার’            * জামায়াতের উত্তরসূরী অধ্যক্ষের কুক্ষিগত নজরুল কলেজ           * বাংলাদেশ অনলাইন সংবাদিক কল্যাণ ইউনিয়ন (বসকো) জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী স্মরণ করে আলোচনা সভা           * শহরে ১ নং পুলিশ ফাঁড়ির এসআই আশরাফুল আলমের সফলতা           * ময়মনসিংহে ডিবির বিরুদ্ধে আটকের পর ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ           * ভাঙ্গায় পরিবহন তল্লাশী করে ফেনসিডিল সহ যুবক আটক           * অস্ট্রেলিয়া আসার আগে মিরপুরে সেনা কমান্ডো মহড়া           * নবরাত্রিতে ফাল্গুনীর আয় এক কোটি ৭৫ লাখ রুপি           *  বনানীতে তরুণী ধর্ষণ: দাখিল হয়নি মামলার প্রতিবেদন           * আহমদিয়া সম্প্রদায়দের নাস্তিক ভাবা হয় পাকিস্তানে           * সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিতের তাগিদ এসেছে সংলাপে’           *  নিরাপত্তাহীনতায় ময়মনসিংহ প্রতিদিন সম্পাদক ও তার পরিবার           *  পূর্বধলায় চোরাই মোটর সাইকেলসহ আটক-১           *  খেতে চাওয়ায় বৃদ্ধা মাকে নির্যাতন           *  চাঁপাইনবাবগঞ্জে বদলে যাচ্ছে উন্নয়ন প্রকল্পের রূপ           *  নান্দাইল হাসপাতালের ক্যাশিয়ার কোটিপতি জহিরুলের খুঁটির জোর কোথায়?          
*  ফুলবাড়ীয়ায় নিখোঁজের দুই দিন পর কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার           * ময়মনসিংহে ডিবির বিরুদ্ধে আটকের পর ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ           *  পূর্বধলায় চোরাই মোটর সাইকেলসহ আটক-১          

‘আদেশ ছাড়াই’ আদালত থেকে মুক্ত সাবেক কমিশনার

আদালত প্রতিবেদক | শুক্রবার, জুন ২, ২০১৭

‘আদেশ ছাড়াই’ আদালত থেকে মুক্ত সাবেক কমিশনার
মানবপাচারের একটি মামলায় আত্মসমর্পণ করা আসামি ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক ওয়ার্ড কমিশনার হারুন চৌধুরীকে আদালত।

বৃহস্পতিবার এ আসামিসহ চারজন ঢাকা সিএমএম আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের প্রার্থনা করেন। ঢাকা মহানগর হাকিম আব্দুল্লাহ আল মাসুদ সকাল ১১টার দিকে ওইআত্মসমর্পণের ওপর শুনানি গ্রহণ করে পরে আদেশ দেবেন জানান।

দুপুরে আদালতের নথিতে দেখা যায় বিচারক আসামি হারুন চৌধুরীর স্ত্রী মিসেস হারুন, তার মেয়ে এবং মেয়েজামাই লিটনকে জামিন দিয়েছেন। আর হারুন চৌধুরীর জামিন মঞ্জুর অথবা নামঞ্জুরের বিষয়ে কোনো আদেশ নেই। শুধু জামিনের আবেদনে তার নাম কেটে দেয়া হয়েছে।

এ সম্পর্কে এ মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাফুজুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, ‘হারুন চৌধুরীসহ চার আসামির আত্মসমর্পণের শুনানি প্রকাশ্য আদালতে গ্রহণ করেন। কোনো আসামি আত্মসমর্পণ করে জামিন চাইলে আদালত হয় তাকে জামিন দেবেন না হয় জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠাবেন। আদালত শুনানি গ্রহণের পর খাস কামরায় বসে আসামিকে ছেড়ে দিতে পারেন না।’

এ বিষয়ে আদালতের নারী ও শিশু জিআরও শাখার জিআরও মো. মোস্তফা বলেন, হারুন চৌধুরীসহ চার আসামির আত্মসমর্পণের শুনানি হয়। তবে আদেশের সময় আত্মসমর্পণের আবেদনে হারুন চৌধুরীর নাম কেটে দেয়া পাওয়া গেছে।

