*  কক্সবাজারে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক বিক্রেতা নিহত           *  মনোহরদীতে গৃহবধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার           * ইসলামপুরে ট্রাক চাপায় চা ব্যবসায়ীর মৃত্যু           * বেনাপোল সীমান্ত থেকে নাইজেরিয়ান নাগরিক ও হুন্ডি ব্যাবসায়ী আটক           *  কেন্দুয়ায় গ্রাম পুলিশ সদস্যদের ওসি যেখানেই বিশৃঙ্খলা সেখানেই পুলিশ থাকবে            * ঝিনাইগাতীতে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ            * গফরগাঁও ২২০ বিএনপি নেতাকর্মীর আগাম জামিন           * প্রধানমন্ত্রীকন্যা পুতুলকে মন্ত্রিসভার অভিনন্দন           * মানুষ বলবে, শামীম ওসমান পাগল ছিল            * নতুন খবর দিলেন অপু বিশ্বাস            * যুক্তরাষ্ট্রে হাসপাতালে বন্দুকধারীর হামলা: নিহত ৪           * বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার পরিসংখ্যান           * আবুধাবিতে নিউজিল্যান্ডের রুদ্ধশ্বাস জয়           *  চার হাজারে ফোরজি ফোন দিচ্ছে রবি           *  দাদি হলেন মমতাজ           *  ছয় মাস পর্ন সাইট বন্ধের নির্দেশ হাইকোর্টের           * সাত খুন মামলার রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশ           * হারানো সন্তানকে খুঁজে ফিরছেন বাবা-মা           *  ময়মনসিংহের নান্দাইলে দিনমজুরকে পিটিয়ে হত্যা           * নেত্রকোনায় পিএসসিতে অনুপস্থিত ৪ হাজার শিক্ষার্থী          
*  কক্সবাজারে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক বিক্রেতা নিহত           *  মনোহরদীতে গৃহবধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার           * ইসলামপুরে ট্রাক চাপায় চা ব্যবসায়ীর মৃত্যু          

সনাতন পদ্ধতিতে পাট পচানো দূষণের শিকার নদীর পানি

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি | রবিবার, জুলাই ২৯, ২০১৮
সনাতন পদ্ধতিতে পাট পচানো দূষণের শিকার নদীর পানি

শিকার,চিত্রা,নবগঙ্গা ও কাজলা নদীর পানিতে তীব্র কটু গন্ধ মরে যায় মাছ সম্প্রতি জেলার সদর ও নড়াইলের লোহাগড়া মিঠাপুর, নলদী, সদরের হবখালী, শংকরপুর, রতডাঙ্গা, তুলারামপুরসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, নদীর দুই তীরে পাট পচানো হচ্ছে। বহুদূর পর্যন্ত নাকে আসছে দুর্গন্ধ। আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়কে জানান, বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে, নড়াইল জেলায় যে পাট উৎপাদন হয়, তার অন্তত ৬৫ শতাংশই পচানো হয় নদীতে। পুকুর, ডোবা, উন্মুক্ত জলাশয় ভরাট ও দখলের কারণে নদীতে পাট পচানোর পরিমাণ বছর বছর বাড়ছে। অন্যদিকে রিবন রেটিং পদ্ধতি সম্পর্কেও কৃষি বিভাগ কোনো প্রশিক্ষণ বা মাঠ পর্যায়ে ধারণা দিচ্ছে না বলে অভিযোগ কৃষকদের।

কৃষক, জেলে ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ৮-১০ বছর ধরে জেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত নবগঙ্গা, চিত্রা ও কাজলা নদীর অন্তত ৭০ কিলোমিটারজুড়ে পাট জাগ দেয়া হচ্ছে। এ সময়টায় নদীগুলো প্রায় মত্স্যশূন্য হয়ে পড়ে। প্রতি বছর বিপুল পরিমাণ মাছ মরে যায়।
সদরের পাজারখালী এলাকার তমিজ শেখ (৬৮) আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়কে জানান, নদীতে এ মৌসুমে মাছ না থাকায় শত শত জেলে পেশা ছেড়ে দিচ্ছেন। এছাড়া নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষ এ পানিতে গোসল, কাপড় ধোয়াসহ সংসারের দৈনন্দিন কাজ করে। এতে বিভিন্ন প্রকার রোগবালাই ছড়াচ্ছে।

