* কমেনি, বেড়েছে ভারতের খিদে, তাই বলছে সূচক            * মসজিদে কোরআন তিলাওয়াত শুনলেন প্রিন্স উইলিয়াম ও তার স্ত্রী           * মাইকেল জ্যাকসনের ৪৫ ডিগ্রি বাঁকা নাচের রহস্য জেনে চমকে গেলেন গবেষকরাই            * আয়নার সামনে বসে খাওয়া অভ্যাস করুন, ফল পাবেন অবিশ্বাস্য            * আ’লীগ নেতাদের তোপের মুখে প্রতিমন্ত্রী পলক           * মেসির আরেক মাইলফলক, বড় জয়ে শীর্ষে বার্সেলোনা            * কার্ড দেয়ার নামে বিধবাকে ধর্ষণ, বিচার না পেয়ে আত্মহত্যা           * কাশ্মীরে কোনো প্রতিবাদ চলবে না: পুলিশ প্রধান            * অবশেষে পরিচয় মিলল শপিংমলে হাত ধরে থাকা মেহজাবিনের প্রেমিকের           * ঢাকা উত্তর সিটির কাউন্সিলর রাজীব গ্রেফতার           * সৌদিতে সেই বাস অগ্নি দুর্ঘটনায় ১১ জন বাংলাদেশির মৃত্যু           * ঢাকায় বসে কলেজে পরীক্ষা, বহিষ্কার এমপি বুবলী           * ‘গাল্লি বয়’ রানা পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর উপহার           * আল্লাহ যে তিন ব্যক্তির ইবাদত কবুল করেন না            * স্বামী ও দুই ছেলেকে রেখে আপন বড় ভাইকে বিয়ে করল বোন            * বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় একটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে র‌্যাব           * কেন্দ্রীয় তাবলীগী ইজতেমা ২০১৯ উপলক্ষে ময়মনসিংহে লিফটলেট বিতরণ            *  যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর পা ধরে সালামের ছবি ফেসবুকে ভাইরাল           * প্রেমিকাকে ব্ল্যাকমেইল করার অভিযোগে প্রেমিক আটক            * উপজেলা চেয়ারম্যানকে জুতা নিক্ষেপ          
* প্রেমিকাকে ব্ল্যাকমেইল করার অভিযোগে প্রেমিক আটক            * কোহলিদের জন্য নারী থেরাপিস্ট           * ‘শুদ্ধি অভিযানে টার্গেটে থাকা সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে’          

কুতুপালং ক্যাম্পে ব্রাকের অবৈধ বাঁশ প্রক্রিয়ার বিষাক্ত বর্জ্য লোকালয়ে ছড়াচ্ছে

কায়সার হামিদ মানিক,কক্সবাজার। | রবিবার, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯
কুতুপালং ক্যাম্পে ব্রাকের অবৈধ বাঁশ প্রক্রিয়ার বিষাক্ত বর্জ্য লোকালয়ে ছড়াচ্ছে

কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালীতে বেশ কিছু আবাদী জমির ঘাঁস কেমন যেন বিবর্ণ হয়ে মরে যাচ্ছে। গত দুই বছর ধরে বালুখালীর এ বিলে প্রায় ৪/৫ একর জমি অনাবাদী পড়ে রয়েছে রোহিঙ্গাদের বর্জ্যের দূষণে। কুতুপালং এর মধুরছড়া,মাছকারিয়া,কচুবনিয়া এলাকার পাহাড়ী ছড়া ও খাল সংলগ্ন এলাকাতেও একই অবস্থা।

জানা যায়,রোহিঙ্গাদের ব্যবহারের জন্য দেওয়া বাঁশ গুলোর প্রক্রিয়া করণের বিষাক্ত বর্জ্য খাল ও ছড়া দিয়ে স্থানীয় লোকালয়ে ছড়িয়ে পড়ে এ অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। কুতুপালং মেগা ক্যাম্পের বর্ধিত -৪ নং ক্যাম্পের সড়কের উভয় পাশে এনজিও ব্রাকের পাশাপাশি দুটো বাঁশ প্রক্রিয়া করণ কেন্দ্র। প্রতিদিন এ দুটো কেন্দ্রে হাজার হাজার বাঁশ বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থের মাধ্যমে পরিশোধন করে প্রক্রিয়া করণ করা হয়।

কুতুপালংয়ের যে স্থানে বাঁশ প্রক্রিয়া করণ করা হচ্ছে সেখানে জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর গত দুই বছর ধরে রোহিঙ্গাদের জন্য সারি সারি ঘর নির্মাণ করেছে। এসব ঘর নির্মাণ বাস্তবায়ন করছে এনজিও ব্র্যাক ও কারিতাস। উদ্বেগের বিষয় হচ্ছে পরিবেশ অধিদপ্তর বা সংশ্লিষ্ট কোন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া এনজিও গুলো পরিবেশ ও প্রতিবেশের ক্ষতিকর রাসায়নিক বিষাক্ত বর্জ্য লোকালয়ে ছেড়ে দিচ্ছে।

