* আজান ও ইক্বামতের উত্তরে রয়েছে যেসব ফায়দা           * এবার ভিন্ন লুকে নতুন খবর দিলেন তাহসান           * ছেলের সঙ্গে মালাইকার ‘সেক্সি’ সেলফি, শুরু তুমুল সমালোচনা           * প্লাস্টিকের বোতল জমিয়ে বানালেন নান্দনিক বাড়ি           * খালাস বন্ধ, পেঁয়াজের দাম কেজিতে ৩০ টাকা বৃদ্ধি!            * স্বামীকে দাফন করে ফেরার পথে মারা গেল স্ত্রী           * ৭ দিনে কোটিপতি হওয়ার ৭ উপায়           * কাশ্মীরে ভারতীয় সেনারা যৌন নির্যাতন চালাচ্ছে, ইমরানকে চিঠি গিলালির           *  সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরছেন সেই সুমি            *  বাবরি মসজিদের রায় দিল যৌন কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত বিচারপতি!            * যে আশঙ্কায় কাঁপছেন সারা আলি!           * রাইফেল হাতে বিয়ের মঞ্চে নবদম্পতি            * রোগী রেখে পালানোর সময় ডাক্তারকে গণধোলাই            * আ.লীগের ডিএনএ টেস্ট করা দরকার: আলাল           * প্রধান শিক্ষকের বেতন ১১ গ্রেডে, সহকারি শিক্ষকের ১৩ গ্রেডে           * চট্টগ্রামে যুবলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ : আহত ১২           * নূর হোসেনকে কটাক্ষকারীদের ক্ষমা নেই: কাদের           *  কোলে চড়ে আদালতে সাত্তার : অভিযোগ গরু চুরি           * জাবি দাবা ক্লাবের নতুন কমিটি গঠন            *  বিটিএফ স্কুলের ৫ম শ্রেণির সমাপনী শিক্ষার্থীদের বিদায়ী সংবর্ধনা           
* চালকের ভুলেই ভয়াবহ ট্রেন            * আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ে নেই সাকিব, ঢুকলেন নাঈম           * বিএনপি ছেড়ে যাবেন এমন নেতাদের তালিকায় বহুজন :তথ্যমন্ত্রী           

না খেয়ে কোন রোহিঙ্গা মারা যায়নি: ত্রাণমন্ত্রী

চাঁদপুর প্রতিনিধি | শনিবার, নভেম্বর ১১, ২০১৭

না খেয়ে কোন রোহিঙ্গা মারা যায়নি: ত্রাণমন্ত্রী
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রম বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানবিক দিক বিবেচনা করে রোহিঙ্গাদের আসার জন্য দরজা খুলে দিয়েছেন। বাংলাদেশে আসা ১১ লাখ রোহিঙ্গাদের মধ্যে কেউ গত আড়াই মাসে না খেয়ে থাকেনি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তাদের  সব ব্যবস্থা করা হয়েছে। কেউ বলতে পারবে না- না খেয়ে কিংবা বিনা চিকিৎসায় কোন রোহিঙ্গা মারা গেছে। এ কৃতিত্ব প্রধানমন্ত্রীর। কারণ প্রধানমন্ত্রী জাতিসঙ্গে বক্তব্যে বলেছেন- আমি যদি খেয়ে থাকি, তাহলে আমার দেশে আসা রোহিঙ্গারাও খেয়ে থাকবেন। একজন রোহিঙ্গাও অভুক্ত থাকবেন না।

শনিবার দুপুরে শহরের হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে চাঁদপুর জেলা কমিউনিটি পুলিশিং আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, আরেকজন আগুন সন্ত্রাসী। তিনি চিকিৎসার জন্য লন্ডনে গেলেন, সেখানে কি ষড়যন্ত্র করেছেন- তিনিই জানেন। তিনি এসে রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়াবেন এতে কারো কোন আপত্তি নেই। কিন্তু তিনি ৪০ মিনিটের রাস্তা ১ সপ্তাহ সময় নিয়ে রোহিঙ্গাদের কাছে গেলেন। পথে পথে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলেন, নিজের গাড়ি নিজেই ভাঙলেন, সাংবাদিকদের গাড়ি ভাঙলেন, মারধর করলেন। কিন্তু উল্টো বলছেন- শেখ হাসিনার কর্মীরা নাকি এগুলো করেছেন।

মায়া চৌধুরী বলেন, আমরা নৌকার পাগল- যেখানে যাব, নৌকার কথা বলব। কারণ দেশের মানুষের একমাত্র ভরসাস্থল হচ্ছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাকে আবারও রাষ্ট্র ক্ষমতায় রাখলে সকলেই নিরাপদ থাকবে।

