*  আ.লীগে যোগ দেয়ার অপেক্ষায় বিএনপির অনেকে: কাদের           *  ইন্টারপুলের নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত           *  উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী           * ইসলামপুরে ট্রাকচাপায় চা দোকানির মৃত্যু           *  কোম্পানীগঞ্জে পাথর ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা           * বেচে দেয়া শিশুকে ফিরে পেলেন মা           *  নরসিংদীর সংঘর্ষের ঘটনায় তিন হত্যা মামলা           *  নোয়াখালীতে যুবদলের তিন নেতা গ্রেপ্তার           *  কক্সবাজারে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক বিক্রেতা নিহত           *  মনোহরদীতে গৃহবধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার           * ইসলামপুরে ট্রাক চাপায় চা ব্যবসায়ীর মৃত্যু           * বেনাপোল সীমান্ত থেকে নাইজেরিয়ান নাগরিক ও হুন্ডি ব্যাবসায়ী আটক           *  কেন্দুয়ায় গ্রাম পুলিশ সদস্যদের ওসি যেখানেই বিশৃঙ্খলা সেখানেই পুলিশ থাকবে            * ঝিনাইগাতীতে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ            * গফরগাঁও ২২০ বিএনপি নেতাকর্মীর আগাম জামিন           * প্রধানমন্ত্রীকন্যা পুতুলকে মন্ত্রিসভার অভিনন্দন           * মানুষ বলবে, শামীম ওসমান পাগল ছিল            * নতুন খবর দিলেন অপু বিশ্বাস            * যুক্তরাষ্ট্রে হাসপাতালে বন্দুকধারীর হামলা: নিহত ৪           * বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার পরিসংখ্যান          
* ইসলামপুরে ট্রাকচাপায় চা দোকানির মৃত্যু           *  কোম্পানীগঞ্জে পাথর ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা           *  নরসিংদীর সংঘর্ষের ঘটনায় তিন হত্যা মামলা          

উত্তরবঙ্গের যাত্রীদের ভয় ঢাকা থেকে টাঙ্গাইল

স্টাফ রিপোটাস | সোমবার, মে ২৮, ২০১৮
উত্তরবঙ্গের যাত্রীদের ভয় ঢাকা থেকে টাঙ্গাইল

আর কয়েক দিন পরই পুরোদমে শুরু হবে ঈদ যাত্রা। কিন্তু তার আগেই দেশের গুরুত্বপূর্ণ একাধিক মহাসড়কে যানজট নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফলে ঈদ যাত্রা শুরু হলে পরিস্থিতির আরো অবনতি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। যানজট নিয়ে উত্তরবঙ্গের যাত্রীদের মূল অভিযোগ ‘বেহাল মহাসড়ক’ নিয়ে। গাড়ি সংকট মোকাবেলা এবং অতিরিক্ত ভাড়া গোনার পর এই বেহাল সড়কের কারণে গন্তব্যে পৌঁছাতে তাদের অতিরিক্ত সময়ও গুনতে হয়। এই অতিরিক্ত সময় কখনো কখনো হয়ে যায় স্বাভাবিকের চেয়ে কয়েক গুণ।

যাত্রী, গাড়ির চালক, ট্রাফিক পুলিশ ও পরিবহন মালিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, উত্তরবঙ্গের যাত্রীদের সবচেয়ে বড় ভয় ঢাকা থেকে টাঙ্গাইল মহাসড়ক পর্যন্ত। কারণ যানজটে অতিরিক্ত যে সময় লাগে তার প্রায় পুরোটাই যায় এ মহাসড়কে। আর এই যানজটের মূল কারণ অপরিকল্পিত সংস্কারকাজ, হাইওয়ে পুলিশের দায়িত্বে অবহেলা, চাঁদাবাজি, মহাসড়কের ওপর হাটবাজার বসানো, অটোভ্যানের নিয়ন্ত্রণহীন চলাচল ও যেখানে-সেখানে গাড়ি থামিয়ে রাখা। ট্রাক থামিয়ে চালক ঘুমিয়ে পড়ায় যানজটের সৃষ্টি হয়—এমন অভিযোগও পাওয়া গেছে।

