* সু চির বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়: ইনু           *  সিঙ্গাপুর নেয়া হচ্ছে গুরুতর অসুস্থ ডিপজলকে           *  ইয়েমেন আগ্রাসনের মধ্যেই সৌদি-ব্রিটেনের সামরিক চুক্তি           * মুন্সীগঞ্জে মিলে আগুন জিএমসহ ছয় কর্মকর্তা আটক, তদন্ত কমিটি গঠন           *  বাসাতেই আছি, ধরে নিয়ে যান: ইমরান           *  ময়মনসিংহ বিভাগের শ্রেষ্ঠ সার্কেল এএসপি আল-আমীন           *  অফিসিয়াল যোগাযোগে ব্যর্থ হয়ে ফেসবুকে পোস্ট           * ত্রিশালে অপরাধ দমন সভা অনুষ্ঠিত           * ইনোভেশন ইন পাবলিক সার্ভিস কর্মশালা আজ সমাপ্ত           *  ময়মনসিংহ শহর আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি প্রয়াত আলহাজ্ব ইঞ্জিনিয়ার আমিনুল ইসলাম তারার ১ম মৃত্যু বার্ষিকীতে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত           * ভাঙ্গায় কৃর্তি ছাত্র-ছাত্রীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান           * ৯ ডাকাত সদস্য আটক ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার           * চাল আতঙ্কে উত্তরের মানুষ           * বরিশাল মহানগর ছাত্রলীগ সম্পাদক রূপগঞ্জে অস্ত্রসহ আটক           * রোহিঙ্গাদের জন্য ৬০০ কোটি টাকা দেবে জার্মানি           * ট্যানারির বর্জ্য সরাবে কে?           * রোহিঙ্গা সংকটে বাংলাদেশের পাশে থাকবে যুক্তরাষ্ট্র           * ভাঙ্গায় কুমার নদে নৌকা বাইচ অনুষ্ঠিত           * স্বামীকে মুক্ত করতে ঘরের টিন ও গয়না বিক্রি           *  গণহত্যা বন্ধ করে রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফিরিয়ে নেয়ার দাবীতে ময়মনসিংহে নাগরিকদের মানববন্ধন কর্মসূচী ও প্রতিবাদ সমাবেশ           
* সু চির বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়: ইনু           *  বাসাতেই আছি, ধরে নিয়ে যান: ইমরান           *  অফিসিয়াল যোগাযোগে ব্যর্থ হয়ে ফেসবুকে পোস্ট          

আহমদিয়া সম্প্রদায়দের নাস্তিক ভাবা হয় পাকিস্তানে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, | বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১৭, ২০১৭
আহমদিয়া সম্প্রদায়দের নাস্তিক ভাবা হয় পাকিস্তানে
১৯৪৭ সালে ভারত ভাগের পর যারা এক দেশে ছেড়ে অন্য দেশ বেছে নিয়েছিলেন, তাদের মধ্যে রয়েছে ভারতের আহমদিয়া সম্প্রদায়ের লোকজনও। ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত সংলগ্ন কাদিয়ানের বাসিন্দাদের অনেকেই সে সময় পশ্চিম পাকিস্তানে চলে আসেন।

লাহোরের উপকন্ঠে পাহাড় ঘেরা একটি শহর রবওয়া, যার বেশিরভাগ বাসিন্দাই আহমদিয়া সম্প্রদায়ের। অনেক পাকিস্তানি তাদের নাস্তিক এবং দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক বলে মনে করে। গত এক দশকেই উগ্রপন্থীদের হামলায় এই সম্প্রদায়ের অন্তত ১০০ সদস্য মারা গেছে।কিন্তু ভারত ভাগের সময় এই আহমদিয়ারা তাদের দেশ হিসেবে নিজেরাই পাকিস্তানকে বেছে নিয়েছিলেন।

                   পাকিস্তানের নোবেলবিজয়ী পদার্থবিজ্ঞানী আব্দুস সালাম ছিলেন আহমদিয়া সম্প্রদায়ের।

‘সবাই যখন পাকিস্তানে চলে আসে, তখন তাদের সবকিছুই ভারতে রেখে আসতে বাধ্য হয়। কখনোই তারা সে বিষয়টি তাদের মন থেকে মুছতে পারেনি।’

নিজের সম্প্রদায়ের আরো অনেকের সঙ্গে, শৈশবে ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত লাগোয়া শহর কাদিয়ান থেকে পাকিস্তানে চলে আসেন সাবেক পাইলট মাহমুদ খান।

