রাঙ্গামাটি সবুজ বৈচিত্রের শ্যামল ভূমি

সাইফুল মাহমুদ, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: | বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৬, ২০১৫
রাঙ্গামাটি সবুজ বৈচিত্রের শ্যামল ভূমি
দেখিতে গিয়াছি পর্বতমালা দেখিতে গিয়াছি সিন্দু, দেখা হয় নাই দু’চোখ মেলিয়া ঘরের বাইরে দু’ পা ফেলিয়া একটি ঘাসের শীষের উপর একটি শিশির বিন্দু’। কবির এমন অনুভূতি পাহাড়ের পরতে পরতে লুকিয়ে থাকা সবুজ রূপ বৈচিত্রের শ্যামলভূমি রাঙামাটি। দেশী-বিদেশী পর্যটকদের আনন্দ দিতে প্রস্তুত হয়ে অপেক্ষার প্রহর গুনছে পর্যটকদের মনে স্থান করে নেওয়া প্রাকৃতিক নৈসর্ঘের লীলাভূমি অন্যতম শহর রাঙামাটি।
বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্বের সীমান্তবর্তী অন্যতম বড় এই জেলাটির হাজার হাজার ফুট উঁচু পাহাড়গুলো যেন ঢেউ খেলানো শাড়ি। আকাশের মেঘ ছুঁয়ে যায় পাহাড়ের বুক। শরৎ, হেমন্ত এবং শীতে শুভ্র মেঘের খেলাও চলে সবুজ পাহাড়ের ভাজে ভাজে। ।
চারিদিকে সবুজের সমারোহ আর পাহাড় ঘেড়া এ জেলায় রয়েছে এশিয়ার বৃহত্তম কৃত্রিম হ্রদ কাপ্তাই হ্রদ। নৈসর্গিক সৌন্দর্য্যরে অনুপম আধাঁরের রাঙ্গামাটি জেলা তার বৈচিত্রময়তার কারণে আকর্ষণীয় স্থান হিসাবে দেশী-বিদেশী পর্যটকদের মনে স্থান করে নিয়েছে। তাই পার্বত্য শহর রাঙামাটি পর্যটকদের কাছে অতি প্রিয় একটি নাম। আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে টানা ছুটির সুযোগে লাখো পর্যটকের পদভারে মুখরিত হয়ে উঠবে রুপের রাণী ক্ষেত পাহাড়ী জেলা রাঙামাটি। যেকোনো ছুটিতে কোথাও ঘুরতে যাওয়ার কথা ভাবছেন  তাহলে রাঙামাটি ঘুরে যেতে পারেন। এখানে পাহাড়ের কোল ঘেঁষে ঘুমিয়ে থাকে শান্ত
 জলের হ্রদ। সীমানার ওপাড়ে নীল আকাশ মিতালী করে হ্রদের সাথে চুমু খায় পাহাড়ের বুকে। এখানে চলে পাহাড় নদী আর হ্রদের এক অপূর্ব মিলনমেলা। দেখতে ও উপভোগ করতে চাইলে এবারের টানা ছুটিতে নিজে অথবা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে চলে আসুন আমাদের রাঙামাটিতে।
রাঙামাটির দর্শনীয় স্থান রাঙামাটিতে ভ্রমণ করার জন্য রয়েছে অনেকগুলো দর্শনীয় স্থান। এর মধ্যে কাপ্তাই লেক, পর্যটন মোটেল, ডিসি বাংলো, ঝুলন্ত ব্রিজ, পেদা টিংটিং, সুবলং ঝর্ণা, রাজবাড়ি, রাজবন বিহার, উপজাতীয় জাদুঘর, কাপ্তাই হাইড্রো ইলেক্ট্রিক প্রজেক্ট, কাপ্তাই জাতীয় উদ্যান ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।
রাঙামাটি শহর ও আশপাশের স্পট রাঙামাটিতে ঝুলন্ত সেতু, রাজবাড়ি, জেলা প্রশাসকের বাংলো, সুভলং ঝরণা, বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আবদুুর রউফের স্মৃতিসৌধ, পেদা টিং টিং, ইকো টুক টুক ভিলেজসহ দেখার মতো অনেক কিছু রয়েছে। এগুলো দেখার জন্য সারাদিনের জন্য বোট ভাড়া নিলে ভালো।
