* হলে হলে রেইড দেয়া হবে: জাবি উপাচার্য           * রোববার গণভবনে যুবলীগের বৈঠক, ফারুক-শাওনকে না রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর           * কুড়িয়ে পাওয়া ককটেল বিস্ফোরণে ২ শিশু আহত            * ১০০ বলের খেলায় সাকিব-তামিমের পারিশ্রমিক কত?           * সম্রাটকে র‍্যাবে হস্তান্তর রিমান্ডের প্রথম দিনেই           * ৫ হাজার ৫০০ আদিবাসীর ইসলাম গ্রহণ            * প্রেমিকার সাহায্যে স্ত্রীকে খুন, রান্নাঘরেই 'কবর' দিলেন স্বামী!            * বিএনপি সরকারের রেল বন্ধের সিদ্ধান্ত ছিল           *  দিন দুপুরে তরুণকে অর্ধনগ্ন করে পেটাল ২ তরুণী           * মৌসুমী লাঞ্ছিতের ঘটনায় লজ্জিত মিশা ও তার পরিষদ           *  বিয়ের রাতে লাল শাড়ি পরতে বলা হয় যে কারণে           * বিয়ের অনুমতি পেতে হাইকোর্টে ৮৮ বছরের বৃদ্ধ           * বানার সেতুর শুভ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা            * বেহুঁশ বধূর নগ্ন ছবি তুলে ৪ বছর ধরে ধর্ষণ            * পুলিশ ও সাংবাদিক পরিচয়ে মাদক ব্যবসা, অবশেষে ধরা           * কুলিয়ারচরে বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস-২০১৯ পালিত           * জামিনে মুক্তি পেয়ে গলাচিপায় উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন শাহ           * কলেজ ছাত্রীকে ইভটিজিং করায় বখাটের দু‘মাসের কারাদন্ড           * স্কুল শিক্ষক ও প্রবাসীর স্ত্রী অন্তরঙ্গ মূহুর্তে আটক অতঃপর স্ত্রী কর্তৃক জুতাপেটা ॥ এলাকায় তোলপাড়           * নেত্রকোনায় নবীন লীগের সভাপতিকে কুপিয়ে হত্যা : আটক ৫          
* দুর্নীতিবাজদের সিন্ডিকেট ধ্বংস করতে হবে: ইনু           * দুর্ঘটনা এড়াতে সতর্ক হয়ে সড়কে চলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর           *  টাইব্রেকারে হেরে কিশোরীদেরও স্বপ্নভঙ্গ          

পুলিশে শাস্তি হলেও চাকরি বহাল

অপরাধ সংবাদ রিপোর্ট | শুক্রবার, জুন ২১, ২০১৯
 পুলিশে শাস্তি হলেও চাকরি বহাল
গত ৯ বছরে ১ লাখ ২০ হাজার ১৯১টি ঘটনায় পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তথ্য বলছে, চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা, ধর্ষণ ও ধর্ষণচেষ্টা, অপহরণ, খুন, ছিনতাই, নির্যাতন, ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায়, মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়া, যৌন হয়রানিসহ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় পুলিশ সদস্যদের বিভাগীয় শাস্তি দেওয়া হয়।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, গড় হিসাবে বছরে ১৩ হাজার ৩৫৪টি ঘটনায় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রে শাস্তি নামমাত্র। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের এক শতাংশেরও চাকরি যায় না।

পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (মিডিয়া) সোহেল রানা বলেন, ‘বিভাগীয় শাস্তির ক্ষেত্রে সাধারণত দায়িত্বে অবহেলা, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বৈধ আদেশ অমান্য করা, ক্ষমতার অপব্যবহার, অপেশাদার আচরণ, উৎকোচ গ্রহণ ইত্যাদি গুরুত্ব পায়।’

পিআরবি-১৮৬১ (পুলিশ প্রবিধান) অনুযায়ী, কোনও পুলিশ সদস্য অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়ালে তার বিরুদ্ধে ২ ধরনের বিভাগীয় শাস্তির (লঘু ও গুরু) বিধান আছে। গুরুদণ্ডের আওতায় চাকরি থেকে বরখাস্ত, পদাবনতি, পদোন্নতি স্থগিত, বেতন বৃদ্ধি স্থগিত ও বিভাগীয় মামলা হয়। মামলায় অপরাধ প্রমাণিত হলে বরখাস্ত করা হয়। গুরুদণ্ডের বিরুদ্ধে আপিলের সুযোগ আছে। ছোট অনিয়ম বা অপরাধের জন্য দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার, অপারেশনাল ইউনিট থেকে পুলিশ লাইনস বা রেঞ্জে সংযুক্ত করে লঘুদণ্ড দেওয়ার বিধান আছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, মানবাধিকার পরিস্থিতি ও নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করেন নূর খান লিটন। পুলিশের বিভাগীয় শাস্তি নিয়ে তার পর্যবেক্ষণও আছে। বিভাগীয় শাস্তির বিষয়ে তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা লক্ষ্য করেছি শাস্তি হলেও এক ভাগ ক্ষেত্রেও চাকরি যায় না। পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের তদন্তের পর সাধারণত তাদের ক্লোজড বা সংযুক্তি করা হয়। এবং পরবর্তীতে বলা হয়, তাদের শাস্তি দেওয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘কোনও কোনও ক্ষেত্রে কিছু সময়ের জন্য তাদের হয়তো অন্যত্র সংযুক্ত করে রাখা হয়। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা বাহিনীতেই থেকে যায়। খুব কমসংখ্যক ঘটনায় পদাবনতি হয়, ইনক্রিমেন্ট কাটা পড়ে অথবা পুলিশ বাহিনী থেকে বের করে দেওয়া হয়।’

