*  এইচএসসি’র ফলাফলে জিপিএ-৫ কমেছে ময়মনসিংহের সেরা ১২ কলেজ থেকে ১,১৩৭জন জিপিএ-৫ পেয়েছে           *  ময়মনসিংহ ডিবি’র পৃথক অভিযানে ৮১ পিস ইয়াবা ও ২৯ গ্রাম সহ গ্রেফতার ০৫           * মিন্নি পাঁচ দিনের রিমান্ডে           *  ইকোপার্ক উন্নয়ন অনিয়মের অভিযোগে কুষ্টিয়ার ডিসিকে শোকজ           * যে কারণে গ্রেফতার হলেন মিন্নি           * বরগুনা স্টাইলে টঙ্গীতে কিশোর খুন মায়ের আর্তনাদে কাঁদলেন র‌্যাব কর্মকর্তারাও            * দিয়াবাড়ির অস্ত্র রহস্য তিন বছর পরও অজানা           *  সততার সঙ্গে কর্মসূচি বাস্তবায়নে ডিসিদের প্রতি নির্দেশ স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর           *  দুদক চেয়ারম্যানের তলবেও হাজির হননি বাছির            *  পাসের দিক দিয়ে ৮ বোর্ডে মেয়েরা এগিয়ে           *  পাসের দিক দিয়ে ৮ বোর্ডে মেয়েরা এগিয়ে           *  ময়মনসিংহে আওয়ামী লীগের বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায়- আমু দলীয় শৃংখলা রক্ষাসহ ঐক্যবদ্ধভাবে সাংগঠনিক শক্তি আরো বৃদ্ধির তাগিদ           * ত্রিশালে বাধাগ্রস্থ উন্নয়ন রাজনৈতিক বিরোধের সুযোগে সরকারি কর্মকর্তাদের দুর্নীতি           * বাংলাদেশ অনলাইন সম্পাদক পরিষদের আহবায়ক কমিটি গঠিত           *  ধান ক্রয়ের তথ্য চাওয়ায় সাংবাদিককে ইউএনও হুমকি           * আলেমদের সহযোগিতায় জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী           * ১৫ নদী বইছে বিপৎসীমার উপরে           * শিশু ধর্ষণ চেষ্টা বাদীর কাছে টাকা নিয়ে ফাঁসছেন এসআই            * এত পরিশ্রম দুর্নীতিতে নষ্ট করবেন না: প্রধানমন্ত্রী           *  কলমাকান্দায় বন্যা পরিস্থিতি আরো অবনতি বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ          
* দিয়াবাড়ির অস্ত্র রহস্য তিন বছর পরও অজানা           * ত্রিশালে বাধাগ্রস্থ উন্নয়ন রাজনৈতিক বিরোধের সুযোগে সরকারি কর্মকর্তাদের দুর্নীতি           * নুসরাতের নিপীড়নের মামলায় অধ্যক্ষ সিরাজের বিরুদ্ধে অভিযোগগ্রহণ          

ভারতীয় ঋণে নতুন বাস ক্রয়ের শর্ত শিথিল!

| শনিবার, জুলাই ৭, ২০১৮
ভারতীয় ঋণে নতুন বাস ক্রয়ের শর্ত শিথিল!

ভারতীয় ঋণের টাকায় বাস বা যানবাহন ক্রয় করতে হবে সে দেশ থেকেই। এজন্য বাংলাদেশ সরকারের চাহিদা অনুসারে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা (ডিপিপি) প্রস্তুত করলেও তা সংশোধন করতে হয়েছে। কেননা মন্ত্রণালয়ের চাহিদার অনুসারে ভারতের কোনো কোম্পানি বাস তৈরি করে না। এজন্য ভারত যে ধরনের বাস প্রস্তত করে সেটাই আনতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। যদিও বাসের দামে কোনো হেরফের হচ্ছে না।

পরিকল্পনা কমিশন সুত্র জানায়, ’বিআরটিসির জন্য দ্বিতল, একতলা এসি/নন এসি বাস সংগ্রহ (১ম সংশোধনী)’ প্রকল্পের পিইসি সভা সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই প্রকল্পের্ মাধ্যমে ভারতীয় লাইন অব ক্রেডিট (এলওসি) ঋণের আওতায় ৬০০টি বাস আনা হবে। এর জন্য মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৮০ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। যার মধ্যে ৪৩৪ কোটি ৩২ লাখ টাকা এলওসি বা ভারতীয় ঋণ।

