অপরাধ সংবাদ
* সিমলার ১০ লাখ টাকার উট           * খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করলেন পরিবারের সদস্যরা           * হালুয়াঘাটে মোবাইলে গেইম খেলাকে কেন্দ্র করে কলেজ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা           * নড়াইলের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির স্ত্রী’র মৃত্যুবার্ষিকী পালিত           * ঈদে জয়দেবপুর রেল স্টেশনে যাত্রীসেবা নিশ্চিত করার ব্যাপারে সভা            *  ঈদুল আজহার জন্য প্রস্তুত শোলাকিয়া : পরিদর্শনে প্রশাসন           * রাতে মৌসুম শুরু করবে মেসির বার্সেলোনা           *  প্রধানমন্ত্রীর শপথ নিলেন ইমরান           * ঢাকা-টাঙ্গাইল ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ধীরে চলছে গাড়ি           * কর্মক্ষেত্রে নারীরা কেন পরকীয়ায় জড়ান?            * সৎ কন্যাকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে পিতা গ্রেপ্তার           * চট্টগ্রামে ৩০ হাজার ইয়াবাসহ আটক           *  সন্তানদের স্বাভাবিক জীবন চান কাজল           *  ৬ জিবি র‌্যামে নতুন ফোন আনলো স্যামসাং           * হাসপাতালে সেবা না পেয়ে ভ্যানে সন্তান প্রসব           *  শ্রীপুরে দুই ট্রাকের সংঘর্ষে গরু ব্যবসায়ী নিহত           *  ঘরমুখো মানুষের স্রোত কমলাপুরে           * বিশ্ব অর্থনীতির নেতৃত্ব হারাচ্ছে মার্কিন ডলার?           *  প্রীতি ম্যাচের জন্য ব্রাজিল স্কোয়াড           * ময়মনসিংহে জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট          
* খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করলেন পরিবারের সদস্যরা           * সাংবাদিক মহলে নিন্দা, প্রতিবাদ কর্মসূচীর ঘোষনা ময়মনসিংহ প্রতিদিন সম্পাদককে জড়িয়ে মিথ্যা অভিযোগে মামলা           * ছিদ্র ফেরিতে যানবাহন পারাপার, ডুবির আশঙ্কা          

হারিয়ে যাচ্ছে প্রাচীন অতিহ্যবাহী ঢেঁকির ঠঁক ঠঁক শব্দ

ওমর ফারুক সুমন,হালুয়াঘাটঃ | মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৭
হারিয়ে যাচ্ছে প্রাচীন অতিহ্যবাহী ঢেঁকির ঠঁক ঠঁক শব্দ

এমন এক সময় ছিল যখন ঢেঁকি ছিলো গ্রাম বাংলার প্রতিটি কৃষকের প্রাচীন ঐতিহ্য। প্রতিটি ঘরে ছিলো ঢেঁকি। সে সময়টিতে  ধান থেকে চাল ভাঙ্গার কাজে ঢেঁকি ছাড়া অন্য  কোন বিকল্প ব্যাবস্থা ছিলোনা। ঢেঁকিই ছিলো ধান ভাঙ্গা, চাল ভাঙ্গা, ডাল ভাঙ্গানো, পিঠার গুড়া করার একমাত্র অবলম্বন।

হালুয়াঘাট সহ ময়মনসিংহের ধোবাউড়া, ফুলপুর, তারাকান্দা, গফরগাঁও, ত্রিশাল, ইশ্বরগঞ্জ, ফুলবাড়িয়া সহ বিভিন্ন উপজেলায় পরিচিত যন্ত্র ছিলো ঢেঁকি। কালের বিবর্তনে  চিরচেনা এই ঢেঁকি নামক যন্ত্রটি আজ  বিলুপ্তির পথে।  দুই দশক আগেও যে ঢেঁকি  চাল তৈরীর একমাত্র মাধ্যম ছিল সেই ঢেঁকি নামক চিরচেনা জিনিসটি  কালের বিবর্তনে আজ তেমন চোখে না পড়লেও কিছু কিছু গৃহস্থের ঘরে আজও ঐতিহ্য হিসেবে শোভা পাচ্ছে। ১১ ডিসেম্বর সোমবার হালুয়াঘাট উপজেলার ২ নং জুগলী ইউনিয়নের জিগাতলা গ্রামে নুরুল ইসলামের (৬০) এর বাড়িতে ঢেঁকির দেখা মেলে। নুরুল ইসলামের পুত্রবধু আমেনা তার শাশুড়িকে সঙ্গে নিয়ে পিঠার গুঁড়া তৈরিতে ব্যস্ত। ঢেঁকি কাঠ দিয়ে তৈরী। এটা তৈরীর পর পিছনে একটি ছিদ্র করে তার মধ্যে একটি শলাকা জাতীয় কাঠ ঢুকানো হয়।

যার নাম ‘আগশালী’ বলে এবং সামনের দিক উপর নিচ করে ছিদ্র করে একটি কাঠ খন্ড ঢুকানো হয়  এর নাম ‘মোহনা’ বলে। দুটি কাঠ খন্ড মাটিতে পুতা হয় আগশালী রাখার জন্য যার নাম ‘পোয়া’ এবং মোহনা যে জায়গায় রাখা হয় সেখানে একটি চাকা আকৃতির কাঠ মাটির নিচে পুতে রাখা হয় যার নাম ‘গড়’ বলা হয়। এই গড় বেশীর ভাগই গাছের গুড়ি দিয়ে তৈরী করা হয়। আর এই গড়ে ধান রেখে ঢেঁকির পিছনে পা দিয়ে চাপ দিলে ধান ভানা শুরু হয় ।

এই ঢেঁকি দিয়ে শুধু যে ধান ভানা হয় তা নয়, শীতকালে কুমড়া দিয়ে বড়ি তৈরী, গম দিয়ে আটা তৈরী, আলো চাউল দিয়ে গুড়া তৈরী ইত্যাদি কাজে ব্যবহৃত হয়। একসময় ঢেঁকির ঠক ঠক শব্দে ঘুম ভাঙ্গত শিশুদের। কিন্তু আজ তা আর চোখেই পড়ে না। হাতে গোনা কিছু কৃষকের বাড়ীতে ঢেঁকি চোখে পড়লেও তার কোন ব্যবহার নেই। এমন এক সময় আসবে, গ্রাম বাংলার কৃষদের বাড়ীতে মোটেও আর ঢেঁকি দেখা যাবে না এবং ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে এই ঢেঁকি শুধু কাল্পনিক জগতের এক বস্তু হয়ে থাকবে।

হালুয়াঘাট উপজেলার আকনপাড়া গ্রামের বাবুল দেবনাথ বলেন, তাদের গ্রামের বাড়িতে একসময় ঢেঁকি ছিলো। এখন আর তার ব্যাবহার নেই বলে তিনি জানান। ২ নং জুগলি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কামরুল হাসান জানান, দুই দশক পুর্বে প্রতিটি ঘরে ঘরে ঢেঁকি দেখা যেত। কিন্তু বর্তমানে পুরো এলাকা ঘুরলে দু’একটি পাওয়া যাইতে পারে। এখনো কেউ কেউ পিঠার গুড়া করার জন্যে সখ করে ঢেঁকি ব্যাবহার করে থাকে বলে তিনি জানান।





আরও পড়ুন



প্রধান সম্পাদকঃ
ড. মো: ইদ্রিস খান

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

সিয়াম এন্ড সিফাত লিমিটেড
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close