* বনেকের সাধারন সভায় গুরুত্বপূর্ণ সিন্ধান্ত            * রাজশাহীতেও রূপপুরের ঠিকাদারের জালিয়াতি            *  যে মসজিদের প্রশংসা করেছেন স্বয়ং আল্লাহ তাআলা           *  গাঁজাখুরি চাকরি! বেতন ২৫ লাখ            *  যে কারণে দেশে ফিরতে পারছেন না তারেক           *  আপনি নিজের অজান্তেই অসুস্থ নন তো !            * টানা ৩০ বছর ধূমপানের পর মৃত্যু, ফুসফুস দেখে চিকিৎসকদের চোখ কপালে           *  রাজধানী সুপার মার্কেটের আগুন নিয়ন্ত্রণে, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা            * ময়মনসিংহ উন্নয়ন প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়ন পরামর্শ দেন : পরিকল্পনামন্ত্রী           * ‘সরকার ক্রিকেটের পাশাপাশি টেনিসকেও গুরুত্ব দিচ্ছে’           * সপ্তাহে যেদিন চরম উষ্ণতা অনুভব করে মেয়েরা           * পেঁয়াজ প্রসঙ্গ কোরআন-হাদিসের বর্ণনা            * রাসূল (সা.) এর বাণী           * অভিনেত্রী মম’র চার বছর আগে করা বিয়ের খবর ফাঁস           * ফরিদপুর মেডিকেলে রীতিমত ‘পুকুর চুরি’ হয়েছে           * ‘কোপ খেয়ে’ রক্ত ঝরছে, তবুও সন্ত্রাসীকে ছাড়েননি ওসি!            * জন্মেছেন যখন মৃত্যুবরণ করবেনই, স্বাভাবিক হতে পারে অ্যাক্সিডেন্টেও হতে পারেঃ রেলমন্ত্রী            * টেকনাফে লবণের মণ ১৮০ টাকা           * টাঙ্গাইলের চালকল মালিকের ধর্ষণের শিকার কিশোরী            * ত্রিশালের ধলা প্রবাসীর বাড়িতে সাত হাজার কেজি লবণ           
* ফখরুল সাহেব শ্রমিকদের উসকানি দেবেন না            * দেশে ফিরলেন প্রধানমন্ত্রী           * মেসির পিছু ছাড়ছেন না ব্রাজিল কোচ          

যৌবনের উম্মাদনায় নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করবেন যেভাবে

অপরাধ সংবাদ ডেস্ক | মঙ্গলবার, অক্টোবর ২২, ২০১৯
যৌবনের উম্মাদনায় নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করবেন যেভাবে

তরুণ যুবকদের মাঝে বয়ঃসন্ধিক্ষণে এক ধরনের কামনা বাসনা বা হতাশা কাজ করে। যারা যৌবনের সব কামনা-বাসনা ও হতাশা থেকে নিজেকে নিয়ন্ত্রণে সক্ষম তারাই সফলকাম। টগবগে যুবকের সে সময়ের কোনো ইবাদতই আল্লাহ ফিরিয়ে দেন না।

তাই প্রতিটি যুবকের জন্যই নির্মল চরিত্রের অধিকারী হতে প্রয়োজন কুরআন-সুন্নাহর জ্ঞান। যৌবনের কামনা-বাসনার অপরাধগুলো মানুষের শারীরিক রোগের ন্যায়। সঠিক দিক-নির্দেশনায় এসব অপরাধমূলক রোগ থেকে মুক্ত থাকা সম্ভব।

মানুষ যেমন অসুস্থ হয়ে গেলে চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করে তেমনি কোনো যুবক যদি চারিত্রিক সমস্যায় পতিত হয়, তার জন্যও রয়েছে চিকিৎসাস্বরূপ বিশ্বনবীর সেরা উপদেশ। যে উপদেশ গ্রহণে যে কোনো যুবকই হয়ে উঠবে উন্নত নৈতিক চরিত্রের অধিকারী।

সে কারণেই প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পাপ কাজে নিমজ্জিত সব ব্যক্তিকেই রোগী হিসেবে চিহ্নিত করতেন। যার যে উপদেশ প্রয়োজন তাই তিনি প্রদান করতেন। হাদিসে এ রকম অসংখ্য প্রমাণ রয়েছে। যেমনটি ব্যভিচারের ক্ষেত্রেও রয়েছে।

শুধু তাই নয়, যদি কারো কোনো অসুবিধা বা সমস্যা নিজের (বিশ্বনবির) মধ্যে থাকতো তবে তিনি আগে সে কাজের সমাধান নিজের মধ্যে বাস্তবায়ন করতেন, তারপর অন্যকে তা থেকে বিরত থাকতে উপদেশ দিতেন।

যুবকদের অবৈধ চারিত্রিক কামনা-বাসনা থেকে দূরে রাখতে বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এক কুরাইশ যুবককে নসিহত পেশ করেছেন। এ উপদেশটি বর্তমান সময়ের জন্যও খুবই উপযোগী। হাদিসে সে ঘটনার বর্ণনাটি এভাবে এসেছে-

