অপরাধ সংবাদ
* আজ থেকে শুরু হচ্ছে পবিত্র হজ           * রাতে জমজমাট সকালে ফাঁকা, কদর দেশিয় পশুর           * বয়স বাড়লে নারীদের শারীরিক চাহিদাও বাড়ে!            * ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ১৫ কিলোমিটার যানজট           * যৌন হামলা ঠেকাবে অভিনব জ্যাকেট           * পাবনায় বিশ্বাস ভবনে আগুনে, পুড়ল ১০ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান           * ধামরাইয়ে অজ্ঞান পার্টির সাত সদস্য আটক           * বুড়িগঙ্গায় ট্রলার ডুবি: মরে ভেসে উঠলো ২১ গরু           * কেরালার বন্যায় রেড অ্যালার্ট প্রত্যাহার, নিহত ২৪৫           * কোমর ও মাথা ব্যথার চিকিৎসা চলছে নওশাবার           * যুক্তফ্রন্ট-গণফোরামের বৃহত্তর ঐক্য গড়ার সিদ্ধান্ত           * জয়ের কৃতিত্ব খেলোয়াড়দেরই দিচ্ছেন বাংলাদেশ কোচ           * ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানজটের অবসান           * ময়মনসিংহ প্রতিদিনের সম্পাদকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে গফরগাঁও উপজেলা প্রেসক্লাবের মানববন্ধন            * ভান্ডারিয়ায় জমজমাট কোরবানির পশুর হাট            * পূর্বধলায় কোরবানির পশুর হাটে ভেটেরিনারী মেডিকেল টিম            * ফুলপুরে ভিজিএফ চাল পাচারকালে চালসহ ট্রলি আটক           * নব নিযুক্ত পুলিশ সুপারকে ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাবের ফুলেল শুভেচ্ছা           * গাজীপুরের দুম্বা এখন কোরবানির পশুর হাটে           *  তৃতীয় দিনেও ট্রেনে শিডিউল বিপর্যয়          
* কেরালার বন্যায় রেড অ্যালার্ট প্রত্যাহার, নিহত ২৪৫           * কোমর ও মাথা ব্যথার চিকিৎসা চলছে নওশাবার           * যুক্তফ্রন্ট-গণফোরামের বৃহত্তর ঐক্য গড়ার সিদ্ধান্ত          

ষড়যন্ত্রের শিকার অধ্যক্ষ জিয়াউদ্দিন শাকির

নিজস্ব প্রতিবেদক | রবিবার, জুলাই ১৫, ২০১৮


ষড়যন্ত্রের শিকার অধ্যক্ষ জিয়াউদ্দিন শাকির
সার্বিক অর্থেই অধ্যক্ষ জিয়াউদ্দিন শাকির শিক্ষক হিসাবে ময়মনসিংহ অঞ্চলের সবার কাছে ‘দেদীপ্যমান বাতিঘর’। ময়মনসিংহে তার মত গুণী শিক্ষকের আবির্ভাব হয়েছিলো বলেই অগ্রসরমান ঐতিহ্যবাহী মহাকালী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা। শিক্ষানগরী ময়মনসিংহ শিক্ষায় দ্রুত উত্থানের পেছনে অনেক প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষকের মতো অধ্যক্ষ জিয়াউদ্দিন শাকিরের অবদান কে অস্বীকার করবে?

ছাত্র জীবনে তিনি যেমন ছিলেন কৃতী শিক্ষার্থী তেমনি কর্মজীবনে মহাকালি স্কুল এন্ড কলেজে তার অবদান অসামান্য। ময়মনসিংহে তিনি একজন জীবন্ত কিংবদন্তিতুল্য শিক্ষক । অসামান্য মেধাবী ও কৃতী এ ব্যক্তিত্ব আর কেউ নন, তিনি অধ্যক্ষ জিয়াউদ্দিন শাকির । প্রচারবিমুখ এই অধ্যক্ষ আপন মনে সমাজ গঠনের কাজ করে যাচ্ছেন, অত্যন্ত নীরবে, নিঃশব্দে, স্তুতি বা পুরস্কারের কোনো তোয়াক্কা না করেই । জীবনপ্রবাহ সমৃদ্ধ করার জন্য রাষ্ট্র ও সমাজ পরিচালনায় ভূমিকা রাখেন রাজনীতিবিদ ও রাষ্ট্রনায়কেরা।

