* জোড়া মাথার রাবেয়া-রুকাইয়ার চিকিৎসা শুরু           * সশস্ত্র বাহিনীর সঙ্গে আমার পারিবারিক সম্পর্ক : প্রধানমন্ত্রী           * তৃপ্তির ঘুমের জন্যে কিছু করণীয়           * আইএসের পতন ঘোষণা করলেন হাসান রুহানি           * পেঁয়াজের দাম আবার বাড়ল           * দেশের স্বার্থ রক্ষা করেই শ্রম আইন সংশোধন: বাণিজ্যমন্ত্রী           * ত্রিশালে তিন সাংবাদিক আটক           * শিখা অনির্বাণে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা           * কম্বলের ভেতর মিলল সাত কেজি স্বর্ণ           *  সালমান বিবাহিত, আছে সন্তানও           * পিরোজপুরে গাড়িচাপায় প্রাণ গেল শিশু ও যুবকের           * লক্ষ্মীপুরে নিখোঁজের চার দিন পর বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার           * দীপন হত্যা মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল হয়নি           * নারী দেখলেই আমার কামনা জেগে উঠে           * টস হেরে ব্যাটিংয়ে রাজশাহী           * পারিবারিক কলহের নির্মম শিকার আট মাসের শিশু           * কিশোরগঞ্জ-৬: আ.লীগে পাপন বিএনপিতে শরীফ           *  এসএসসির ফরম পূরণে বাড়তি টাকা আদায়ে এবারও ‘জবরদস্তি           * শিগগিরই আসছে স্যামসাংয়ের বাঁকানো ডিসপ্লের ফোন           * নতুন করে নির্বাচনের পক্ষে মের্কেল          
* পরানগঞ্জে আপদ হয়ে গেল ভাগ্নের কাছে           *  ত্রিশাল নিউজের তিন সাংবাদিক আটক           *  ভালুকায় অস্ত্রসহ সন্দেহভাজন জঙ্গি আটক          

প্রশাসনের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ ত্রিশালে চাল নিয়ে চালবাজি

