* রাষ্ট্রপতির ক্ষমার ১০ বছর পর মুক্তি মিলল স্কুলশিক্ষকের!           * আজ লন্ডন যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী           * প্রেমের টানে লক্ষ্মীপুরে আমেরিকান নারী           * মৃত্যুর ১৪ দিন পর কবর থেকে তাসলিমার লাশ উত্তোলন           *  বরগুনার এসপি এবার বললেন, ‘স্বীকারোক্তি তো পুলিশের কাছে হয় না, হয় জজের কাছে’            *  দুর্নীতির অভিযোগে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী আব্বাসি গ্রেফতার           * পূর্বধলায় ছেলে ধরা সন্দেহে ১ জন আটক            * শিশুর কাটা মাথা নিয়ে মদ খেতে গিয়েছিলেন ওই যুবক           * ‘দুর্নীতিগ্রস্ত’ ওয়াসার ‘লুকোচুরি’           * ১০৩ টাকায় পুলিশে চাকরি, গফরগাঁও থানায় সংবর্ধনা           *  কেউ পাস করেনি ১ বেসরকারি কলেজে ময়মনসিংহের ৩ সরকারি কলেজে এইচএসসি’র ফল বিপর্যয়           * ত্রিশালের উন্নয়নে সকলকে কাজ করতে হবে ---------- বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন সরকার           * বাল্য বিবাহ রোধে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে ------------মোজাহারুল হক শহীদ           * নেত্রকোনায় অজ্ঞাত যুবকের ব্যাগে শিশুর মাথা, গণপিটুনিতে হত্যা           *  মুক্তাগাছা থানা পুলিশের নাম ভাঙিয়ে দালালদের দৌরাত্ম্য           * অচেতন শিশু নিয়ে ভিক্ষাবৃত্তি, কথিত বাবাকে পুলিশে দিয়ে হাসপাতালে ছুটলেন এএসপি           *  এইচএসসি’র ফলাফলে জিপিএ-৫ কমেছে ময়মনসিংহের সেরা ১২ কলেজ থেকে ১,১৩৭জন জিপিএ-৫ পেয়েছে           *  ময়মনসিংহ ডিবি’র পৃথক অভিযানে ৮১ পিস ইয়াবা ও ২৯ গ্রাম সহ গ্রেফতার ০৫           * মিন্নি পাঁচ দিনের রিমান্ডে           *  ইকোপার্ক উন্নয়ন অনিয়মের অভিযোগে কুষ্টিয়ার ডিসিকে শোকজ          
* শিশুর কাটা মাথা নিয়ে মদ খেতে গিয়েছিলেন ওই যুবক           * দিয়াবাড়ির অস্ত্র রহস্য তিন বছর পরও অজানা           * ত্রিশালে বাধাগ্রস্থ উন্নয়ন রাজনৈতিক বিরোধের সুযোগে সরকারি কর্মকর্তাদের দুর্নীতি          

বৃদ্ধা মাকে প্রতিবেশীর বাড়িতে রেখে এলেন পৌর আ’লীগ সহ-সভাপতি

স্টাফ রিপোর্টার | শনিবার, জুন ২২, ২০১৯
বৃদ্ধা মাকে প্রতিবেশীর বাড়িতে রেখে এলেন পৌর আ’লীগ সহ-সভাপতি
সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে বসবাস করার নামই পরিবার। সন্তানের সঙ্গে থাকার জন্য তিল তিল করে একটি সুন্দর পরিবার গড়ে তোলেন মা-বাবা। সন্তানকে নিয়ে সুখে-শান্তিতে থাকতে চান তারা। কিন্তু এই সুখ সব মা-বাবার কপালে জোটে না। ছোটখাটো কারণ দেখিয়ে আপন নিবাস থেকে মা-বাবাকে বের করে দেয় সন্তানরা। এবার এমনই এক ঘটনা ঘটেছে নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ঘোড়াশালের ৩নং ওয়ার্ডে।

ঘোড়াশালের ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মরিয়ম বেগম। বয়স হয়েছে যথেষ্ট। লাঠিতে ভর দিয়ে কোনোরকমে হাঁটতে পারেন। বয়স প্রায় একশ। ছেলে-মেয়ে থাকার পরও স্বামীহারা এই বৃদ্ধার মাথা গোঁজার ঠাঁই হয়েছে অন্ধকার ভাঙা ঘরে। ঘরের ভেতর একটি পুরনো তোশক। দু-চারটি থালা-বাসন ছাড়া ঘরে কিছুই নেই। অন্ধকার ঘরে একাই দিনরাত পার করছেন এই বৃদ্ধা মা। ইচ্ছা ছিল ছেলে-মেয়ে, নাতি-নাতনি নিয়ে জীবনের বাকিটা সময় সুখে-শান্তিতে কাটাবেন। কিন্তু সেই সুখ এ বৃদ্ধা মায়ের কপালে জোটেনি। স্ত্রীর কথামতো গর্ভধারিণী বৃদ্ধা মাকে অন্ধকার ভাঙা ঘরে রেখেছে ছেলে। অথচ মায়ের ঘরের পাশেই রয়েছে ছেলের তিনতলা রাজকীয় বাড়ি।