 ব্যক্তি জীবনের সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য ও চাওয়া-পাওয়া ত্যাগ করে তাদের অনেকেই মানুষের সেবায় জীবন উৎসর্গ করে থাকেন। ময়মনসিংহের গ-িতে অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকিরের মত একজন আদর্শ শিক্ষকই হচ্ছেন আলোর দিশারী,  সমাজ সংগঠক, দিচ্ছেন স্রষ্টাপ্রদত্ত নির্ধারিত দায়িত্ব পালনে অনুপ্রেরণা। তার কলেজের অভিভাবকগণ বলেন,  স্রষ্টার কাছে কায়মনোবাক্যে প্রার্থনা করি, তিনি যেন জিয়াউদ্দিন শাকিরের মত অনুসরণীয় শিক্ষকের মতো এক একজন শিক্ষককে বিভিন্ন সমাজে পাঠান তার সৃষ্টিকে দায়িত্ব পালনে সহায়তার জন্য।

আমরা কি পারি না তার দৃষ্টান্ত অনুসরণ করে প্রত্যেকে কিছু অবদান রাখতে?
কিন্তু দু”খ লাগে তখন, যখন দেখি, ময়মনসিংহে অধ্যক্ষ জিয়াউদ্দিন শাকিরের কর্মগুণকে অনুসরন না করে উল্টো তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে নেমেছে একটি চক্র । দু:খ লাগে কুচক্রী মহলের ষড়যন্ত্রের শিকার হন জিয়াউদ্দিনের মত গুণিজন ।
যার হাত ধরে ময়মনসিংহের হাজার হাজার পরিবার শিক্ষার আলো দেখেছেন আজ তিনিই হয়েছেন চক্রান্তের শিকার। মিথ্যা ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে তাকে হতে হয়েছে ব্যথিত ।
মহাকালি স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা এবং অভিভাবকমহল তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র থেকে সড়ে আসার জন্য আহবান জানান। তা না করলে আন্দোলন কর্মসূচী পালন করারও হুঁশিয়ারী দেন তারা।

তারা বলেন, অধ্যক্ষ জিয়াউদ্দিন শাকিরের হাত ধরেই মহাকালী স্কুল এন্ড কলেজ আলোকিত । এতে ময়মনসিংহবাসী যেমন শিক্ষিত হয় তেমনি কলেজের সুনামও সারা দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে। ফলে শত শত শিক্ষার্থী দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেয়ে কলেজের ভাবমূর্তি উজ্জল করে তুলেছে। কিন্তু কিছু দুুষ্কৃতিকারী তার বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ এনে নিজেদের ব্যক্তিগত স্বার্থ হাছিলের পায়তারা করছে।


প্রসঙ্গত, দীর্ঘদিন ধরেই একটি চক্র অধ্যক্ষ জিয়াউদ্দিন শাকিরের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চালিয়ে আসছে । এব্যাপারে সংবাদও প্রকাশ হয়েছে । সংবাদে বলা হয়  ময়মনসিংহের ঐতিহ্যবাহী মহাকালী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজে শিক্ষার পরিবেশ বিনষ্টের চক্রান্ত মড়িয়া হয়ে উঠেছে একটি চক্র ।

এরই ধারাবাহিকতায় ময়মনসিংহের আলোকিত শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকিরকে অপসারণে গভীর ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে চক্রটি । তাদের এই হীন ষড়যন্ত্র কোন দিনই সফল হবে না বলে মনে করছেন, ময়মনসিংহবাসী ।

মানুষ তার কর্মের জন্যই কালের যাত্রাপথে নিজের পদচিহ্ন রেখে যেতে পারে। কর্মের গুণেই মানুষ হতে পারে মহিমান্বিত। আমার দেখা শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকির একজন কর্মপাগল মানুষ। অল্প সময়ের মধ্যে আপন কর্মগুণে তিনি শিক্ষা পরিমন্ডলে পরিচিতি লাভ করেছেন।

সুবক্তা, সু-শিক্ষক, সুসংগঠক, দক্ষ অধ্যক্ষ হিসেবে তাঁর পরিচয় সর্বজনবিদিত। তাঁর কর্মতৎপরতায় কেবল মহাকালী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ নয়, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেরও এসেছে গতি।

