সিরাজগঞ্জে ওষুধ ব্যবসায়ীদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি, | সোমবার, অক্টোবর ৫, ২০১৫

সিরাজগঞ্জে ওষুধ ব্যবসায়ীদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট
মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখার দায়ে সিরাজগঞ্জের কালিবাড়ির এক ফার্মেসি থেকে জরিমানা আদায় ও ভ্রাম্যমাণ আদালতে ওষুধ ব্যবসায়ীকে কারাদ- দেয়ার প্রতিবাদে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট ডেকেছে ওষুধ ব্যবসায়ীরা।

রবিবার বিকালে শহরের কালিবাড়ী রোডে ডায়মন্ড মেডিকেল হলে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। সাজাপ্রাপ্ত রাকিবুল ইসলাম রোডের ডায়মন্ড মেডিকেল হলের স্বত্বাধিকারী মোতাহারুল ইসলামের ছেলে।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাসলিমা মুস্তারীন জানান, বিকালে কালিবাড়ী এলাকায় ডায়মন্ড মেডিক্যাল হল ও শুভ্র মেডিক্যাল হলে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখার দায়ে ৮ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এ সময় ডায়মন্ড মেডিকেল হলের মালিকের ছেলে রাকিব আদালতকে অসহযোগিতা করলে তাকে দ-বিধি আইনে ২ দিনের বিনাশ্রম কারাদ- দেয়া হয়।

এদিকে ওষুধ ব্যবসায়ীর কারাদ- ও জরিমানা করার প্রতিবাদে বিকাল থেকেই অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে জেলা ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতি। ইতিমধ্যেই মাইকযোগে তা প্রচার করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ ড্রাগিস্ট এন্ড কেমিস্ট সমিতির সিরাজগঞ্জ শাখার সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান দুলু জানান, সাজাপ্রাপ্ত ব্যবসায়ীকে নিঃশর্তভাবে মুক্তি না দিলে শুধু পৌরসভা নয় আগামীতে পুরো জেলার ওষুধের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হবে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের ওষুধ খেয়ে তো কেউ মারা যায়নি। তবে বার বার কেন ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে জরিমানা নেয়া হচ্ছে।

তারা অভিযোগ করেন, ড্রাগ সুপার আমাদের কাছে চাঁদা দাবি করে। চাঁদা না দেয়ায় প্রশাসনকে দিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ওষুধ ব্যবসায়ীদের হয়রানি করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে জেলা ড্রাগ সুপার মোঃ আব্দুর রশিদ তার বিরুদ্ধে চাঁদা দাবির অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি এখানে এসেছি দেড় মাস ধরে। কারও সাথে পরিচয়ই এখনো হয়নি। চাঁদা দাবির প্রশ্নই ওঠে না। আর মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে জেলা প্রশাসন, সেখানে আমাদের কোন ভূমিকা নেই।