স্টাফ রিপোর্টার | মঙ্গলবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৭
প্রশাসনের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ  
ত্রিশালে চাল নিয়ে চালবাজি
ত্রিশালে ২৮ বস্তা ভিজিএফ চাউল আত্মসাৎ করে বিক্রির পরবর্তী ঘটনা নিয়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে সংশ্লিষ্ট এলাকায়। স্থানীয়বাসী এবং সুশীল সমাজ  এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।  প্রকাশ, দীর্ঘদিন বিএনপির রাজনীতিতে সম্পৃক্ত ছিলো ত্রিশাল ১২ নং আমিরাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান  আনিসুর রহমান ভুট্রো। বর্তমানে ধনাঢ্য ও নব্য হাইব্রীড আওয়ামীলীগ নেতা হিসেবে  তার নাম সবার্গ্রে থাকে।  মাত্র ছয়মাস গত হয়েছে আনিসুর রহমান ভুট্রো স্থানীয় আওয়ামীলীগে যোগ দিয়ে একজন প্রভাবশালী নেতা হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলেছে।  গত ১২ নভেম্বর ত্রিশালে আসা ভিজিএফ চাল থেকে ২৮ বস্তা চাল কৌশলে আত্মসাৎ করে চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান ভুট্রো। পরে  চেয়ারম্যান ভুট্রো ২৮ বস্তা চাল বিক্রি করে দেয় স্থানীয় বীররামপুর বাসিন্দা ফখরুল ইসলামের কাছে। এই সংবাদ প্রকাশ্য হয়ে পড়লে পুরো ব্যাপারটি ত্রিশাল উপজেলা নিবার্হী অফিসার আবুজাফর রিপনের গোচরীভূক্ত হয়। নিবার্হী অফিসার আবুজাফর রিপন একটি ভ্রাম্যমান আদালতের টিম নিয়ে ঘটনাস্থলে যান এবং সরকারী ভিজিএফ চাল বিক্রির ঘটনার সত্যতা খুঁজে পান। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে চাল বিক্রির মূল হোতা চেয়ারম্যান ভুট্রোকে ছেড়ে দেন। সেই সাথে ফখরুল ইসলামকে আটক করে ২৮ বস্তা চাল  ও ইউএন রিপন নিজের হেফাজতে নিয়ে যান। কিন্তু ইউএন ও  আবুজাফর রিপন এ ব্যাপারে কোন মামলা করেননি। বরং বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা না করে ভ্রাম্যমান আদালতে ৩ হাজার টাকা মাত্র জরিমানা করে ফখরুল ইসলামকে ছেড়ে দেন। চাল পাচার ও বিক্রির এই জঘন্য কেলেংকারী ঘটনায় চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান ভুট্রোর বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা  নেয়া হয়নি এ নিয়ে স্থানীয় বাসীর মাঝে চাপা ক্ষোভ ও গুঞ্জন উঠেছে। একটি মহল সরাসরি গনমাধ্যমকে দায়ী করে জানান, স্থানীয় গনমাধ্যম এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশে নির্লিপ্ত থেকেছে এবং ইউএনওকে প্রভাবিত করেছে যাতে এই ঘটনায় কোন মামলা না হয়। ফলে সংবাদটি প্রচারে আসেনি। ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে চাল আটক করে ছেড়ে দেয়া ঘটনায় ত্রিশালে চাঞ্চাল্যের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় বাসী ক্ষোভের সাথে এই প্রতিবেদককে জানান,স্থানীয় গনমাধ্যমের সহযোগিতা নিয়ে চেয়ারম্যান ভুট্রো নেপথ্যে ঘটনাটি ধামাচাপা চেষ্টা করেছে যাতে চাল নিয়ে চালবাজির এই ঘটনাটি  গনমাধ্যমে প্রকাশ না হয়। একটি সূত্র জানায়,  এই ন্যাককার জনক ঘটনায় চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান ভুট্রো উপজেলার নিবার্হী অফিসার আবুজাফর রিপনকে ফাসাঁনোর চেষ্টা চালিয়েছেন, ভ্রাম্যমান আদালতকে হালকা করে দিয়েছে। অন্যদিকে স্থানীয়বাসীকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করেছেন। তার বিচার হওয়া উচিৎ।  এদিকে ইউএনও আবুজাফর রিপনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এ ব্যাপারে ত্রিশাল মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।  স্থানীয় বাসী ২৮ বস্তা সরকারি চাল আত্মসাতের চেষ্টাকে রাষ্ট্র ও সমাজের জন্য ক্ষতিকর  উল্লেখ  করে বলেন, মামলাটি হওয়া জরুরি ছিল বিশেষ ক্ষমতা ও আইনের বিচারিক আদালতে কিন্তু কোন অজ্ঞাত কারণে মাত্র ৩ হাজার টাকার বিনিময়ে ঘটনার সামারী হয়ে গেল এ ব্যাপারে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদকের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন বলে ত্রিশালে সাধারণ জনগন মনে করছেন । অন্যথায় চেয়ারম্যান ভুট্রো সরকারী মালামাল চুরিতে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠবে। সেই সাথে প্রশাসনকেও প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলবে। এদিকে চেয়ারম্যান আনিসুল হক জানান, আমি জানি না, এসব কিছু জানি না, পরে আমি শুনেছি ইউনু স্যার জানান, আমি কেন চাল চুরি করবো বরং আমার হাত থেকে ৮ হাজার টাকা লছ দিয়েছি , যে ছেলে চাল কিনেছে সে নাকি অন্যদের কাছ থেকে কিনেছে তিনি র্আও জানান, আমি জেলা কৃষকলীগের সম্মানীত সদস্য, আমার বিরুদ্ধে ২০/২৫ টি মামলা হতেই পারে কারন আমিতো রাজনীতি করি ।






আরও পড়ুন



প্রধান সম্পাদকঃ
ড. মো: ইদ্রিস খান

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

সিয়াম এন্ড সিফাত লিমিটেড
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close