কমিউনিটি পুলিশিং সদস্যদের উদ্দেশ্যে বলেন, চাঁদপুর থেকেই কমিউনিটি পুলিশিং-এর যাত্রা। প্রাথমিকভাবে চাঁদপুরে কমিউনিটি পুলিশিং-এর ২শ সদস্য থাকলেও এখন ২২ হাজার সদস্য। আপনারা কাজ করলে এখন মানুষ ঘরের দরজা খুলে রাতে ঘুমাতে পারবে। আপনারা জানেন কারা মাদকের সাথে জড়িত, কার মেয়েকে বাল্যবিয়ে দেয়া হচ্ছে এবং কোন ছেলে স্কুলে না গিয়ে রাস্তায় মেয়েদের বিরক্ত করছে। তাদের আপনারা দেশের নাগরিক হিসেবে দায়িত্ব পালন করলে পুলিশ সহজেই অপরাধ দমন করতে পারবে। আর যদি আপনারা এসব জেনেও কাজ না করেন, তাহলে কমিউনিটি পুলিশিং-এর লক্ষ্য উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন হবে না।

অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচকের বক্তব্য রাখেন পুলিশের মহাপুলিশ পরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক।

তিনি বক্তব্যে বলেন, কমিউনিটি পুলিশি হচ্ছে সমাজের যত কমিউনিটি আছে- তাদের সাথে বসে, কথা বলে তাদের সমস্যা চিহ্নিত করে সমাধান করা। আর এ জন্য আমরা চিন্তা করেছি, জনগণের সাথে সাধারণ মানুষের দূরত্ব কমিয়ে আনার এটি একটি মাধ্যম। আমরা কমিউনিটি পুলিশিংকে বলে দিয়েছি, আপনারা থানার ওসিসহ সকল কর্মকর্তার বিষয়ে কোন অভিযোগ থাকলে ওপেন হাউজ ডে সরাসরি অভিযোগ করবেন। সমাজের সকল কমিউনিটির মধ্যে সু-সম্পর্ক থাকলে কোন অপরাধী অপরাধ করার সাহস পায় না।

পুলিশ প্রধান আরো বলেন, গুলশানের ঘটনার পর। বাংলাদেশের পুলিশের চৌকস কর্মকর্তারা জঙ্গিদের আস্তানা খুঁজে বের করতে সক্ষম হয়েছে। অনেকগুলো অভিযানের মাধ্যমে তাদের আইনের আওতায় আনা হয়েছে। এ পর্যন্ত অনেক জঙ্গি গ্রেপ্তার হয়েছে। আমরা তাদের জীবিত উদ্ধার করার চেষ্টা করি। কিন্তু তারা আমাদের উপর আক্রমণ করলে বাধ্য হয়ে অভিযান করতে হয়। বিশ্বের অন্যান্য দেশে জঙ্গিদের সরাসরি মারা হয়। কিন্তু আমাদের সফল অভিযানকে সারাবিশ্ব স্বাগত জানিয়েছে এবং প্রশংসা করেছে। কিন্তু একটি মহল সব সময় আমাদের এ জঙ্গিবাদী অভিযানকে ভিন্নভাবে ব্যাখ্যা দেয়ার চেষ্টা করছেন। তারা বলছে, আমরা জঙ্গিদের মেরে ফেলছি। তাদের তথ্য দিচ্ছি না। এভাবে তারা পুলিশের কাজকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। ওই মহল সব সময় পুলিশের মনবল দুর্বল করার জন্য এবং সরকারকে পতনের জন্য এ ধরনের চেষ্টা চালাচ্ছেন। কিন্তু তারা কখনোই সফল হবেন না।

চাঁদপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহারের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন- চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি এস.এম. মনির উজ-জামান, পুলিশ সদর দপ্তরের ডিআইজি (প্রশাসন) চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন।

আরো বক্তব্য দেন- আওয়ামী লীগের  ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, চাঁদপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ওসমান গণি পাটওয়ারী, চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. মাসুদ হোসেন প্রমুখ।

সমাবেশ পূর্বে শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি শহর প্রদক্ষিণ করে সমাবেশস্থলে এসে শেষ হয়।




আরও পড়ুন



২. সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ মোঃ খায়রুল আলম রফিক
৩. নির্বাহী সম্পাদক ঃ প্রদীপ কুমার বিশ্বাস
৪. প্রধান প্রতিবেদক ঃ হাসান আল মামুন
প্রধান কার্যালয় ঃ ২৩৬/ এ, রুমা ভবন ,(৭ম তলা ), মতিঝিল ঢাকা , বাংলাদেশ । ফোন ঃ ০১৭৭৯০৯১২৫০
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close