* শীতকালে শুষ্ক ও ফাটা ত্বকের ঘরোয়া সমাধান           *  ইতিহাস গড়ে জিতল বাংলাদেশ           *  দণ্ডিতদের ভোটে আসার পথ আটকাই থাকল           *  গোলাম মাওলা রনির মনোনয়নপত্র বাতিল           * হিরো আলমের প্রার্থিতা বাতিল           *  ইবি অধ্যাপক নূরী আর নেই           * কেন্দুয়ায় চিথোলিয়া গ্রামে বসেছিল রাতব্যাপী লালন সংগীতের আসর           * গাজীপুরে মরুভূমি ফুল এর মানবন্ধন           *  শান্তিচুক্তির ২১ বছর পাহাড়ে থামেনি ভাতৃঘাতী সংঘাত           *  প্রতিপক্ষকে প্রথমবার ফলোঅন করালো বাংলাদেশ           *  ১৫০ সিসির নতুন পালসার আনল বাজাজ           *  গাঁজা সেবনের দায়ে যুবকের জেল           *  সেরা ডিজিটাল ব্যাংকের পুরস্কার পেল সিটি ব্যাংক           * দেশে পৌঁছেছে ‘হংসবলাকা’            * মোদি কেমন হিন্দু, প্রশ্ন রাহুলের            * মিরাজের ঘূর্ণিতে ফলোঅনে উইন্ডিজ           * কাঠবোঝাই ট্রাক চাপায় প্রাণ গেল তিন শ্রমিকের           * নারায়ণগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক বিক্রেতা নিহত           * আলাস্কায় ভয়াবহ ভূমিকম্প, ৬ ঘণ্টায় ৪০ বার কম্পন           * জাতিসংঘের মিশনে বিমান বাহিনীর ২০২ সদস্যের কঙ্গো গমন          
* দেশে পৌঁছেছে ‘হংসবলাকা’            * মোদি কেমন হিন্দু, প্রশ্ন রাহুলের            * মিরাজের ঘূর্ণিতে ফলোঅনে উইন্ডিজ          

শান্তিচুক্তির ২১ বছর পাহাড়ে থামেনি ভাতৃঘাতী সংঘাত

হিমেল চাকমা, রাঙামাটি | রবিবার, ডিসেম্বর ২, ২০১৮

শান্তিচুক্তির ২১ বছর
পাহাড়ে থামেনি ভাতৃঘাতী সংঘাত
পার্বত্য শান্তিচুক্তির ২১ বছর পূর্তি আজ। ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর পাহাড়ে শান্তি ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে তৎকালীন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে বর্তমান জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) একটি সমঝোতা হয়। জেএসএস সভাপতি জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় (সন্তু) লারমা ও সরকারের পক্ষে আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। তারই ধারাবাহিকতায় পালিত হয়ে আসছে পার্বত্য শান্তিচুক্তির বর্ষপূর্তি।

এ চুক্তির ফলে ভারতে আশ্রয় নেওয়া বিচ্ছিন্নতাবাদীরা দেশে ফিরে আসে। সরকারের কাছে অস্ত্র জমা দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসেন জেএসএসের প্রায় দুই হাজার সদস্য। এ ছাড়া পার্বত্য জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়, পার্বত্য জেলা পরিষদ আইন এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি আইন প্রণয়ন করা হয়।

বহুল আলোচিত এ চুক্তির বিরোধী সংগঠন ইউপিডিএফও তাদের আগের অবস্থান থেকে সরে আসছে। চুক্তির বিরোধিতায় সশস্ত্র সংগঠনটি আগে পাহাড়ে সক্রিয় থাকলেও তারাও এখন শান্তিচুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়ন চায়। তবে দলটি থেকে বেরিয়ে একদল সদস্য নতুন করে তৈরি করে ইউপিডিএফ সংস্কারবাদী।