তিনি বলছিলেন, কিভাবে আহমদিয়া বিরোধী দাঙ্গায় তাদের নতুন পাকিস্তানের স্বপ্নভঙ্গ হয়।

‘আমার বাবা, আমার চাচারা খুবই উত্তেজিত ছিল যে, আমরা নিজেদের জন্য একটি আলাদা দেশ পেতে যাচ্ছি। যেখানে আমরা আমাদের ধর্মের চর্চা করতে পারব। প্রথমদিকে অবশ্য তাই ছিল। কিন্তু ১৯৫৩ সালে লাহোরে যখন দাঙ্গা শুরু হলো, তখন তারা ভীত হয়ে পড়ল। আসলেই সেটা ছিল এ রকম ঘটনার সূচনা মাত্র।’

ভারত ছাড়ার পর রবওয়া আহমদিয়াদের জন্য একটি নিরাপদ স্থান হওয়ার কথা ছিল। হয়তো পুরো পাকিস্তানে এটাই এখনো তাদের জন্য সবচেয়ে নিরাপদ জায়গা, কিন্তু সহিংসতার হুমকি সবসময়েই তাদের মাথার ওপর থেকেছে।

শহরের প্রবেশমুখে কংক্রিটের দেয়াল আর কবরস্থানে অসংখ্য আহমদিয়ার কবর রয়েছে, যাদের মৃত্যু হয়েছে সন্ত্রাসী হামলায়। তবে এই সম্প্রদায় শুধুমাত্র উগ্রপন্থীদের হামলারই শিকার হয়েছে তা নয়, তারা লক্ষ্য হয়েছে রাষ্ট্রযন্ত্রেরও। ১৯৭৪ সালে তাদের অমুসলিম বলে আইনত ঘোষণা দেয়া হয়। এখনো তারা প্রকাশ্যে কোন প্রার্থনা করতে পারে না।

‘এখন আমার মনে হয়, আমরা যদি তখন ভারতে থেকে যেতাম, সেটাই হয়তো আমাদের জন্য বেশি ভালো হতো। বিশেষ করে ১৯৭৪ সালের আইনের পর আমার পরিবারের লোকজন কতটা কষ্ট পেয়েছে, সেটা আপনাকে বোঝাতে পারব না।’

তবে এই সম্প্রদায়ের বয়োজেষ্ঠ্যরা ইতিবাচকভাবে ভাবতে চান। তারা বলছেন, সবার আগ্রহেই এখানেও জাকজমকভাবে পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস পালিত হয়েছে।

পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতাকালীন অন্যতম নেতা ও প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাফরুল্লাহ খান ছিলেন আহমদিয়া সম্প্রদায়ের। স্বাধীন দেশ হিসেবে দেশটির লক্ষ্য তুলে ধরার বিবৃতি লিখতেও তিনি সহায়তা করেন। লেখক ওসমান আহমদ বলছেন, পাকিস্তানে এখন অনেকেই তার নামও জানে না।

‘পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠায় আহমদিয়া নেতাদের নাম মুছে ফেলার চেষ্টা এখানে খুবই বাস্তব এবং শক্তিশালী প্রচেষ্টা। জাফরুল্লাহ খানকে নিজের রাজনৈতিক পুত্র বলে আখ্যায়িত করেছিলেন পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ। এতেই বোঝা যায়, আন্দোলনে তার ভূমিকা কত বেশি ছিল। কিন্তু বাস্তবতা হলো, আহমদিয়া সম্পদায়ের এই মানুষগুলোকে ভুলে যাওয়া হয়েছে এবং এ রকম ব্যাপার এখানে অসহিঞ্চুতাকে আরো বাড়িয়ে তুলেছে।’

তাদের অভিযোগ, এই সম্প্রদায়ের অন্য গুণী ব্যক্তিরা, যেমন পাকিস্তানের প্রথম নোবেল বিজয়ী আবদুস সালামও দেশে তাদের অবদানের যথাযথ স্বীকৃতি পাননি।

পাকিস্তানের স্বাধীনতার বার্ষিকীতে রবওয়াতেও অনুষ্ঠান হয়েছে। কিন্তু তাদের অনেকের মধ্যে স্বীকৃতির জন্য ব্যাকুল আবেদনও রয়েছে।

সূত্র: বিবিসি




আরও পড়ুন



প্রধান সম্পাদকঃ
ড. মো: ইদ্রিস খান

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

সিয়াম এন্ড সিফাত লিমিটেড
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close