*  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইমন যখন থানার ডিউটি অফিসার!!           * ‘নারায়ণগঞ্জে জঙ্গি আস্তানায়’ অভিযান শুরু           * টেন্ডার পেতে মডেল ও নায়িকাদের রুমে পাঠাতেন শামীম           * গফরগাঁও পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে দালালের হাট বসেছে            * শেরপুরে বাসচাপায় দুই যাত্রী নিহত           * সেই ডিসির নারী কেলেঙ্কারির সত্যতা পেয়েছে মন্ত্রণালয়, তদন্ত প্রতিবেদন জমা           * মাকে ছাড়াই দেশে ফিরল দুই ভাই            * জাতীয় দাবার শীর্ষে রানী, শিরিন, আলো            * ঘুষের টাকাসহ অডিটর-ক্যাশিয়ার গ্রেফতার           *  ফুলশয্যার রাতে প্রত্যেক পুরুষই স্ত্রীর কাছে যা আশা করেন           * ফাইল নিয়ে পালাতে গিয়ে আটক বশেমুরবিপ্রবির ইঞ্জিনিয়ার           *  জামালপুরে পানিতে ডুবে দুই বোনের মৃত্যু            *  আলোচিত বিয়ে চুয়াডাঙ্গায় কনের বাড়িতে এবার বরভাত           * ভেজা শরীরে সুইমিং পুলে ‘ঝুমা বৌদি’, ভাইরাল ছবি           * গুলশানে স্পা'র আড়ালে 'অনৈতিক কর্মকাণ্ড', আটক ১৯           * বড় বোনকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে ছোট বোনকে ধর্ষণ যুবলীগ নেতার            * প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ            * মসজিদের কাজ বন্ধ করায় ছাত্রলীগ নেতাকে শোকজ           * বাচ্চাকে মারধর করায় দলবল নিয়ে থানায় হনুমান            * ভাতিজিকে ধর্ষণের অভিযোগে চাচা আটক           
* ‘নারায়ণগঞ্জে জঙ্গি আস্তানায়’ অভিযান শুরু           * রোহিঙ্গা সংকট: আরও ৮ কোটি ৭০ লাখ পাউন্ড দেবে যুক্তরাজ্য           * বাংলাদেশি যাত্রীদের ফ্রি হোটেল সুবিধা দেবে এমিরেটস          

‘মুড়ির গ্রাম’ নাটোরের গোয়ালদীঘি কৃষ্ণপুর

তাপস কুমার, নাটোর: | মঙ্গলবার, জুন ৬, ২০১৭
‘মুড়ির গ্রাম’ নাটোরের গোয়ালদীঘি কৃষ্ণপুর

নাটোর সদর উপজেলার ছোট্ট গ্রাম গোয়ালদীঘি কৃষ্ণপুর। তবে আলাদা একটি নামেই এ গ্রামকে চিনতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন নাটোরের মানুষ। গোয়ালদীঘি কৃষ্ণপুর ‘মুড়ির গ্রাম’ হিসেবে পরিচিত নাটোরসহ আশপাশের বেশ কয়েকটি জেলার মানুষের কাছে।

এদিকে, রমজান মাসে ইফতারের অপরিহার্য অনুষঙ্গ মুড়ি তৈরি হয় গোয়ালদীঘি কৃষ্ণপুরসহ পার্শ্ববর্তী কয়েকটি গ্রামের ঘরে ঘরে। ফলে গ্রামে যাদের জমি আছে তারা মুড়ি তৈরির ধান উৎপাদন করেন এবং তারাই সেই ধান সিদ্ধ করে শুকিয়ে চাল তৈরি করে মুড়ি ভাজেন। রাসায়নিক সার ও কেমিক্যালমুক্ত হওয়ায় এ মুড়ির ব্যাপক সুনামের পাশপাশি বেশ চাহিদা রয়েছে।

বছরে যে পরিমাণ মুড়ি উৎপাদন হয় তার দ্বিগুণ হয় রমজান মাস এলেই। শুধু রমজান মাসই নয়, সারা বছর এখানকার মানুষের চাহিদা মেটায় এ গ্রামের মুড়ি। রমজান এসেছে তাই দম ফেলার সুযোগ নেই কৃষ্ণপুর গ্রামের অর্ধশত পরিবারের। আমন, বিনা-৭, হরি ধান, ২৯ ধান, ১৬ ধান, ৫২ ধানের মুড়ি উৎপাদিত হয় এখানে। ভালো মুড়ি দিয়ে ইফতারের জন্য রমজান মাস শুরু থেকে জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অনেকেই ছুটে আসছেন এ গ্রামে। ইতোমধ্যে এখান থেকে মুড়ি কিনে রাজধানী ঢাকা, রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, কুষ্টিয়া, রাজবাড়ী, সিরাজগঞ্জসহ দেশের নানান অঞ্চলে নিয়ে যাচ্ছে পাইকাররা। তবে ধানের দাম বেশি হওয়ায় এবার  বিপাকে পড়েছেন মুড়ি উৎপাদনকারীরা।