ঢাকা ও রংপুরের মধ্যে যাতায়াতকারী যাত্রী ও চালকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঢাকা থেকে রংপুর যেতে সাধারণত সাত থেকে আট ঘণ্টা সময় লাগে। কিন্তু বর্তমানে লাগছে প্রায় ১৩ থেকে ১৪ ঘণ্টা। ঈদে এ পরিস্থিতি বহাল থাকলে এক দিনে রংপুর পৌঁছানো যাবে কি না তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন অনেকে।                                                                                                                         রংপুরের বাসটার্মিনালে নামার পর মোস্তাক আহমেদ নামের এক যাত্রী জানান, বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ১১টার দিকে ঢাকা থেকে তাঁর বাস ছাড়ে। আর তিনি রংপুর পৌঁছান পরের দিন (শুক্রবার) দুপুর সোয়া ১২টায়।১৩ ঘণ্টায় ঢাকা থেকে রংপুর আসা এসআর ট্রাভেলসের সুপারভাইজার গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘গাজীপুর থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত চার লেনের কাজ চলায় অনেক সময় রাস্তা ব্লক থাকছে। হাইওয়ে পুলিশ ট্রাক থামিয়ে চাঁদা আদায়কালে পেছনে হাজারো গাড়ির লাইন পড়ে যায়। এ ছাড়া ট্রাকচালকরা কয়েক দিন ধরে গাড়িতে অবস্থান করায় অনেক সময় ঘুমিয়ে যায়। এতেও অনেক সময় যানজট তৈরি হয়।’

ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের বড় দরগাহ হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন চাঁদাবাজির অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘অনেক ট্রাক অনুমোদনের চেয়ে বেশি মাল বহন করে (ওভার লোড)। এসব ট্রাক রাস্তার একপাশে দাঁড় করিয়ে কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করা হয়। প্রয়োজন হলে মামলাও দেওয়া হয়।’

ঢাকা ও রাজশাহীর মধ্যে যাতায়াতকারী যাত্রী ও বাসচালকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঢাকা থেকে রাজশাহী যেতে সাধারণত পাঁচ থেকে ছয় ঘণ্টা সময় লাগে। কিন্তু এখন লাগছে আট থেকে ১০ ঘণ্টা।

বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসে রাজশাহীগামী হানিফ পরিবহনের একটি বাস। পৌঁছায় সকাল ৭টার দিকে। বাসচালকদের দাবি, ভাঙাচোরা রাস্তা আর বঙ্গবন্ধু সেতুর টোল আদায়ে ধীরগতির কারণে রাস্তায় যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। গাড়িও চলছে ধীরগতিতে। ফলে প্রতিটি যানবাহনই দেরি করে গন্তব্যস্থলে পৌঁছাচ্ছে।

চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা হানিফ পরিবহনের যাত্রী সাদেকুল ইসলাম জানান, কুমিল্লা থেকে রাত সাড়ে ১০টায় বাসে উঠেছেন তিনি। রাজশাহীতে সকাল ৯টায় পৌঁছার কথা থাকলেও তাঁদের বাস পৌঁছায় দুপুর সাড়ে ১২টায়।ন্যাশনাল ট্রাভেলসের চালক সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘প্রতিদিনই রাস্তায় যানজট তৈরি হচ্ছে। ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের অন্তত ৪০ কিলোমিটারজুড়ে যানজট থাকছে। চার লেনের কাজের কারণেও বাড়ছে যানজট। এই রাস্তার অধিকাংশ জায়গা খানাখন্দে ভরা।’ঢাকা ও বগুড়ার মধ্যে যাতায়াতকারী যাত্রী ও চালকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঢাকা থেকে বগুড়া পৌঁছাতে সাধারণত পাঁচ থেকে ছয় ঘণ্টা সময় লাগে। কিন্তু বর্তমানে লাগছে ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা।

বগুড়া উপশহরের আজিজুল হক নামের এক ব্যবসায়ী জানান, গত বৃহস্পতিবার তিনি ঢাকা থেকে রওনা হন। বগুড়া পৌঁছাতে সময় লাগে প্রায় ১৩ ঘণ্টা।

জানা গেছে, ওই দিন ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ১৫ থেকে ২৫ কিলোমিটার যানজট ছিল। এর আগের দিন মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজ থেকে বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব প্রান্ত পর্যন্ত প্রায় ৫০ কিলোমিটার যানজট ছিল।সড়কের বেহাল সম্পর্কে জানতে চাইলে বগুড়ার সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুজ্জামান বলেন, তাঁর এলাকার সড়ক সংস্কারে ‘প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। বৃষ্টি শেষ হলে কাজ শুরু হবে। আপাতত ইট ও পাথর দিয়ে সংস্কার করা হয়েছে।’





আরও পড়ুন



সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close