* জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের সংস্কার চাইলেন প্রধানমন্ত্রী           * ত্রিশালে যুবলীগ নেতাকে কুপানোর দায়ে মামলায় আসামী ৩০, গ্রেফতার ৯           *  ময়মনসিংহে দুই সাংবাদিকের নামে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা           * ‘পাকিস্তানের বিশ্বাস নেই, যেদিন খেলে কাউকে পাত্তা দেয় না           * কেউ খোঁজ রাখেনি মুক্তিযোদ্ধাদের ‘মা’ ইছিমন বেওয়া'র           * এক মাছের পেটে মিলল ৬১৪ পিস ইয়াবা            * মোদির জন্য নোবেল!            * ৫ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢোকার অপেক্ষায় রয়েছে           * শিক্ষায় বিনিয়োগের আহ্বান শেখ হাসিনার            * ডাক্তারদের সেবার মনোভাব কম: স্বাস্থ্যমন্ত্রী           * ফুলপুরে জঙ্গীবাদ বিরোধী মা সমাবেশ অনুষ্টিত           * দুই মণ গাঁজাসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার            * নামাযে অজু নিয়ে সন্দেহ হলে কি করবেন?           * ৭-২৮ অক্টোবর ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ           * মদ না খেয়েও মাতাল যারা!           * মোদির দলের হয়ে লড়বেন অক্ষয়-কঙ্গনা-সুনিল           * পাকিস্তানকে সবক শেখাতে চান ভারতের সেনাপ্রধান           * পৃথিবীকে বাংলাদেশ থেকে শিখতে বলল বিশ্বব্যাংক           * নগ্ন হয়ে ঘর পরিষ্কার করে তার মাসিক আয় ৪ লাখ টাকা            * প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে সন্তানকে হত্যা করলো মা           
* জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের সংস্কার চাইলেন প্রধানমন্ত্রী           * ‘পাকিস্তানের বিশ্বাস নেই, যেদিন খেলে কাউকে পাত্তা দেয় না           * ত্রিশালে দাখিল মাদ্রাসায় অভিভাবক সমাবেশ           

কাশ্মির কন্যাকে গণধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় উত্তাল ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | শুক্রবার, এপ্রিল ১৩, ২০১৮
কাশ্মির কন্যাকে গণধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় উত্তাল ভারত
জানুয়ারি মাসের ঘটনা। ভারতের কাশ্মির উপত্যকার পাহাড় পেরিয়ে নিজের ঘোড়াটাকে নিয়ে মাইল খানেক দূরের একটা ঝিলে গিয়েছিল আট বছরের আসিফা বানু। আর খোঁজ মেলেনি। এক সপ্তাহ পরে তার গ্রাম থেকে বেশ কিছুটা দূরে আসিফার দেহ মেলে।

এ ঘটনা নিয়ে এত দিন বিক্ষোভের আঁচ সেভাবে গোটা দেশে পৌঁছায়নি। বৃহস্পতিবার ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভি কে সিং টুইট করেন, সিফাকে রক্ষা করতে ব্যর্থ হলাম। কিন্তু বিচার ওকে পাইয়ে দিতেই হবে।

বিজেপি সরকারের পক্ষ থেকে এই প্রথম কেউ আসিফাকে গণধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় মুখ খুললেন। বরং ঘটনায় অভিযুক্তদের পক্ষ নিয়ে সরব হতে দেখা গিয়েছে বিজেপির সমর্থনপ্রাপ্ত ‘হিন্দু একতা মঞ্চ’কে। গত মাসেই আর এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জিতেন্দ্র সিংহ (তিনি আবার সংসদে কাঠুয়ারই প্রতিনিধি) ধর্ষণে অভিযুক্তের পাশে দাঁড়িয়ে বলেছিলেন, ‘যারা অপরাধ করেনি, তাদের বিচার মেলা উচিত।’

এ দিন ভি কে সিং-এর পরপরই টুইট করেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। তিনি লিখেছেন, ‘একজন অপরাধীকে কীভাবে কেউ আড়াল করতে পারে? একটি শিশুর সঙ্গে যে নৃশংস অপরাধ হয়েছে, তার মধ্যেও যদি আমরা রাজনীতি টেনে আনি, তা হলে আমাদের কী অবস্থা ভাবুন!’