রতডাঙ্গা গ্রামের গৃহিণী আমেনা খাতুন জলি জানান, নদীর পানি পচে যাওয়ায় এ পানি দিয়ে কোনো কাজই করা যাচ্ছে না। তাদের খুব কষ্ট হচ্ছে। ছেলেমেয়েদের পানিবাহিত বিভিন্ন রোগ হচ্ছে। বছরের এ তিন মাস তারা নদীর পানি ব্যবহার করতে পারেন না।
পাটের মৌসুমে নদী মাছশূন্য হয়ে পড়ার কথা উল্লেখ করে স্থানীয় জেলে সুধীর দাসের ছেলে অসীম দাস জানান, নদীতে পাট জাগ দেয়ার কারণে বছরে প্রায় চার মাস কোনো মাছই পান না তারা। এ সময় সম্পূর্ণ বেকার হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করেন।
পাট পচানোর কারণে নদী মাছশূন্য হয়ে পড়ার কথা স্বীকার করে নড়াইল জেলা মত্স্য কর্মকর্তা মো. এনামুল হক বলেন, এ কারণে প্রতি বছর বিপুল পরিমাণ মাছ মরে পচে যাচ্ছে। এতে দেশী মাছ হুমকির মুখে পড়ছে। জেলা সমন্বয় কমিটির সভায় বিষয়টি তিনি উপস্থাপন করার আগেই জেলা প্রশাসক পানি উন্নয়ন বোর্ড ও কৃষি বিভাগকে বিষয়টি অবগত করেছেন।

সনাতন পদ্ধতিতে পাট পচানোর ফলে প্রতি বছর এ মৌসুমে দূষণের শিকার হয় নড়াইলের চিত্রা, নবগঙ্গা ও কাজলা নদী। নদীর পানিতে তীব্র কটু গন্ধ হয়, পাশাপাশি মরে যায় মাছ। ফলে নদীর তীরবর্তী মত্স্যজীবীরা পড়েন বিপাকে। পাশাপাশি দূষিত পানি ব্যবহারের ফলে পানিবাহিত নানা রোগে আক্রান্ত হয় মানুষ। কৃষি বিভাগ বলছে, রিবন রেটিং পদ্ধতিতে পাট পচালে গুণগত মান বজায় থাকার পাশাপাশি আলাদা করে জলাশয়েরও প্রয়োজন হয় না। কিন্তু এ পদ্ধতিতে কৃষকরা আগ্রহী হচ্ছেন না। তার পরও তাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে পদ্ধতিটি জনপ্রিয় করার চেষ্টা করা হচ্ছে।
জেলা প্রশাসক মো. এমদাদুল হক চৌধুরী, আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়কে জানান, নদীতে পাট না পচানোর জন্য জেলার সমন্বয় কমিটির সভায় সংশ্লিষ্টদের বলা হয়েছে। পাশাপাশি কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ারও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক চিন্ময় রায় আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়কে জানান,এ বছর জেলায় পাটের আবাদ হয়েছে প্রায় ১৯ হাজার হেক্টর জমিতে। কৃষকদের নদীতে পাট না পচিয়ে রিবন রেটিং পদ্ধতি অবলম্বনের জন্য উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। গত বছর জেলায় সাড়ে ৭০০ কৃষকের মাঝে রিবন রেটিং যন্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। তবে এ বছর বরাদ্দ না থাকায় বিতরণ বন্ধ। তার পরও কয়েকশ কৃষককে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে।





আরও পড়ুন



সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close