পর্যটন মোটেল ও ঝুলন্ত সেতু  শেষপ্রান্তে  কর্ণফুলী হ্রদের কোল ঘেঁষে পর্যটন হলিডে কমপ্লেক্স। ১৯৮৬ সালে এটি গড়ে তোলা হয়। আকর্ষণীয় পর্যটন মোটেলটি এখানেই। এ এলাকাটি ‘ডিয়ার পার্ক’ নামেই পরিচিত। মোটেল এলাকা থেকে দৃশ্যমান হ্রদের বিন্তীর্ণ জলরাশি আর দূরের নীল উঁচু-নীচু পাহাড়ের সারি বিমোহিত করবে যে কাউকেই। এখানেই হ্রদের ওপর ৩৩৫ ফুট দীর্ঘ ঝুলন্ত সেতু। যা কমপ্লেক্সের গুরুত্ব ও আকর্ষণ বহুগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। এ সেতুকে বলা হয় ‘সিম্বল অব রাঙামাটি’। দুটি পাহাড়ের মধ্যে সংযোগ ঘটিয়ে কাপ্তাই হ্রদের উপর ঝুলে আছে সেতুটি। এটি দেখতে হলে পর্যটন করপোরেশনকে দিতে হবে পাঁচ টাকা। এছাড়াও এখানে আছে সময় কাটানোর অনেক উপকরণ। আছে অডিটোরিয়াম, পার্ক, পিকনিক স্পট, স্পিড বোট ও দেশীয় নৌ-যান। রাঙামাটি শহরের তবলছড়ি হয়ে সড়ক পথে সরাসরি ‘পর্যটন কমপ্লেক্সে’ যাওয়া যায়। এখানে গাড়ি পার্কিংয়ের সুব্যবস্থা রয়েছে। যারা ঢাকা বা চট্টগ্রাম থেকে সার্ভিস বাসে করে আসবেন তাদের তবলছড়িতে নেমে অটোরিক্সা রিজার্ভ ভাড়া করে যেতে হবে।
সুবলং ঝর্ণা রাঙামাটি সদর হতে সুবলং এর দূরত্ব মাত্র ২৫ কিলোমিটার। রাঙামাটির রিজার্ভ বাজার, পর্যটন ঘাট ও রাঙামাটি বিভিন্ন স্থান থেকে স্পিড বোট ও নৌ-যানে করে সহজেই সুবলং যাওয়া যায়। কাপ্তাই লেক ঘুরতে হ্রদে দেশীয় ইঞ্জিন চালিত বোট অথবা স্পীড বোটে চড়ে বেরুলে প্রথমেই চোখ যাবে পাহাড়ের কোল থেকে নেমে আসা সুভলং ঝর্ণার দিকে। বোটে করে সুভলং যাওয়ার আনন্দটাই অন্যরকম। বর্তমানে ঝর্ণায় পানি খুব বেশি নেই তবে ভরা বর্ষা মৌসুমে মূল ঝর্ণার জলধারা প্রায় ৩০০ ফুট উচু থেকে নীচে আছড়ে পড়ে এবং অপূর্ব সুরের মুর্ছনায় পর্যটকদের মুগ্ধ করে। বর্তমানে এ এলাকায় উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক কিছু স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে। এরপরও ঝর্ণার সৌন্দর্য পর্যটকদের মন ভরিয়ে দিতে যথেষ্ট। পাহাড়ের উপর থেকে নেমে আসা ঝর্ণার পানি পাথুরে মাটিতে আছড়ে পড়ার অপূর্ব দৃশ্য না দেখলে বলে বোঝানোর নয়। ইচ্ছে করলে স্নান করতে পারেন ঝরনার শীতল পানিতে। ক্যামেরা থাকলে ঝটপট তুলে নিতে পারেন দুর্লভ কিছু ছবিও। ঝর্ণা দেখা শেষ হলে কিছুক্ষণের জন্য সুভলং বাজার ঘুরে আসতে পারেন। এখানে সেনাবাহিনীর একটি ক্যান্টিন রয়েছে। চাইলে সেখানে সেরে নিতে পারেন চা-নান্তা পর্ব।