নারী ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কেন্দ্রীয়মন্ত্রী মানেকা গান্ধী শিশু ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসি দেয়ার প্রস্তাব করেছেন।

শুক্রবার এক ভিডিও বার্তায় বলেছেন, শিশুদের যৌন সহিংসতা থেকে রক্ষা করতে পকসো আইনে পরিবর্তন আনা হচ্ছে। এই কারণে আগামী সোমবার সংসদে একটি নোট উত্থাপন করা হবে।

তিনি বলেন, 'কাঠুয়ার এই ঘটনা এবং সাম্প্রতিক শিশু ধর্ষণের ঘটনায় আমি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন এবং ক্ষুব্ধ। ১২ বছরের কম বয়সী শিশুদের ওপর যৌন নির্যাতন চালালে সর্বোচ্চ মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে আমি এবং আমার মন্ত্রণালয় পকসো আইনে সংশোধনী আনার প্রস্তাব করছি।'

কাশ্মিরের মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি আশ্বাস দিয়েছেন, ফাস্ট ট্র্যাক কোর্টে বিচার হচ্ছে। সুবিচার হবেই।

তদন্তে জানা গিয়েছে, স্থানীয় একটি মন্দিরে বেশ কয়েক দিন ধরে লুকিয়ে রাখা হয়েছিল আসিফাকে। ঘুমের ওষুধ দিয়ে আচ্ছন্ন করে রাখা হয়েছিল। চার্জশিটে লেখা হয়েছে, ‘দিনের পর দিন ধরে ধর্ষণ করা হয় আসিফাকে। অত্যাচার করা হয়। আর শেষে খুন করা হয়।’ শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছিল আসিফাকে। মাথায় পাথর দিয়ে দু’বার আঘাতের চিহ্নও মিলেছিল ময়না তদন্তে।

চার্জশিটে বলা হয়েছে— সুরেন্দ্র বর্মা, আনন্দ দত্ত, তিলক রাজ ও খাজুরিয়া নামে চার পুলিশ কর্মকর্তাকে নিয়ে গোটা ষড়যন্ত্রটি করেছিল সঞ্জি রাম নামে এক ব্যক্তি। তদন্তে জানা গিয়েছে, খাজুরিয়াসহ ওই পুলিশ কর্মকর্তারাই আসিফার পরিবারকে নিয়ে তার দেহ খুঁজতে বেরিয়েছিল। এমনকি আসিফার মা-বাবা যখন থানায় অভিযোগ জানাতে এসেছিল, এদেরই কেউ এফআইআর দায়ের করে। প্রমাণ লোপাট করতে আসিফার রক্ত আর কাদামাখা জামা ধুয়ে তার পর ময়না তদন্তে পাঠিয়েছিল এরাই।

কাশ্মিরের ভবঘুরে বকারওয়াল সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত আসিফার পরিবার। এরা মূলত মেষপালকের কাজ করে দিন গুজরান করেন।

বিক্ষুব্ধদের একাংশের দাবি, সংখ্যালঘু এই সম্প্রদায়কে উপত্যকা ছাড়া করতেই এমন নৃশংস কাজ করা হয়েছিল। কাঠুয়া কাণ্ডে বিজেপি যোগ নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। সম্প্রতি অভিযুক্তদের সমর্থনে মিছিল বেরোয়। তাতে মেহবুবার মন্ত্রিসভার দুই বিজেপি সদস্যকেও দেখা গিয়েছিল। মেহবুবা মুফতি অবশ্য বকারওয়াল সম্প্রদায়ের দাবি মেনে সিবিআইয়ের হাতে তদন্ত ভার তুলে দিয়েছেন।




আরও পড়ুন



প্রধান সম্পাদকঃ
ড. মো: ইদ্রিস খান

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

সিয়াম এন্ড সিফাত লিমিটেড
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close