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে এসেছে প্রতিযোগিতা আর অভিভাবকদের প্রাণে জেগেছে আশা-এক কথায় শিক্ষাক্ষেত্রে দেখে দিয়েছে প্রাণচাঞ্চল্য।

 মুক্ত চিন্তার আলোকিত মানুষ অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকির । তিনি ময়মনসিংহের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে তিনি কর্মজীবনে পদার্পণ করেন। ছাত্র জীবনেই তিনি শিক্ষার্থীদের কল্যাণে নিজের জীবন পরিচালিত করেন। লেখালেখির পাশাপাশি বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েন। তিনি ছাত্র রাজনীতির সঙ্গেও জড়িত ছিলেন। তারুণ্যদীপ্ত ছাত্রছাত্রীর মতো তাঁরও পছন্দের সংগঠন ছিল ছাত্র সংগঠন করা।

তিনি কর্মজীবনে প্রবেশ করে রাজনীতির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেন। অক্লান্ত নিরলস কর্মী অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকির কর্মজীবন শুরু করেন শিক্ষকতার মাধ্যমে।

মহাকালী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজে দীর্ঘদিন যাবৎ অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। মহাকালী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ তার স্বপ্নের বাগান, যা তিনি নিজ হাতে পরিচর্যা করে গড়ে তুলেছেন।

অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকির একজন চিন্তাশীল ও ভাবুক মানুষ। তাঁর চিন্তা-চেতনা ও ভাব-ভাবনাকে তিনি বাস্তবে স্থায়ী রূপদান করেছেন মহাকালী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজে ।

 তাঁর চিন্তা এসেছে সমাজ বিশেষ করে শিক্ষা-সংস্কৃতির সম্পর্কে শুভবোধ থেকে। স্বদেশের ইতিহাস-ঐতিহ্য এবং মুক্তিযুদ্ধের গৌরবগাঁথা নিয়েও তিনি চিন্তাশীল মননের পরিচয় দিয়েছেন।

তার সুযোগ্য নেতৃত্বের কারণে মহাকালী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ পরিচালনার ব্যাপারে তাঁর বিশেষ দক্ষতা , শিক্ষা সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট ধ্যান-ধারণা, শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার বেশি নম্বর পাওয়ার উপায় দীর্ঘদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে তাঁর অভিজ্ঞতার ভান্ডার সমৃদ্ধ করেছেন।


কর্মক্ষেত্রে করণীয়-বর্জনীয় সম্পর্কে তাঁর কতকগুলো অভিমত আছে। একজন মানুষের কর্মক্ষেত্রে স্মরণীয় বরণীয় সম্পর্কে তিনি বলেছেন-কর্মকর্তা, সহকারী, অধীনস্ত এবং প্রতিবেশীদের সাথে মানবিক ও সামাজিক সম্পর্কে তৈরী করুন।অন্যকে ছোট করে নিজে বড় হবার চেষ্টা করবেন না ।

 অহমিকা, দাম্ভিকতা ধৃষ্টতা দেখাবেন না, পরিহার করুন।কম কথা বলুন কাজ বেশি করুন, ধৈর্যসহকারে অন্যের কথা শুনুন। একজন আদর্শ শিক্ষক হিসেবে শিক্ষার্থীদের সাফল্য লাভ সম্পর্কে তিনি বলেছেন, মূলত, অবাস্তব নয়, এমন স্বপ্ন দেখা আবেগ নিয়ে এগিয়ে চলা, চিন্তাশক্তি শাণিত করার, চৈতন্য শক্তি প্রসারিত করা, ইচ্ছাশক্তি বৃদ্ধি করা, দৃঢ় মনোবল আরও মজবুত করা, আত্মশক্তির উপর আস্থা রাখা, পরিশ্রম করার মানসিকতা থাকা, নিয়মিত চর্চা করা, অধ্যায়ন অব্যাহত রাখা এবং উদার মনোভাব জাগ্রত করলে শিক্ষাক্ষেত্রে তো বটেই বাস্তব জীবনেও সাফল্য লাভ করা যায়। কলেজে তাঁর কর্তব্য পালন এ অঞ্চলে দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছে।