টুক টুক ইকো ভিলেজ দীর্ঘ ভ্রমণে ক্লান্ত-পরিশ্রান্ত অতিথির জন্য রয়েছে বেশ কয়েকটি উপজাতীয় রেন্তোরাঁয়ন্ত রকমারি খাবারের স্বাদ। কাঠ এবং বাঁশের কারুকাজে তৈরি এ রেন্তোরাঁয় দেশিয় ও পাহাড়ি মজাদার সব খাবার-দাবার পাওয়া যাবে। ৫০ একর জায়গা জুড়ে বহু টিলা-উপটিলায় পুরো ইকো ভিলেজটিতে সুদৃশ্য বেশ কয়েকটি কাঠের কটেজ। অ্যাটাস্ট বাথ, ব্যালকনি-সমেত এ কটেজগুলো থাকার ব্যবস্থাও ভালো। জানালার ফাঁক গলিয়ে দূরে পাহাড়ের ঢালে কাপ্তাইয়ের পানিতে চাঁদের প্রতিচ্ছবি অসাধারণ। রাতগভীরে বন-বনানী থেকে ভেসে আসা ঝিঁঝি পোকা, নাম জানা-অজানা নিশাচর পশু-পাখির বিচিত্র ডাকে অজানা রাজ্য এসে সামনে দাঁড়ায়। আছে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা। ইকো ভিলেজে তৈরি করা হয়েছে ১৫টি গোলঘর। আছে প্রশান্ত খেলার মাঠ, কাঠের ব্রিজ। চারদিকে পাহাড়ি গাছ-গাছালির পাশাপাশি নানা রকমের ফলদ, বনজ ও ঔষধি গাছও লাগানো হয়েছে। পার্ক ভরপুর লাল গোলাপ, সাদা গোলাপ, আফ্রিকান গাদায়। এর সবুজ পাহাড় ছেড়ে একটু ভেতরের দিকে এগুলেই আদিবাসী গ্রাম। ইচ্ছে করলে সেখানে গিয়ে দেখে আসতে পারেন পাহাড়ি মানুষের সরল জীবনযাপন। এ গ্রামের পাহাড়ের মাঝে গড়ে তোলা হয়েছে জুম ক্ষেত (পাহাড়ের চূড়ায় চাষাবাদ)। রাঙামাটি শহর থেকে টুক টুক ইকো ভিলেজে যেতে রিজার্ভ বাজারের শহীদ মিনার এলাকা থেকে রয়েছে নিজস্ব বোটের ব্যবস্থা রয়েছে। পাশাপাশি ভাড়াও বেশী নয়।
পেদা টিংটিং ও চাংপাং কাপ্তাই হ্রদের চারিদিকে কেবল পাহাড় আর হ্রদ। বুনো প্রকৃতি ছাড়া আর কিছুই আশা করা যায় না এখানে। এরমধ্যেও চলতি পথে কোন একটি টিলার উপর দেখবেন পেদা টিং টিং এবং চাং পাং। যেখানে এক গ্লাস খাবার পানি পাওয়া কঠিন, সেখানে এই দু’টি রেষ্টুরেন্ট অতিথির জন্য চা-কফি আর চিকেন ফ্রাই নিয়ে অপেক্ষা করছে। এছাড়াও এখানে পাবেন স্থানীয় খাবার “বিগল বিচি”, “কচি বাঁশের তরকারী”, “কেবাং”।
পেদা টিং টিং একটা চাকমা শব্দগুচ্ছ, যার অর্থ হচ্ছে পেট টান টান। অর্থাৎ মারাত্মকভাবে খাওয়ার পর পেটের যে টান টান অবস্থা থাকে, সেটাকেই বলা হয় পেদা টিং টিং। এদিকে পেদা টিং টিংয়ের ঠিক অপর পাশে কাপ্তাই হৃদের ঠিক মাঝখানে অবস্থিত উপজাতী রেষ্টুরেন্ট চাং পাং। যার অর্থ হলো চাইলেই পাই। এখানে পাহাড়ি সমাজের বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহি খাবারের পাশাপাশি রয়েছে আরামে কিছুটা সময় কাটাবার সেগুন বাগানের অভ্যন্তরে নীরবে বসে থাকার বেশ কয়েকটি ছাউনী।
বালুখালী রাঙামাটি শহরের কাছেই বালুখালী কৃষি খামার। খামারের বিশাল এলাকা জুড়ে যে উদ্যান রয়েছে, তা এককথায় চমৎকার। এখানে প্রায় সময় দল বেঁধে লোকজন পিকনিক করতে আসে। খামারটিতে ফল-ফুলসহ অসংখ্য প্রজাতির গাছগাছালি রয়েছে। রাঙামাটি শহর থেকে স্পিডবোট ভাড়া করে এখানে আসা যায়। ভাড়া দেড় থেকে আড়াই হাজার টাকা। তবে দেশীয় ইঞ্জিন বোটে ভাড়া ৮’শ থেকে হাজার টাকা।