একবার এক কুরাইশ যুবক রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে ব্যভিচারের অনুমতি প্রার্থনা করে। উপস্থিত সাহাবায়ে কেরাম যুবকের কথায় রেগে গিয়ে তাকে শাস্তি দিতে উদ্যত হলেন। কিন্তু বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দৃষ্টিভঙ্গি ছিল সম্পূর্ণ ভিন্ন।

তিনি শান্ত চিত্তে যুবককে আরও কাছে টেনে নিলেন। তারপর (যুবককে প্রশ্ন রেখে) বললেন-

‘তুমি কি তোমার মায়ের জন্যে এটা (ব্যভিচার) মেনে নেবে? যুবক উত্তর দিলেন, ‘না’,। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, ‘(অন্য) লোকেরাও এটা তাদের জন্যে অনুমোদন করবে না।’

অতঃপর তিনি যুবককে আলাদা আলাদা করে বারবার তার কন্যা, বোন ও চাচির জন্য (ব্যভিচার) অনুমোদনের বিষয়ে প্রশ্ন করেন। আর প্রতিবারই যুবক ‘না’ বোধক উত্তর দিতে থাকে।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রতিবারই বলতে থাকেন যে, (অন্য) ব্যক্তিরাও তাদের জন্য এটা (ব্যভিচার) অনুমোদন করবে না।’

তারপর তিনি যুবকের হাত ধরে বললেন, ‘আল্লাহ্ তার (যুবকের) পাপ ক্ষমা করুন। তার অন্তর পবিত্র করুন এবং তাকে সহিষ্ণু করুন (ব্যভিচারের কামনার বিরুদ্ধে)।’ (মুসনাদে আহমদ, তাবরানি)

বর্তমান সময়ে ধর্ষণের অপরাধ প্রবণতা কমাতে এবং বিপদগামী যুবকদের সচেতন করে তুলতে ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রীয়ভাবে হাদিসের এ আবেদন তুলে ধরা জরুরি। যার ফলে সমাজ ধর্ষণ জিনা-ব্যভিচার মুক্ত হবে।

যুবক-তরুণদের কোনো সমস্যায় হতাশ হওয়া যাবে না। যে কোনো সমস্যা ইসলামের আলোকে শান্তি ও নিরাপত্তা বিধানের চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। তাইতো বান্দাকে এ ঘোষণা জানিয়ে দিতে বিশ্বনবীকে আল্লাহ তাআলা নির্দেশ দেন-

(হে রাসূল! আপনি) বলুন, হে আমার বান্দাগণ! যারা নিজেদের উপর অত্যাচার করেছ, তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হবে না। নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদের সব গোনাহ ক্ষমা করেন। তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।’ (সুরা যুমার : আয়াত ৫৩)

সুতরাং যুবক যত বড় অপরাধীই হোক না কেন কিংবা যত অপরাধেই জড়িত হোক না কেন, ইসলামের উদাত্ত আহ্বান হলো- সর্বাবস্থায় কুরআন-সুন্নাহর নির্দেশ ও উপদেশ অনুযায়ী জীবন পরিচালনা করা। আর তাতে জীবন হবে সফল ও স্বার্থক।

সে কারণেই বান্দাকে অন্যায় থেকে ফিরে থাকার সতর্কতামূলক নির্দেশও বিশ্বনবীকে জানিয়ে দিতে বলেছেন-

‘তোমরা তোমাদের পালনকর্তার দিকে ফিরে আস এবং তোমাদের কাছে আজাব আসার আগেই তার নির্দেশ মেনে চল। তারপর (শাস্তি আসার পর) তোমরা সাহায্যপ্রাপ্ত হবে না।’ (সুরা যুমার : আয়াত ৫৪)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর সব যুবককে কুরআনের নির্দেশ মেনে চলার পাশাপাশি হাদিসের উপদেশ গ্রহণ করার তাওফিক দান করুন। নির্মল ও নিষ্কলুষ চরিত্রের অধিকারী হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।





আরও পড়ুন



২. সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ মোঃ খায়রুল আলম রফিক
৩. নির্বাহী সম্পাদক ঃ প্রদীপ কুমার বিশ্বাস
৪. প্রধান প্রতিবেদক ঃ হাসান আল মামুন
প্রধান কার্যালয় ঃ ২৩৬/ এ, রুমা ভবন ,(৭ম তলা ), মতিঝিল ঢাকা , বাংলাদেশ । ফোন ঃ ০১৭৭৯০৯১২৫০
ফোন- +৮৮০৯৬৬৬৮৪, +৮৮০১৭৭৯০৯১২৫০, +৮৮০১৯৫৩২৫২০৩৭
ইমেইল- aporadhshongbad@gmail.com
(নিউজ) এডিটর-ইন-চিফ,
ইমেইল- khirulalam250@gmail.com
close