 মহাকালী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজে তিনি সবার আগে অফিসে আসেন, বাসায় ফেরেন সবার শেষে। মূলত প্রতিষ্ঠান তাঁর ধ্যান-জ্ঞান এবং কর্ম সাধারণ সেরা সম্পদ। তিনি অত্যন্ত কঠোরভাবে প্রতিষ্ঠানের শৃঙ্খলা রক্ষা করেন, অধঃস্তন সকলকে নিয়ন্ত্রণে রাখেন।

 শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং কর্মচারীদের উপরে রাখেন কড়া নজর। প্রতিষ্ঠান ও প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলের কল্যাণ কামনায় সদা তৎপর থাকেন। তাঁর কর্মতৎপরতা এবং কর্তব্য পালনের ফলে ময়মনসিংহ অঞ্চলের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ব্যাপক প্রাণচাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। তিনি কর্মে যেমন নিষ্ঠাবান,

 দায়িত্বে সচেতন, তেমনি ব্যক্তিত্বে অটল এবং সততা ও লেনদেনের ব্যাপারে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ ও স্বচ্ছ। মূলত, তার সততা, নিষ্ঠা এবং কর্তব্যবোধের ফলে মহাকালী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের একাডেমিক এবং আনুসাঙ্গিক ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নতি সাধিত হয়েছে। কর্মজীবনে সফলতার স্বীকৃতি স্বরূপ তিনি অনেক পুরস্কার ও সম্মান লাভ করেছেন।


দায়িত্বে-কর্তব্যে, সততার স্ব-আন্তরিকতা-ব্যক্তিত্ব-নিষ্ঠার এবং সর্বোপরি একজন কর্মতৎপর মানুষ হিসেবে অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকির অল্পদিনের মধ্যে সৃজনশীল মানুষের নজর কেড়েছেন। তাঁর মত গুণী শিক্ষক এবং উদারচিত্তের মানুষ বর্তমানে বিরল।

 স্বীয় জ্ঞানালোকে তিনি আলোকিত করে চলেছেন এ অঞ্চরের শিক্ষার্থীদের মেধা মননের অন্ধকার কুঠুরী। তাঁর ব্যক্তিত্বের জ্যোতিতে এবং মনোবল ও কর্মের নিষ্ঠায় উৎকর্ষ লাভ করেছে বিভিন্ন অঞ্চলের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষার্থীরা।

 তাঁর কর্মের তৎপরতা ও জ্ঞানের দীপ্তিতে দীপ্তিমান মহাকালী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজে তথা সারা দেশে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর হৃদয়।

তার এই সফলতায় শ্যেণ দৃষ্টি পড়েছে এই প্রতিষ্ঠানেরই এক শ্রেণীর কুচক্রি শিক্ষক । তাদের অন্যায় আবদার পূরণে রাজি না হওয়ায় তারা উঠে পড়ে লেগেছে সুযোগ্য অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকিরের বিরুদ্ধে ।

সম্প্রতি সাংবাদিক সম্মেলনে ময়মনসিংহ মহাকালী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকির অভিযোগ করে বলেছেন, অনৈতিক সুবিধা না দেয়ার জের ধরে স্কুল ও কলেজের কতিপয় শিক্ষক অধ্যক্ষের অপসারন দাবি করে শিার্থীদের রাস্তায় নামিয়ে কথিত আন্দোলনের নামে অপপ্রচারে নেমেছে।

 চিহ্নিত এসব শিক্ষকের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে তদন্তপূর্বক বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। গত মঙ্গলবার দুপুরে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে কলেজ অধ্যক্ষ এই অভিযোগ করেন।

 এর আগে শিক্ষকরা অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবের সামনে মঙ্গলবার দুপুরে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে। সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করে বলা হয়, আন্দোলনকারী শিক্ষকরা এর আগে কলেজ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক নানা অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ তুলে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক ও গভর্নিং বডির কাছে লিখিত আবেদন জানায়।

গভর্নিং বডির উচ্চ পর্যায়ের ৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটিসহ দুদকের আলাদা তদন্তে অভিযোগের কোন সত্যতা মেলেনি। এমতাবস্থায় হতাশাগ্রস্থ শিক্ষক হারুণ অর-রশিদ, আনোয়ার হোসেন, আয়েশা আক্তার,

