* শীতকালে শুষ্ক ও ফাটা ত্বকের ঘরোয়া সমাধান           *  ইতিহাস গড়ে জিতল বাংলাদেশ           *  দণ্ডিতদের ভোটে আসার পথ আটকাই থাকল           *  গোলাম মাওলা রনির মনোনয়নপত্র বাতিল           * হিরো আলমের প্রার্থিতা বাতিল           *  ইবি অধ্যাপক নূরী আর নেই           * কেন্দুয়ায় চিথোলিয়া গ্রামে বসেছিল রাতব্যাপী লালন সংগীতের আসর           * গাজীপুরে মরুভূমি ফুল এর মানবন্ধন           *  শান্তিচুক্তির ২১ বছর পাহাড়ে থামেনি ভাতৃঘাতী সংঘাত           *  প্রতিপক্ষকে প্রথমবার ফলোঅন করালো বাংলাদেশ           *  ১৫০ সিসির নতুন পালসার আনল বাজাজ           *  গাঁজা সেবনের দায়ে যুবকের জেল           *  সেরা ডিজিটাল ব্যাংকের পুরস্কার পেল সিটি ব্যাংক           * দেশে পৌঁছেছে ‘হংসবলাকা’            * মোদি কেমন হিন্দু, প্রশ্ন রাহুলের            * মিরাজের ঘূর্ণিতে ফলোঅনে উইন্ডিজ           * কাঠবোঝাই ট্রাক চাপায় প্রাণ গেল তিন শ্রমিকের           * নারায়ণগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক বিক্রেতা নিহত           * আলাস্কায় ভয়াবহ ভূমিকম্প, ৬ ঘণ্টায় ৪০ বার কম্পন           * জাতিসংঘের মিশনে বিমান বাহিনীর ২০২ সদস্যের কঙ্গো গমন          
* দেশে পৌঁছেছে ‘হংসবলাকা’            * মোদি কেমন হিন্দু, প্রশ্ন রাহুলের            * মিরাজের ঘূর্ণিতে ফলোঅনে উইন্ডিজ          

সবুজ পতাকা হাতে একজন সাহসী তানজিলা

রাজশাহী প্রতিনিধি: | রবিবার, জুন ১০, ২০১৮
সবুজ পতাকা হাতে একজন সাহসী তানজিলা

নগরীর রেলগেটের ধারে সবুজ পতাকা হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছেন একজন নারী। কাছে গিয়ে জানা গলে তিনি গেটকিপার তানজিলা খাতুন (২৩)। সবুজ পতাকা নাড়িয়ে নিরাপদ সংকেত দিলেন ট্রেন চালককে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী ট্রেনটি নিরাপদে পার হলো।

গতকাল রবিবার কথা হয় গেটকিপার তানজিলার খাতুনের সঙ্গে। তিনি বলেন, তার বাড়ি গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে। এই বছরের ১৬ মে তিনি চাকরি পেয়েছেন গেটকিপার হিসেবে। স্বামী সন্তান নিয়ে রাজশাহী নগরীর ভদ্রা জামালপুর এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন। স্বামী মিজানুর রহমান রেল ভবনের আইন শাখায় এমএলএস পদে কর্মত রয়েছেন। এছাড়া তাঁর মারিয়া বিনতে মিজান নামের চার বছরের সন্তন রয়েছে।

একজন নারী হয়ে কেনো এই পেশায়? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, কাজ তো সবাইকে করতো হয়। একেকজন একেক রকমের কাজ করেন। রেল লাইনের পশে দাঁড়িয়ে কাজ করতে প্রতিবন্ধকতার বিষয়ে তিনি বলেন, কোন সমস্য হয় না। বরং তার আনন্দ লাগে। যে আর পাঁচটা মেয়ে দেখে উৎসাহিত হবে। এর ফলে অনেক নারীরা ঘরের বাইরে বেরিয়ে আসবে। এছাড়া তার স্বামী আরো উৎসাহিত করে এই কাজে।

তিনি বলেন, এই পদে চাকরিতে সমস্যা না হলোও রাতের দিকে সদস্য হয় মেয়ে হিসেবে। অনেক সময় গেট ফেলার পরে মানুষ কথা শোনে না। বার উঠিয়ে বা নিচ দিয়ে পরাপার হয়। মেয়ে বলে গুরুত্ব দেয় না। আমরা তো সাধারণ মানুষের নিরাপত্তার জন্য রেল কর্তৃপক্ষ গেটকিপার দিয়েছে। অনেক সময় মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দিয়ে লাইন পার হয়। এতে অনেক সময় দুর্ঘটনাও ঘটে।

গেটকিপার তানজিলা খাতুন বলেন, মাসে তার ১০ দিন নাইট ডিউটি পরে। রাত ১০টা থেকে সকাল সাতটা পর্যন্ত। রাতে নির্জন সময়ে নারী হিসেবে ডিউটি করাটা অনেক সময় সমস্যা হয়। তাই সহকর্মী বা কর্তৃপক্ষকে জানালেও তারা কোন ব্যবস্থা নেই না। তিনি বাকি সহকর্মীদের বলেছেন দিনের বেলা বেশি ডিউটি করবেন। এতে তার সহকর্মীরা সহায়তা করে না। এর ফলে তাকে রাতেও ডিউটি করতে হয়।

তিনি বলেন, তার চার বছরের শিশু মারিয়াকে নিয়েই তিনি ডিউটি করেন। বাড়িতে কেউ থাকে না। ছোট বাচ্চা একা থাকতে পারবে না। তাই সঙ্গেই রাখি খেলনা দিয়ে। সে গেটকিপারের রুমের মধ্যে খেলে আর আমি বাইরে এসে গেট নামাই। রাস্তা বন্ধ করার জন্য। আমি গর্বিত। আমি নিজে কাজ করি। কারো ওপর নির্ভরশীল নয়।





আরও পড়ুন



সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close