আদালত সূত্র জানায়, হারুন চৌধুরীসহ চার আসামি আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদনের শুনানি উভয়পক্ষের (বাদী ও আসামিপক্ষের আইনজীবীর) উপস্থিতিতে হয়। পরে বিচারক খাস কামরায় বসে আদেশ দেয়ার সময় হারুন চৌধুরীকে জামিন দিতে পারবেন না জানালে আইনজীবীরা হারুন চৌধুরীর আত্মসমর্পণ প্রত্যাহার করে নেন।

প্রসঙ্গত, এ মামলায় এর আগে আসামি হারুন চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করেছিলেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. খুরশীদ আলম। গ্রেপ্তার করে সিআইডি অফিসে নেয়ার পর ঊর্ধ্বতন অফিসের পরামর্শ মতো এ আসামিকে শুধু মুচলেকা রেখে ছেড়ে দেন। পরে এ বিষয়ে বাদীপক্ষ আদালতে অভিযোগ করলে গত ২২ মে ঢাকা মহানগর হাকিম জিয়ারুল ইসলাম তদন্ত কর্মকর্তা খুরশীদ আলমকে আদালতে তলব করেন। এরপর গত ২৫ মে সিএমএম আদালতে তদন্ত কর্মকর্তা উপস্থিত হয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার আদেশে তিনি আসামি হারুন চৌধুরী অসুস্থ হওয়ায় ছেড়ে দিয়েছিলেন বলে জানান। ওইদিন আদালতের ক্ষমতা নিজ হাতে তুলে অভিযোগে আদালত তদন্ত কর্মকর্তা খুরশিদ আলমের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার এবং তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তনের আদেশ দিয়েছিলেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০১৬ সালের শুরুর দিকে ১৪ বছরের এক কিশোরীকে আম্বিয়া খাতুন নামের এক নারীর মাধ্যমে সাবেক কমিশনার হারুন চৌধুরীর বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজে দেন কিশোরীর বাবা। মাসে দুই হাজার টাকা বেতন দেয়ার কথা ছিল। কাজে যোগ দেয়ার আট থেকে নয় মাস পর ২০১৬ সালের ২২ অক্টোবর কিশোরীর বাবা মেয়েকে ঈদে বাড়ি পাঠানোর জন্য হারুন ও তাঁর স্ত্রীর কাছে অনুরোধ করেন। তবে হারুনের মেয়ের স্বামী লিটন তাঁকে বলে দেন, কিশোরীটির ঈদে বাড়ি যাওয়া হবে না। পরে কিশোরীর বাবা ঢাকায় আসামিদের বাসায় এসে তাঁর মেয়ের খবর জানতে চান। তখন তাঁকে আটকে রেখে তাঁর কাছ থেকে জোরপূর্বক স্টাম্পে স্বাক্ষর নেওয়া হয়। মেয়ের খোঁজ না পেয়ে কিশোরীর বাবা হাজারীবাগ থানায় মামলা করতে যান। থানা কর্তৃপক্ষ মামলা না নেয়ায় তিনি ওই বছর ২৭ অক্টোবর আদালতে মানব পাচার আইনের ৭/৮ ধারায় একটি নালিশি মামলা করেন।

পরে আদালতের নির্দেশে আম্বিয়া খাতুন, হারুন চৌধুরী, তাঁর স্ত্রী ও মেয়ে ও মেয়ে স্বামী লিটনের বিরুদ্ধে ওই বছর ৮ নভেম্বর মামলা নেয় হাজারিবাগ থানা। যার হাজারিবাগ থানার মামলা নং- ১০(১১)১৬। তবে পুলিশ গত সাত মাসের তদন্তের পরও ভিকটিমের কোনো সন্ধান করতে পারেননি।




আরও পড়ুন



প্রধান সম্পাদকঃ
ড. মো: ইদ্রিস খান

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

সিয়াম এন্ড সিফাত লিমিটেড
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close