এদের সঙ্গে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘাত হচ্ছে প্রায়। ভাতৃঘাতী এসব সংঘাতে এ পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছে সাড়ে ৭০০-র অধিক মানুষ। সংঘাতের ফলে মাঝে মাঝেই অস্থির হয়ে ওঠে পার্বত্য চট্টগ্রাম।

জেএসএসের দাবি শান্তিচুক্তির ৭২টি ধারার মধ্যে মাত্র ২৫টি বাস্তবায়ন হয়েছে। বিশেষ করে চুক্তিতে পাহাড়ে অস্থায়ী সেনাবাহিনীর ক্যাম্প প্রত্যাহারের কথা বলা হলেও তাও বাস্তবায়ন হয়নি বলে অভিযোগ সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন জেএসএসের।

এদিকে ফলে আঞ্চলিক পরিষদের নির্বাচন ও অভ্যন্তরীণ উদ্বাস্তুদের পুনর্বাসন চান চাকমা সার্কেল চিফ ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায়। তিনি ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘পার্বত্য জেলা পরিষদের নির্বাচন হচ্ছে না। ফলে আঞ্চলিক পরিষদের নির্বাচনও হতে পারছে না। ভূমি বিরোধ বিরোধ আইন সংশোধন হলেও একটি বিচারও নিষ্পত্তি হয়নি। ভারত প্রত্যাগতদের পুনর্বাসন হয়নি। অভ্যন্তরীণ উদ্বাস্তুদের পুনর্বাসনও করা হয়নি।’

শান্তিচুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়ন হয়নি স্বীকার করেছেন সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু। ঢাকা টাইমসকে তিনি বলেন, ‘ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি আইন সংশোধন হয়ে কাজ শুরু হয়েছে। চুক্তির অবাস্তবায়িত অংশগুলোও বাস্তবায়ন হয়ে যাবে। পার্বত্য চট্টগ্রাম নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুবই আন্তরিক।’

রাঙামাটির সংসদ সদস্য ও জেএসএস সহ-সভাপতি উষাতন তালুকদার বলেন, ‘অতীতে কোনো সরকার চুক্তি বাস্তবায়নে আন্তরিকতা দেখায়নি। আগামীতে যারা ক্ষমতায় আসবে তাদের চুক্তি বাস্তবায়নের কর্ম পরিকল্পনা নির্ধারণ করে নির্বাচনী ইশতেহারে দিতে হবে।’

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক সদস্য নিরূপা দেওয়ান বলেন, ‘পার্বত্য চুক্তি সম্পাদনের দীর্ঘ সময়ের পরও চুক্তি বাস্তবায়ন বিলম্ব হওয়ায় একাধিক দল সৃষ্টির সুযোগ তৈরি হয়। বাড়ে অবিশ্বাস। শুরু হয় হানাহানি। এতে অনেক লোক মারা গেল। অনেক নারী স্বামী হারাল। এসব বন্ধ করতে চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নের বিকল্প নেই।

রাঙামাটি সচেতন নাগরিক কমিটির সদস্য মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘পার্বত্য চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে পাহাড়ে উন্নয়নে পরিবেশ তৈরি হয়েছে। যা আগে ছিল না। তবে চুক্তি অবাস্তবায়িত ধারাগুলো উভয়পক্ষের মধ্যে আলোচনা করে বাস্তবায়ন করা দরকার। চুক্তির পরও পাহাড়ে যে নতুন করে যে সংঘাত তৈরি হয়েছে এটি উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করছে। এটি নিরসন করা জরুরি।’

এদিকে ২১ বছর পূর্তিতে নানা পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলায় নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে শান্তি শোভাযাত্রা, আলোচনাসভা ও শান্তি-সম্প্রীতি প্রীতি ফুটবল ম্যাচ। এ ছাড়াও রাঙামাটি স্টেডিয়ামে গানে গানে দর্শক-শ্রোতাদের মাতাবে জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী হাবিব।




আরও পড়ুন



সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মোঃ খায়রুল আলম রফিক

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৬৫/১ চরপাড়া মোড়, সদর, ময়মনসিংহ।
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close