সরেজমিনে গোয়ালদীঘি, বারুহাট, বাকশোর, তেগাছি, তালগাছি ও ঢাকোপাড়া গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, গ্রামের প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই তৈরি হচ্ছে ‘হাতে ভাজা’ মুড়ি। বাতাসে ঝনঝন শনশন মুড়ি ভাজার শব্দ। প্রতি বাড়িতেই মুড়ি ভাজার জন্য রয়েছে আলাদা ঘর। মুড়ি ভাজার কাজে নিয়োজিত বাড়ির মেয়েদের কেউবা উঠানে ধান শুকাচ্ছে, মাঝে মাঝে সেই ধান নেড়ে দিচ্ছে, মাটির চুলায় চাল গরম করছে আর সেই চাল নারিকেলের খিল কিংবা পাটসোলা দিয়ে নাড়াচারা করছে। কেউবা সেই গরম চাল মাটির পাতিলে রাখা বালিতে পাটসোলা দিয়ে নাড়াচারা করছেন। সঙ্গে সঙ্গে সেই চাল থেকে ফুটে যাচ্ছে মুড়ি।

মুড়ি তৈরিতে গ্রামে নারীদের পাশাপাশি ভাজা থেকে শুরু করে বাজারজাতকরণে প্রত্যক্ষভাবে জড়িয়ে রয়েছেন এখানকার পুরুষরাও। ভোর থেকে ভাজা শুরু হওয়া এসব মুড়ি সকাল হলে নিয়ে যাওয়া হয় আড়তে। এ ছাড়াও নাটোর-বগুড়া মহাসড়কের ডালসড়ক এলাকায় রয়েছে বেশ কয়েকটি মুড়ির আড়ত। স্থানীয় মুড়ি বিক্রেতা এবং দূরদূরান্ত থেকে আসা পাইকারদের সমাগম ঘটে এ আড়তে। তাছাড়া ডালসড়ক বায়তুন নূর জামে মসজিদ মুড়ির আড়তে নানা রকমের মুড়ি কেনাবেচা হয়। তবে আমন ও হরি ধানের মুড়ির চাহিদা বেশি। আমন মুড়ি বিক্রি হচ্ছে প্রতি মণ দুই হাজার ৮০০ থেকে দুই হাজার ৯০০ টাকা, ১৬ ধানের মুড়ি তিন হাজার থেকে তিন হাজার ১০০ টাকা ও অনান্য মুড়ি গড়ে দুই হাজার ৫০০ থেকে দুই হাজার ৯০০ টাকা মণ দরে। সবমিলিয়ে প্রতিদিন এ আড়তে বিক্রি হয় দুই থেকে তিন লাখ টাকার মুড়ি।

গোয়ালদীঘি কৃষ্ণপুর গ্রামের মুড়ি উৎপাদনকারী মিলন হোসেন বলেন, শুধু মুড়ি কিনতেই রমজান মাসে এই গ্রামে আসেন অনেক মানুষ। তবে নানা স্থানে মেশিনে প্যাকেট করা মুড়ি তাদের হাতে ভাজা মুড়ির সুনাম নষ্ট করছে। তেগাছি গ্রামের আব্দুল জব্বার বলেন, ‘এই মুড়িতে কোনো রাসায়নিক সার দেওয়া হয় না। লবণ আর বালু দিয়ে ভাজা হয় মুড়ি। তাই সারা বছর ধরে আমাদের মুড়ির চাহিদা বেশিই থাকে।’ ঢাকোপাড়া গ্রামের আসিয়া বেগম বলেন, ‘এক মণ চালের মুড়ি ভাজলে ১০ থেকে ১২ কেজি মুড়ি তৈরি হয়। অন্য সময় আমরা রাত ১টা থেকে ২টার মধ্যে মুড়ি ভাজা শুরু করে পরদিন সকাল ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত মুড়ি ভাজার কাজ করি। তবে রমজান মাসে আমরা প্রায় সারাদিনই মুড়ি ভাজি।’

মুড়ি ব্যবসায়ী অহিদুল ইসলাম জানান, ‘রোজার পাশাপাশি বর্তমানে আম, কাঁঠাল বাজারে উঠায় চাহিদা বেড়েছে হাতে ভাজা মুড়ির। এ ব্যবসা স্বল্প পুঁজির হলেও প্রতিদিন দুই থেকে তিন লাখ টাকার মুড়ি বিক্রি হয় স্থানীয় এ আড়তে।’ তাছাড়া স্বল্প পুঁজির এ ব্যবসা করে গোয়ালদীঘি কৃষ্ণপুর গ্রামসহ পার্শ্ববর্তী গ্রামের মানুষরা দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেও তাদের পাশে স্থানীয় কোনো ব্যাংক এগিয়ে আসেনি। ফলে স্বল্প সুদে এসব মুড়ি উৎপাদনকারীদের ঋণ সহায়ত করলে ব্যবসার পরিধি বাড়ানো সম্ভব বলে মনে করছেন মুড়ি উৎপাদনকারীরা।






আরও পড়ুন



১. প্রধান উপদেষ্টা ঃ এড. সাদির হোসেন (হাইকোর্ট আইনজীবি)
২. সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ মোঃ খায়রুল আলম রফিক
৩. নির্বাহী সম্পাদক ঃ প্রদীপ কুমার বিশ্বাস
৪. প্রধান প্রতিবেদক ঃ হাসান আল মামুন
প্রধান কার্যালয় ঃ ২৩৬/ এ, রুমা ভবন ,(৭ম তলা ), মতিঝিল ঢাকা , বাংলাদেশ । ফোন ঃ ০১৭৭৯০৯১২৫০
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close