জানা যায়, বৃদ্ধা মরিয়ম বেগমের এক ছেলে ও এক মেয়ে। স্বামী প্রায় ২০ বছর আগে মারা যান। বড় ছেলে কিরণ শিকদার স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা। তিনি ঘোড়াশাল পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি।

পাশাপাশি সাজ ডেকোরেটর নামে একটি ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান রয়েছে তার। পলাশ বাজার এলাকায় নিজের তিনতলা রাজকীয় বাড়িতে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে থাকেন কিরণ শিকদার।

গত রমজান মাসে নতুন বাজার এলাকার গফুর মিয়ার ভাঙা একটি ঘরে বৃদ্ধা মাকে রেখে যান ছেলে কিরণ শিকদার। মাঝে মধ্যে এসে কিছু বাজার সদাই করে দিয়ে যান। তবে বৃদ্ধা মরিয়ম বেগমের দেখাশোনা করেন প্রতিবেশীরা।

জানতে চাইলে শতবর্ষী মরিয়ম বেগম বলেন, ছেলের বৌ আমাকে তাদের সঙ্গে রাখতে চায় না। তাই আমাকে এখানে রেখে গেছে ছেলে। মাঝে মধ্যে এসে বাজার সদাই করে দিয়ে যায়। তা দিয়েই অন্ধকার ভাঙা ঘরে দিন কাটে আমার।

মরিয়ম বেগম বলেন, জীবনের শেষ মুহূর্তে এসে অনেক কিছু চাওয়ার থাকলেও এখন কিছুই করার নেই আমার, আজ আমি অসহায়। আমার ইচ্ছা ছিল জীবনের শেষ সময়ে সন্তান, নাতি-নাতনিকে নিয়ে হাসি-খুশিতে দিন কাটাব। কিন্তু কপালে আমার সেই সুখ নেই। আমার ছেলের ইচ্ছা থাকলেও স্ত্রীর জন্য পারে না। আমাকে তাদের সঙ্গে রাখার কথা শুনলে স্ত্রী লিপি আক্তার ছেলের সঙ্গে ঝগড়া করে। এখানে আসার আগে চলনা এলাকার গ্রামের বাড়িতে একা একা দিন কাটিয়েছি আমি।

তারপর ছেলে বলল আমাকে তার কাছে নিয়ে যাবে। ভাবছিলাম তার বাড়িতে তুলবে। পরে দেখি আমাকে এখানে ঘর ভাড়া করে দিয়েছে। এখানে ছেলে এসে খোঁজ-খবর নিলেও ছেলের বৌ, নাতি-নাতনি কেউ আসে না। খোঁজ-খবর নেয় না। মেয়েকে বিয়ে দেয়ার পর সেও খোঁজ-খবর নেয় না। আমি এখন সন্তানদের কাছে বোঝা হয়ে গেছি। মাঝে মধ্যে খুব একাকিত্ব লাগলে প্রতিবেশীদের সঙ্গে কথা বলে সময় পার করি।

মরিয়ম বেগম আরও বলেন, দীর্ঘদিন ধরে চোখের সমস্যায় ভুগছি। চিকিৎসা না করায় প্রায় ১০ বছর আগে বাম পাশের চোখ নষ্ট হয়ে যায়। এখন ডান পাশের চোখে সমস্যা দেখা দিয়েছে। হয়তো এটিও নষ্ট হয়ে যাবে। বলতে গেলে আমি এখন অন্ধ।

দিনা বেগম নামের প্রতিবেশী ভাড়াটিয়া বলেন, রমজান মাসে বৃদ্ধা মরিয়ম বেগমকে তার ছেলে এখানে রেখে গেছেন। শোয়ার জন্য ঘরে ছোট একটি ভাঙা চৌকি দিয়েছিল। সেটি ছিল ছারপোকায় খাওয়া। পরে ওই চৌকি সরিয়ে ফেলা হয়। মরিয়ম বেগম এখন মাটিতে ঘুমান। এমন একজন বৃদ্ধা মাকে এভাবে একা অন্ধকার ঘরে রাখা খুবই অমানবিক। শুনেছি ছেলের বৌ নাকি তাদের কাছে রাখতে চায় না। বৌয়ের কথায় এখানে বৃদ্ধা মাকে ফেলে গেছে ছেলে। মরিয়ম বেগমের রান্নাবান্না, কাপড়-চোপড় ধোয়া থেকে শুরু করে সব কাজ আমরা করে দেই।




আরও পড়ুন



১. প্রধান উপদেষ্টা ঃ এড. সাদির হোসেন (হাইকোর্ট আইনজীবি)
২. সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ মোঃ খায়রুল আলম রফিক
৩. নির্বাহী সম্পাদক ঃ প্রদীপ কুমার বিশ্বাস
৪. প্রধান প্রতিবেদক ঃ হাসান আল মামুন
প্রধান কার্যালয় ঃ ২৩৬/ এ, রুমা ভবন ,(৭ম তলা ), মতিঝিল ঢাকা , বাংলাদেশ । ফোন ঃ ০১৭৭৯০৯১২৫০
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close