সূত্র জানায়, বাসগুলো চূড়ান্ত করে ডিপিপি অনুসারে দরপত্রের কাগজপত্র ভারতীয় ঋণ সরবরাহকারী এক্সিম ব্যাংকের কাছে পাঠানো হয়। কিন্তু এতে তারা রাজি হয়নি। পরবর্তীতে প্রস্তুতকৃত ডিপিপির শর্তের মধ্যে ৪৫টিতে আপস করতে হয়েছে বাংলাদেশকে। কেননা ভারতীয় এক্সিম ব্যাংক বলছে, বাংলাদেশের মন্ত্রণালয়ের চাহিদা ও শর্তানুরূপ বাস ভারতের কোনো প্রতিষ্ঠান তৈরি করে না। ফলে এসব ধারার সংশোধন না করলে বাসগুলো সরবরাহের দরপত্রে ভারতীয় প্রতিষ্ঠান অংশ নিতে পারবে না। ফলে দর কষাকষি করে এসব ধারা সংশোধন করতে বাধ্য হয় ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ (ডিটিসিএ)।

প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভার কার্যপত্র থেকে জানা গেছে, সম্প্রতি সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ে সচিব নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রকল্পের কার্যাবিরণী নিয়ে সভা হয়। সভায় ৩০০টি দ্বিতল ও ১০০টি একতলা নন এসি বাসের দরপত্র অনুমোদন পায়। অবশিষ্ট ২০০টি একতলা এসি বাস কেনার লক্ষ্যে দরপত্রের ওপর ভারতীয় এক্সিম ব্যাংক কোনো মতামত বা অনুমোদন দেয়নি। ফলে ২০০টি এসি বাস কেনার বিষয়ে পরবর্তীতে জানানো হবে বলে এতে উল্লেখ করা হয়।

সভায় বলা হয়, একাধিকার প্রকল্পের দরপত্র ভারতীয় এক্সিম ব্যাংকে পাঠানো হলে তা গ্রহণযোগ্য হয়নি। এরপরও ভারতীয় এক্সিম ব্যাংক, ভারতীয় হাইকমিশন, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি), সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ এবং বিআরটিসি প্রতিনিধিদের উপস্থিতি এক বৈঠক হয়।

বৈঠকে ভারতের পক্ষ থেকে বলা হয়, এমনভাবে ডিপিপিপ্রস্তুত করতে হবে যেন ভারতের বাস প্রস্ততুকারী সব প্রতিষ্ঠান এই দরপত্রে অংশ নিতে পারে। সেই প্রেক্ষিতে ডিপিপির ৪০-৪৫টি জায়গায় পরিবর্তন আনা হয়।

ইআরডি সূত্র জানায়, প্রকল্পের শর্তে পরিবর্তন আসলেও দাম অপরিবর্তিত থাকছে। প্রকল্পের আওতায় ৩০০টি দ্বিতল বিশিষ্ট বাস আনা হবে, যার দাম ধরা হয়েছে প্রতিটি ৭২ লাখ টাকা করে। একতলা বিশিষ্ট বাসগুলোর দাম ধরা হয়েছে প্রতিটি ৬৯ লাখ টাকা, আর ১০০টি এসি বাসের দাম পড়বে প্রতিটি ৭০ লাখ টাকা করে। এসব বাসের অর্থনৈতিক আয়ুষ্কাল ১২ বছর হবে বলে জানিয়েছে ভারতীয় বাস সরবরাহকারী কোম্পানি অশোক লেল্যান্ড।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব নজরুল ইসলাম বলেন, ভারতীয় ঋণে আনা বাস ক্রয়ে কিছুটা জটিলতা ছিল, সেগুলো কেটে গেছে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০১৯ সাল নাগাদ ৩০০টি ডাবল ডেকার ও ২০০টি বাস আনা হবে। এগুলো আসলে রাজধানীতে গণপরিবহনের ঘাটতি কমে যাবে। তবে এসি বাসগুলো আসতে আরেকটু সময় লাগতে পারে বলে জানান তিনি।





আরও পড়ুন



১. প্রধান উপদেষ্টা ঃ এড. সাদির হোসেন (হাইকোর্ট আইনজীবি)
২. সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ মোঃ খায়রুল আলম রফিক
৩. নির্বাহী সম্পাদক ঃ প্রদীপ কুমার বিশ্বাস
৪. প্রধান প্রতিবেদক ঃ হাসান আল মামুন
প্রধান কার্যালয় ঃ ২৩৬/ এ, রুমা ভবন ,(৭ম তলা ), মতিঝিল ঢাকা , বাংলাদেশ । ফোন ঃ ০১৭৭৯০৯১২৫০
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close