নূর খান লিটন বলেন, “লঘু ও গুরুদণ্ডের মাঝখানে তদন্তের যে ব্যাপারটা থাকে সেখানে ‘নরম’ আর ‘গরম’ বলে দুটি বিষয় আছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই অভিযোগের গুরুত্ব থাকলেও কম গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। ফলে দেখা যায়, যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা খালাস পেয়ে যায়।’

পুলিশ সদর দফতরের তথ্য
২০১০ কনস্টেবল থেকে এসআই পদমর্যাদার ১১ হাজার ৩৩ জনকে লঘুদণ্ড, ৫৩৮ জনকে গুরুদণ্ড, ৪৯ জনকে চাকরিচ্যুত ও ৬৪ জনকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়।
২০১১ সালে ১২ হাজার ৯৭২ জনকে লঘুদণ্ড, ৬১২ জনকে গুরুদণ্ড, ৯০ জনকে চাকরিচ্যুত ও ৩৭ জনকে বাধ্যতামূলক অবসর দেওয়া হয়।
২০১২ সালে ১২ হাজার ৯৯২ জন পুলিশ সদস্যের শাস্তি হয়। এর মধ্যে ১৭৪ জনকে চাকরিচ্যুত ও ১৪ জনকে বাধ্যতামূলত অবসরে পাঠানো হয়েছে।
২০১৩ সালে ১৪ হাজার ৬০ জনের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এরমধ্যে ৭৫ জনকে চাকরিচ্যুত ও একজনকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়।
২০১৪ সালে ১৫ হাজার ২৯৭ জনের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এরমধ্যে ৭৩ জনকে চাকরিচ্যুত ও ৭ জনকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়েছে।
২০১৫ সালে ১০ হাজার ৩৪ জন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এর মধ্যে চাকরি হারান ৭৮ জন।
২০১৬ সালে ১৩ হাজার পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়।
২০১৭ সালে ১৬ হাজার ২৫৮ জন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এর মধ্যে ১৪ হাজার ৩৯৫ জনকে (কনস্টেবল থেকে এসআই পদবির) লঘুদণ্ড, ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার ৩৫৭ জনকে গুরুদণ্ড ও ২৯ জনকে লঘুদণ্ড, সাত জনের বিরুদ্ধে সাময়িক বরখাস্তসহ বিভাগীয় শাস্তি এবং ২৫জনকে চাকরিচ্যুত করা হয়।
২০১৮ সালে ১২ হাজার ৭৩৩ জনের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

বিভিন্ন ঘটনায় পুলিশের বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তির ঘটনা বাড়ছে। এর কারণ জানতে চাইলে সাবেক আইজিপি নুরুল হুদা বলেন, ‘শাস্তি হওয়াটা ভালো দিক। তার মানে প্রতিষ্ঠানে শৃঙ্খলা আছে। শাস্তি হওয়া নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। শৃঙ্খলা মেনে চলা প্রতিষ্ঠান হিসেবে শাস্তি দেওয়া হয় যথাযথ কারণেই। লঘুদণ্ড দেওয়া হয় ছোটখাটো অপরাধের জন্য। গুরুদণ্ডও খুব বেশি হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘লোকজন রাতারাতি সব ভালো হয়ে যাবে তা-ও মনে করার কারণ নেই।’




আরও পড়ুন



২. সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ মোঃ খায়রুল আলম রফিক
৩. নির্বাহী সম্পাদক ঃ প্রদীপ কুমার বিশ্বাস
৪. প্রধান প্রতিবেদক ঃ হাসান আল মামুন
প্রধান কার্যালয় ঃ ২৩৬/ এ, রুমা ভবন ,(৭ম তলা ), মতিঝিল ঢাকা , বাংলাদেশ । ফোন ঃ ০১৭৭৯০৯১২৫০
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close