রাজ বনবিহার রাঙামাটির দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে রাজ বনবিহার। এ অঞ্চলের বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীর প্রধান তীর্থ স্থান এটি। এখানে আছে একটি প্রার্থনালয়, একটি প্যাগোডা, বনভান্তের (বৌদ্ধ ভিক্ষু) আবাসস্থল ও বনভান্তের ভোজনালয়। প্রতি শুক্রবার ছাড়াও বিভিন্ন অনুষ্ঠান উপলক্ষে এখানে চলে প্রার্থনা। রাজ বনবিহারে দাঁড়িয়ে উপভোগ করতে পারেন কাপ্তাই লেকের নয়নাভিরাম সৌন্দর্য। রাজবনবিহারের পাশেই কাপ্তাই লেকের ছোট্ট একটি দ্বীপজুড়ে রয়েছে চাকমা রাজার রাজবাড়ি।
ফুরোমোন শহরের অল্প দূরে অবস্থিত ফুরামোন পাহাড়। এ পাহাড়ের চূড়ায় উঠে রাঙামাটি শহরের অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করা যায়। এর উচ্চতা এক হাজার ৫১৮ ফুট। ফুরামোন পাহাড় যেতে হলে শহরের মানিকছড়ির সাপছড়ি হয়ে যেতে হবে। এখানে রাজবন বিহারের ফুরামোনা শাখা নামে বৌদ্ধদের একটি মন্দির রয়েছে। ফুরামোন যেতে হলে প্রথমে অটোরিকশা ভাড়া করে সাপছড়ি পযন্ত গিয়ে এরপর হেঁটে যেতে হবে। এ জন্য অবশ্যই পাহাড়ে ওঠার অভ্যাস থাকতে হবে। আরেকটু আরামে যেতে চাইলে ফুরামোনের পাদদেশে নির্মিত রাস্তা দিয়েও যেতে পারেন। তবে ফুরামোন পাহাড়ে যাওয়ার আগে নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বাঘেœ নিশ্চিত করতে হবে। কেননা এলাকাটি খুবই নির্জন।
মোনঘর ও সুখী নীলগঞ্জ রাঙামাটি শহর থেকে মাত্র পাঁচ কিলোমিটার দূরে রাঙাপানি এলাকায় চার একর পাহাড়ের উপর অবস্থিত মোনঘর শিশু সদন। প্রতিষ্ঠানটি স্থানীয় লোকজনের কাছে পার্বত্য চট্টগ্রামের শান্তি নিকেতন হিসেবে পরিচিত। ১৯৭৪ সালে পার্বত্য চট্টগ্রামের অনাথ ও দুস্থ শিশুদের আশ্রয় দিয়ে পড়ালেখার জন্য এটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। মোনঘর শব্দের অর্থ পাহাড়ে জুম চাষের জন্য চাষিদের থাকার অস্থায়ী আশ্রয়স্থল। যতদিন পর্যন্ত চাষিরা জুমের ধানের বীজ থেকে অন্যান্য ফলন মোনঘরে তুলতে পারবেন ততদিন পর্যন্ত সেখানে থেকে কাজ চালিয়ে যাবেন। দুস্থ ও অনাথ শিশুদের আশ্রয় দিয়ে তাদের মানুষের মতো মানুষ হিসেবে গড়ে তোলাই মোনঘর শিশু সদনের কাজ। গাছপালা ঘেরা ভবন, বৌদ্ধ মন্দিরসহ দেখার অনেক কিছু রয়েছে এখানে। তবে মোনঘর শিশু সদনের ভেতরে যেতে চাইলে আগে কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে। শহর থেকে অটোরিকশা ভাড়া করে এখানে আসা যাবে। হাতে সময় থাকলে এখান থেকে স্বল্প দূরত্বের হ্যাচারি ঘাট এলাকায় সবুজ বৃক্ষরাশি ঘেরা পুলিশ লাইনের সুখী নীলগঞ্জ, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের তত্ত্বাবধানে নির্মিত বোটানিক্যাল গার্ডেন ও মিনি চিড়িয়াখানাও ঘুরে আসতে পারেন।
