* টেলরের ব্যাটে প্রতিরোধ জিম্বাবুয়ের            * দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউল ৮ ঘণ্টার জন্য থেমে যাবে           * নয়াপল্টনের ঘটনায় তিন মামলা, গ্রেপ্তার ৫০           * ময়মনসিংহে নৈরাজ্য দাখিল মাদ্রাসায়            * ঢাবির ১০ শিক্ষার্থীকে এনবিআরের পুরস্কার           *  চুয়াডাঙ্গা সীমান্তে ২০ লাখ টাকা জব্দ           *  ১৮ হাজার টাকায় ধান কাটা মেশিন           * ত্রিশাল আসনে মনোনয়ন ফরম তুলেছেন ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী           *  সুন্দরবনে মাছ ধরতে যেয়ে আটক ১৫ জেলেকে ফেরত দিয়েছে ভারত           * বদলগাছীতে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর উপজেলা সমাবেশ অনুষ্ঠিত           * গাজীপুরে আয়কর মেলার উদ্বোধন           * বেনাপোল সীমান্তে ৫০০ পিস ইয়াবাসহ নারী আটক           * অভিযুক্তদের ৭১৫ কোটি টাকা বাজেয়াপ্ত করেছে দুদক           * ময়মনসিংহ সদর আসনে এমপি প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন যারা            * তাইজুলের পাঁচ উইকেটের হ্যাটট্রিক           * আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রচারে নামছেন জনপ্রিয় তিন তারকা            * ইসরায়েলকে নিরাপদে থাকতে দেবে না হামাস           * ভোট পেছাতে’ আজ ইসিতে যাচ্ছে ঐক্যফ্রন্ট           *  ত্রিশালে বিসমিল্লাহ্‌ ফুডস্'র আড়ালে নোংরা পরিবেশে পণ্য তৈরি !           *  ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স রোগীদের চরম ভোগান্তি          
* টেলরের ব্যাটে প্রতিরোধ জিম্বাবুয়ের            * দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউল ৮ ঘণ্টার জন্য থেমে যাবে           * নয়াপল্টনের ঘটনায় তিন মামলা, গ্রেপ্তার ৫০          

কেউ আইন মানে না, সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে কীভাবে?

অপরাধ সংবাদ ডেস্ক | শনিবার, সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮
কেউ আইন মানে না, সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে কীভাবে?

ঢাকার মানুষ আইন মানে না, তাদেরকে যারা বাধ্য করবেন, সেই আইন প্রয়োগকারী সংস্থাও উদাসীন। এই অবস্থায় অসহায়ত্ব প্রকাশ করলেন ঢাকার পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর শাহবাগে ট্রাফিক সচেতনতামূলক এক অনুষ্ঠানে পুলিশ কমিশনার বলেন, কীভাবে শৃঙ্খলা আসবে, সেটা জানেন না তিনি। এই সংশয়ের কারণ ব্যাখ্যা করে বলেন, ‘কেউ যেখানে আইন মানে না, তাহলে সড়কে শৃঙ্খলা কীভাবে ফিরে আসবে?’।

গত ২৯ জুলাই ঢাকার বিমানবন্দর সড়কে বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পরদিন থেকে নিরাপস সড়কের দাবিতে আন্দোলন শুরু হলে সড়কে বিশৃঙ্খলার বিষয়টি সামনে আসে। সরকার সড়ককে নিরাপদ করার পাশাপাশি যান ও পথচারী চলাচলে শৃঙ্খলা ফেরাতে নানা উদ্যোগ নিয়েছে।

ওই আন্দোলনের পর থেকে ঢাকায় কাগজপত্র এবং গাড়ির ফিটনেসের সমস্যা আছে এমন যানবাহন চলাচল দৃশ্যত বন্ধ হয়েছে, তবে এতে আবার চলাচলের দুর্ভোগ বেড়েছে। পর্যাপ্ত বাসের অভাবে গাড়িতে উঠাই কষ্টকর হয়ে গেছে।

এর মধ্যে পুলিশ আবার পুরো সেপ্টেম্বর জুড়ে বিশেষ অভিযান চালানোর কথা জানিয়েছে, ট্রাফিক আইন নিয়ে সচেতনতা গড়তেও নেয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ।

এর অংশ হিসেবেই সাপ্তাহিক ছুটির দ্বিতীয় দিন শাহবাগ মোড়ে চালানো হয় সচেতনতামূলক কর্মসূচি। যানবাহন চালকদের মধ্যে বিতরণ করা হয় লিফলেট। পথচারীদেরকে অনুরোধ করা হয় যেখান সেখান দিয়ে রাস্তা পারাপারের বদলে নির্ধারিত এলাকা বিশেষ করে ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহারের।

যানবাহন এবং পথচারীদের বিশৃঙ্খল চলাচলের বিষয়টি নতুন নয়। এই ধরনের অনুরোধ আর অভিযানও চালানো হয়েছে কতবার সেটি গুণে শেষ করা যাবে না। কিন্তু ফল আসেনি।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘পথচারীরা আইন মানে না। আইন প্রয়োগকারী সংস্থাও আইন মানে না। আইন প্রয়োগ করতে গেলে অনেক চাপ সহ্য করতে হয়। অনেক সময় পেছন থেকে টেনে ধরতে চায়।’

‘প্রভাবশালীদের কারণে রাস্তায় বিশৃঙ্খলাকারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হয় না। কখনও আমরা সেটা উপেক্ষা করতে পারি কখনও বা আমাদেরও আপস করতে হয়।’  

‘অনেক পুলিশ সদস্যই ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করেছে, আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছি। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্য অর্থাৎ কোন পুলিশ সদস্য যদি ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করে তাকে এক চুল, এক বিন্দুও ছাড় দেওয়া হবে না। তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, ক্রিকেটার ইমরুল কায়েস, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মীর রেজাউল ইলসাম এবং বাস চালক এবং পরিবহন মালিকরাও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

লিফলেটে যা আছে

সচেতনতামূলক এই লিফলেটে যেসব স্থানে হর্ন বাজান নিষিদ্ধ ও দুর্ঘটনা এড়াতে করণীয় বিষয় ও নির্দেশনাগুলো উল্লেখ করা হয়েছে।

উল্টো দিকে গাড়ি না চালানো, যেখানে সেখানে গাড়ি পার্ক না করা, গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল ফোনে কথা না বলা, বেপরোয়াভাবে গাড়ি না চালানো, নেশাগ্রস্ত অবস্থায় গাড়ি না চালানো, যেখানে সেখানে ওভারটেকিং না করা, শারীরিক ও মানসিকভাবে অনুপযুক্ত অবস্থায় গাড়ি না চালানোর অনুরোধ করা হয় লিফলেটে।

বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া হর্ন না বাজাতে অনুরোধও করা হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল উপাসনালয়, আবাসিক এলাকা বা যে কোনো সংরক্ষিত এলাকায় হর্ন বাজানে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টিও তুলে ধার জানানো হয়, রাত ১১ টার কোথাও হর্ন বাজানো যাবে না।





আরও পড়ুন



সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close