একই ভাবে কুতুপালং বাজারের দক্ষিণে কচুবনিয়ায় আরও দুটি বাঁশ প্রক্রিয়া করণ কেন্দ্র রয়েছে। একেকটি কেন্দ্রে প্রতি মাসে অন্তত ১২ হাজার বাঁশ প্রক্রিয়া করণ করা হয় বলে ব্রাকের সাইট ম্যানেজমেন্ট বিভাগের দায়িত্ব রত প্রকৌশলী সমীর চন্দ্র সমাদ্দার জানান।

দেখা গেছে রোহিঙ্গাদের জন্য শত শত শেডের হাজার হাজার ঘর বানানোর টিকাদারী করছে এনজিও দুটো। খবর নিয়ে জানা গেছে, প্রতি পরিবারের জন্য একটি ঘর নির্মাণ করতে বড় বা বরাক বাঁশ ৫৫ টি ও ছোট বা মুলি বাঁশের প্রয়োজন প্রায় ৩ শ টির মত। গত এক বছর ঐ ক্যাম্পে যে পরিমাণের নতুন ঘর করা হয়েছে এবং প্রতি মৌসুমে যে পরিমাণের ঘর মেরামত ও সংস্কার করা হয় সে অনুযায়ী কয়েক লক্ষ বাঁশের ব্যবহার হয় প্রতি মাসে।

কথিত জরুরী প্রয়োজনে বিভিন্ন স্থানে ব্র্যাক সহ বিভিন্ন দেশী ও বিদেশী এনজিও গুলোর মজুদ রয়েছে আরো কয়েক কোটি পিস নানা ধরণের বাঁশ।এসব বাঁশ ক্যাম্প গুলোতে ও সংলগ্ন এলাকায় গড়ে তোলা একাধিক প্রক্রিয়া করণ কেন্দ্রে পরিশোধন করা হচ্ছে পর্যায় ক্রমে।

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে বাঁশ প্রক্রিয়া করণে ব্যবহার করা হয় বোরাক্স + বোরিক এসিড ,সালফেট + সোডিয়াম +ডাইক্রোমেট+বরিক এসিড। এসব রাসায়নিক মাত্রা অনুপাতে মিশ্রিত দ্রবণে বাঁশকে নুন্যতম এক সপ্তাহ ডুবিয়ে রেখে প্রক্রিয়া জাত করা হয়। প্রক্রিয়া জাতকৃত বাঁশ পোকা,গুন,কীট পতঙ্গ,ছত্রাক ইত্যাদি থেকে দীর্ঘ মেয়াদী রক্ষা করা যায়। বাঁশ প্রক্রিয়া করণের বিষাক্ত বর্জ্য সংলগ্ন ছড়া ও খালে নির্গত করা হচ্ছে।

স্থানীয় কুতুপালং এলাকার আওয়ামীলীগ নেতা নুরুল হক খান জাতিসংঘের একাধিক সংস্থা ও তাদের অর্থায়নে এনজিও গুলো কিছুই মানছে না। পাহাড়, বন,জঙ্গল, জীব বৈচিত্র্য ক্রমাম্বয়ে ধংস করেছে। পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের কারণে স্থানীয় লোকজন মারাত্মক পরিবেশ ও প্রতিবেশগত ক্ষতির মূখে পড়ছে। এনজিও ব্রাক বাঁশ প্রক্রিয়া করণের যে ক্ষতিকর বিষাক্ত রাসায়নিক বর্জ্য খাল ও ছড়া গুলো দিয়ে লোকালয়ে ছড়িয়ে দিচ্ছে তা দ্রুত বন্ধ করে আইনানুগ ব্যবস্থার দাবী স্থানীয় লোকজনের।

কুতুপালং ব্রাক ম্যানেজার মনিরুজ্জামান এসব বিষয় দেখার দায়িত্ব তার নয় বলে জানান। ব্রাকের বাঁশ প্রক্রিয়া করণ প্রকল্পের সাইট প্রকৌশলী সমীর চন্দ্র সমাদ্দার তাদের এ কাজের জন্য পরিবেশ অধিদপ্তরে আবেদন করা হয়েছে বলে জানান।

তবে এখনও কোন অনুমোদন পায়নি বলে স্বীকার করে তিনি বলেন,এতে যে রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহার করা হয় তাতে পরিবেশের তেমন ক্ষতি হবে না। কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মোঃ নুরুল আমিন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বাঁশ প্রক্রিয়া করণের জন্য কাউকে কোন ধরণের অনুমতি দেওয়া হয়নি। যদি কেউ এধরনের করে থাকে তা বেআইনি বলে জানান তিনি।




আরও পড়ুন



২. সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ মোঃ খায়রুল আলম রফিক
৩. নির্বাহী সম্পাদক ঃ প্রদীপ কুমার বিশ্বাস
৪. প্রধান প্রতিবেদক ঃ হাসান আল মামুন
প্রধান কার্যালয় ঃ ২৩৬/ এ, রুমা ভবন ,(৭ম তলা ), মতিঝিল ঢাকা , বাংলাদেশ । ফোন ঃ ০১৭৭৯০৯১২৫০
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close