রাঙামাটি শহরের জিরো পয়েন্টে কর্ণফুলী হ্রদের গা ঘেঁষে রাঙামাটি জেলা প্রশাসকের বাংলো। সংযোগ সড়ক ছাড়া বাংলোর তিনদিকেই ঘিরে রেখেছে হ্রদের বিন্তীর্ণ জলরাশি। বাংলোর পাশে ছোট টিলার উপরে রয়েছে একটি বাতিঘর ও কোচপানা নামক ছাউনী, যা সেতু দ্বারা বাংলোর সাথে সংযুক্ত। সেতু এবং ছাউনী থেকে পর্যটক ও দর্শনার্থীগণ অকাতরে হ্রদের রূপ-সুধা অবগাহণ করতে পারে। রাঙামাটি শহরের যে কোন স্থান হতে অটোরিক্সাতেও এখানে আসা যায়। তবে বাংলো এলাকায় প্রবেশের জন্য অনুমতি আবশ্যক।
রাঙামাটির প্রবেশ দ্বারেই দৃষ্টি কাড়ে উপজাতীয় যাদুঘর। ১৯৭৮ সালে যাত্রা শুরু এটির। ২০০৩ সালে নতুন ভবন নির্মিত হলে তা আরো সমৃদ্ধ হয়। এ যাদুঘরে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত জাতিসত্তাসমূহের ঐতিহ্যবাহী অলংকার, পোষাক-পরিচ্ছদ, বাদ্যযন্ত্র, ব্যবহার্য তৈজষপত্র, অস্ত্র-শস্ত্র, প্রাচীন মুদ্রা, প্রাচীন ধর্মীয় গ্রন্থ, পুঁতিপত্র, তৈলচিত্র ও উপজাতীয় জীবনধারার বিভিন্ন আলোকচিত্র রয়েছে। যাদুঘরটি সকলের জন্য উম্মুক্ত হলেও এখানে ঢুকতে মাত্র পাচঁ টাকা টিকেট কেটে প্রতিজন ভেতরে ঢুকতে পারবেন।
জল বিদুৎ প্রকল্প ও কাপ্তাই জাতীয় উদ্যান
১৯৬০ সালে জল বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনে কাপ্তাই বাঁধ নির্মাণের ফলে কর্ণফুলী হ্রদের সৃষ্টি হয়। কৃত্রিম এ হ্রদের আয়তন ২৯২ বর্গমাইল। এই জল বিদুৎ কেন্দ্রের ভেতরে যেতে হলে সরকারি সংশ্লিষ্ট দপ্তরের অনুমতি আবশ্যক, অথবা সেখানে কর্মরত নিরাপত্তা বাহিনীর মাধ্যমে অনুমতি নেওয়া প্রয়োজন। এই ক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে, কোনো অবস্থাতে ভেতরে প্রবেশ করার সময় সাথে ক্যামেরা নেওয়া যাবেনা, এবং রাষ্ট্রীয় সম্পদের ক্ষতি সাধন এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকতে হবে।
এছাড়া তের হাজার একর এলাকা নিয়ে কর্ণফুলী নদীর কোল ঘেঁষে গড়ে তোলা হয়েছে ‘কাপ্তাই জাতীয় উদ্যান’। এখানেও সারি সারি পাহাড় আর প্রকৃতির অপূর্ব সমন্বয়। বিচিত্র বন্যপ্রাণী ও পাখ-পাখালির অবাধ বিচরণ ক্ষেত্র। বনের ভেতর সারি সারি সেগুন, জারুল, গামার আর কড়ই গাছের মাঝে পায়ে হেটে চলা পর্যটকদের অফুরন্তু আনন্দের খোরাক। কাপ্তাই জাতীয় উদ্যানে রয়েছে বন বিভাগের দু’টি বিশ্রামাগার। বিশ্রামাগারের চারপাশে নদী, পাহাড় আর সবুজের সহাবস্থান। রাঙামাটি সদর হতে এর দূরত্ব আনুমানিক ৩৫ কিলোমিটার। উদ্যানে যেতে হলে চট্টগ্রাম হতে সরাসরি কাপ্তাই যেতে হবে অথবা রাঙামাটি এসে শহরের আসামবন্তি থেকে অটোরিক্সা ভাড়া করেও যাওয়া যায়।