 তৌফিকুন নূর সাদী ও ইসরাত জাহান খানের নেতৃত্বে কতিপয় শিক্ষক নানা মহলে বিভ্রান্ত্রি ছড়িয়ে আন্দোলনের কথা বলে অপপ্রচারে নেমেছে। এই ক্ষেত্রে স্কুল ও কলেজের কোমলমতি শিার্থীদের মানববন্ধনসহ আন্দোলনে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে বলেও সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়। কলেজ অধ্যক্ষ সাংবাদিকদের জানান, তাঁর দায়িত্ব গ্রহনের আগে কলেজের স্বীকৃতি ও এমপিও কোনটাই ছিল না।

 ছাত্রীর সংখ্যা ছিল মাত্র ১৫০ জন। বর্তমানে কলেজে ১২ শতাধিক ছাত্রী রয়েছে। সকলের আন্তরিক প্রচেষ্টায় কলেজটি এখন উন্নতির শিখরে অবস্থান করছে। এতে ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি মহল কলেজ অধ্যক্ষের ব্যক্তিগতসহ কলেজের সুনাম ও ভাবমূর্তি বিনষ্ট করতে অপতৎপরতা চালাচ্ছে।

 এরই অংশ হিসেবে গত ২০০৮ সালে মন্ত্রণালয়ে অভিযোগ করে। মন্ত্রণালয়ের বিশেষ অডিট টিম দীর্ঘ দিন অডিট করেও কোন অনিয়ম দুর্নীতির প্রমাণ পায়নি। পরবর্তীতে ২০১১ সালে গভর্নিং বডির সিদ্ধান্তে অভ্যন্তরীণ বিশেষ অডিটেও কোন দুর্নীতির প্রমাণ পায়নি। অভিযোগকারীরাই ওই সময়ে এই অডিট টিমে ছিলেন। সর্বশেষ গত ২০১৫ সালে শিক্ষকদের সমন্বয়ে আরও একটি অডিট সম্পন্ন হয়েছে।

 সকল অডিট রিপোর্টে প্রতিষ্ঠানের সামগ্রিক স্বচ্ছতা প্রতিফলিত হয়েছে। কোথাও কোন অনিয়ম ও দুর্ণীতির প্রমাণ না পেয়ে কলেজ অধ্যক্ষকে সকল অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

তারপরও অভিযোগকারী শিক্ষকদের একটি মহল সহজ সরল ও নীরিহ শিক্ষকদের ভয়ভীতি দেখিয়ে এবং কলেজ শিার্থীদের ব্যবহার করে আন্দোলনে যুক্ত করছে। ফলে কলেজে পাঠদান ব্যাহত করে চাকরি ও শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজে লিপ্ত থেকে কতিপয় শিক্ষক দুদকের কাজে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করছে বলেও সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।

 সাংবাদিক সস্মেলনে বক্তব্য রাখেন কলেজ অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকির। এসময় নুরুল আলম, মালেকা পারভীন, ইসরাত পারভীন, হোসনে আরা বেগম, আব্দুল হাই, সেলিনা বেগম, হেলাল উদ্দিন ও শাহীন বিলকিসসহ স্কুল ও কলেজ শাখার শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


পরম মমতায় লালনকারী ও বুদ্ধিদীপ্ত আদর্শনিষ্ঠ শিক্ষক, অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকির । হীনউদ্দেশ্যে চরিতার্থ করতে অত্যন্ত সুপরিকল্পিত ও "বিশেষ উদ্দেশ্য" প্রণোদিতভাবে মেধাবী, অতি সাধারণ কিন্তু অসম্ভব বহুমুখী

গুনি ব্যক্তিত্ব অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকিরেরর বিরুদ্ধে একটি চিহ্নিত কুচক্রী গং-এর প্ররোচনায় সত্যের বিপরীত, সুগভীর ষড়যন্ত্র ও কুরূচিপূর্ণ কর্মকান্ডে প্রচন্ড ক্ষোভের অনলে জ্বলছে শিক্ষক শিক্ষার্থী মহলে ।

 দক্ষ , সুযোগ্য অধ্যক্ষ জিয়া উদ্দিন শাকিরের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের নামে যারা আজ অপপ্রচারে লিপ্ত তাদেরকে ঘৃণার চোখে দেখছেন সচেতন মহল এমন দাবী ময়মনসিংহবাসীর ।





আরও পড়ুন



প্রধান সম্পাদকঃ
ড. মো: ইদ্রিস খান

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

সিয়াম এন্ড সিফাত লিমিটেড
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close