*  বদলগাছীতে পাখির জন্য গাছে হাঁড়ি-পাতিল বাঁধা অভয়াশ্রম           * প্রথম অভিজ্ঞতায় আয়েশা মৌসুমী            * বেনাপোলে আটটি ভারতীয় এয়ারগান জব্দ           * মইনুলের বিরুদ্ধে জামালপুরে আরেক গ্রেপ্তারি পরোয়ানা           * ভারতে এসে কানাডীয় তরুণীর প্রেম-বিয়ে           * আব্দুল আলীম সাগরের পক্ষথেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন           * এ দেশ যেন আর থেমে না যায় : প্রধানমন্ত্রী            * বাচ্চু ভাইয়ের গান আমরা বাঁচিয়ে রাখবো : আসিফ আকবর           * হাত ভেঙেছে মেসির, ৩ সপ্তাহ মাঠের বাইরে           * যুক্তরাষ্ট্র-রাশিয়া সম্পর্কের আরেক ধাপ পতন            * ত্রিশালে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় যুবক নিহত           * ত্রিশাল উপজেলা প্রেসক্লাবের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত           *  জিম্বাবুয়ের কাছে হারলে কেউ মানতে পারবে না: মাশরাফি           *  এরশাদের ১৮ দফা ইশতেহার           *  চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ           * দারাজে ১১ টাকায় কেনাকাটা           *  কেঁচোসার উৎপাদনে ভাগ্যবদল           * চেয়ারম্যান হতে পারলে সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানকে অত্যাধনিক করে দিব- ইকবাল হোসেন           * ভারতে ট্রেনচাপায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬০           * রোহিঙ্গা সঙ্কট : বাংলাদেশকে জোরালো সমর্থন সুইস প্রেসিডেন্টের           
* এ দেশ যেন আর থেমে না যায় : প্রধানমন্ত্রী            * বাচ্চু ভাইয়ের গান আমরা বাঁচিয়ে রাখবো : আসিফ আকবর           * হাত ভেঙেছে মেসির, ৩ সপ্তাহ মাঠের বাইরে          

নারী ডাক্তারের চিকিৎসায় জীবন বাঁচার হার বেশি!

অপরাধ সংবাদ ডেস্ক | শুক্রবার, আগস্ট ১০, ২০১৮
নারী ডাক্তারের চিকিৎসায় জীবন বাঁচার হার বেশি!
হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ বুঝতে পারলে নারীদের উচিৎ নারী ডাক্তারের কাছেই চিকিৎসা করানো। এতে তাদের জীবন বাঁচানোর সম্ভাবনা বেশি, জানিয়েছেন হার্ভার্ডের গবেষকরা।

গবেষকরা ফ্লোরিডার বিভিন্ন হাসপাতালের জরুরী বিভাগের প্রায় বিশ বছরের তথ্য সংগ্রহ করেন। ১৯৯১ সাল থেকে ২০১০ সালের মাঝে জরুরী বিভাগে যত হার্ট অ্যাটাকের রোগী আসেন, তাদের ব্যাপারে নেওয়া হয় তথ্য। দেখা যায়, হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ নিয়ে আসা নারী রোগীদের চিকিৎসা যদি পুরুষ ডাক্তার করেন, তাহলে তাদের মৃত্যুর সম্ভাবনা বেশি। অন্যদিকে রোগী নারী হোক বা পুরুষ, নারী চিকিৎসকের কাছে গেলে তাদের বাঁচার সম্ভাবনা বাড়ে।

প্রসিডিংস অব দ্যা ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেজ জার্নালে প্রকাশিত এ গবেষণায় বলা হয়, এক্ষেত্রে লিঙ্গবৈষম্য দেখা যায়। যুক্তরাষ্ট্রের মানুষের ধারণা নারীর তুলনায় পুরুষরা হৃদরোগে বেশি আক্রান্ত হন এবং এ কারণে নারীদের চিকিৎসায় অবহেলা করেন পুরুষ চিকিৎসকরা।

গবেষণায় এটাও দেখা যায়, জরুরী বিভাগে নারী ডাক্তার বেশি থাকলে পুরুষ ডাক্তার তুলনামূলক ভালো চিকিৎসা করেন।  নারীরা সাধারণত নিজেদের স্বাস্থ্যের ব্যাপারে উদাসীন হয়ে থাকেন। তারা হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ দেখা দিলেও হাসপাতালে যেতে দেরি করেন। নারী ও পুরুষের মাঝে হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণেও পার্থক্য থাকতে পারে। নারীদের হার্ট অ্যাটাকের আগে সাধারণত নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া, বমি ভাব ও বমি, পিঠ এবং চোয়ালে ব্যথা দেখা যায়।  গড়পড়তা পুরুষের ৬৫ বছর বয়সে এবং নারীদের ৭২ বছর বয়সে হার্ট অ্যাটাক হতে দেখা যায়।

গবেষকরা বলেন, ‘এটা নিঃসন্দেহে একটা জীবন-মরণ সমস্যা।’ এ কারণে নারীদের হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ দেখা গেলে তাদেরকে নারী চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।  চিকিৎসা খাতেও নারী চিকিৎসকের সংখ্যা বাড়াতে জোর দেওয়া হয়েছে।

সূত্র: আইএফএলসায়েন্স





আরও পড়ুন



প্রধান সম্পাদকঃ
ড. মো: ইদ্রিস খান

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

সিয়াম এন্ড সিফাত লিমিটেড
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close