এছাড়া আসাম বন্তি-কাপ্তাই হ্রদ সড়কটি চালু হওয়ার পর এটিও বাড়িয়েছে রাঙামাটির সৌন্দর্য। এ সড়ক দিয়ে যেতে চোখে পড়বে উপজাতি গ্রামসহ উঁচু-নিচু পাহাড় ও কাপ্তাই হ্রদের অপরূপ দৃশ্য। আবার সড়কের আসামবন্তি এলাকায় রয়েছে অপরূপ সেতু। বিকেলে ওই সেতুতে বসে কাপ্তাই হ্রদ ও সূর্যান্তের দৃশ্য অবলোকনের অনুভূতিটাই অন্যরকম। এ সড়ক দিয়ে কাপ্তাই উপজেলায়ও যাওয়া যায়। সিএনজি অটোরিকশাযোগে যেতে সময় লাগবে আধা ঘণ্টা থেকে পৌনে এক ঘণ্টা। ভাড়া পড়বে সাত থেকে আটশ টাকা। কাপ্তাইয়ে কর্ণফুলী নদীর দু’পাশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যও মন পাগল করে দেবে।
বীরশ্রেষ্ঠ ল্যান্স নায়েক মুন্সি আবদুর রউফ মুক্তিযুদ্ধের সময় উপজেলা নানিয়ারচরের বুড়িঘাটে শহীদ হন। স্থানীয় এক পাহাড়ি তাকে ওই স্থানে কবর দেন। পরে রাঙামাটির বিডিআর (বর্তমানে বিজিবি) ওই স্থানে স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করে। সেটি দেখতে হলে দেশীয় ইঞ্জিনচালিত বোট বা স্পিড বোট ভাড়া করে যেতে হবে।
এছাড়া রাঙামাটি শহরের বাইরেও বিভিন্ন উপজেলায়ও সম্ভাবনাময় অসংখ্য পর্যটন স্পট রয়েছে। এগুলোর বেশিরভাগের অবস্থান দুর্গম এলাকায়। এর মধ্যে বাঘাইছড়ির পাবখালী অভয়ারণ্য, সাজেক ভ্যালি, বিলাইছড়ির রাইনক্ষ্যং হ্রদ বা বগা লেক, চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের ঘাগড়ার হাজাছড়ি এলাকার প্রাকৃতিক ঝরনা, মগবানের বাংলাদেশ নৌবাহিনীর এলাকায় মনোরম পিকনিট স্পট অন্যতম।
রাঙামাটি জেলার সবচেয়ে বেশি পর্যটন স্পট রয়েছে বরকল উপজেলায়। এই উপজেলায় ছোট-বড় ৮টি ঝর্ণা রয়েছে। এছাড়া এখানে অবস্থিত রয়েছে ঐতিহ্যবাহি ফালিতাঙ্গ্যা চুগ। রাঙামাটি শহর থেকে নৌপথে বরকলের দূরত্ব প্রায় ৪৫ কিলোমিটার। সেখানে যেতে হলে শুভলং বাজার থেকে পূর্বদিকে কর্ণফুলী নদীর উজানের দিকে এগুতে হবে। শুভলং বাজারে পাশেই কয়েকটি নদী মিলিত হয়েছে। এর মধ্যে দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে এসেছে জুরাছড়ি এবং উত্তর-পূর্ব দিক থেকে এসেছে মাইনী ও কাচলং নদীর মিলিত স্রোতধারা। কর্ণফুলী নদীর বুক চিরে বরকল যাওয়ার পথে নদীর দু’ধারে দেখা যাবে উঁচু-নিচু অসংখ্য পাহাড় ও উপজাতি গ্রাম। বরকল উপজেলা সদর ফালিত্যাঙ্গা চুগের পাদদেশে অবস্থিত। সেখানে রয়েছে বরকল উপজেলা প্রশাসনের কার্যালয়, বাজার ও বিজিবি জোন। আগে স্থানীয় লোকজন ফালিত্যাঙ্গা চুগকে অভিহিত করত পাকিস্তান টিলা নামে। ১৯৭১ সালে পাক সেনারা এ পাহাড়ে বড় বড় বাঙ্কার খুঁড়ে আশ্রয় নিয়েছিল বলেই এর নাম হয় পাকিস্তান টিলা। ফালিতাঙ্গ্যা চুগ রাঙামাটির সবচেয়ে সুউচ্চ পর্বত। এর উচ্চতা এক হাজার ৬৬৮ ফুট। এ পাহাড়ের উপর থেকে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত উপভোগ করা যায়। একই সঙ্গে দেখা যায় ভারতের মিজোরাম র