পঞ্চগড়ে একটি সেতুর অভাবে লক্ষাধিক মানুষের দূরভোগ।

ডেস্ক | শুক্রবার, নভেম্বর ৬, ২০১৫
পঞ্চগড়ে একটি সেতুর অভাবে লক্ষাধিক মানুষের দূরভোগ।

একটি সেতু নিরব জনপথের প্রাণ আনতে পারে”এমনই পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার মাড়েয়ায় করতোয়া নদীর উপর সেতু না থাকায় দুটি ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছে। ব্যাহত হচ্ছে আইন শৃঙ্খলার। যোগাযোগ ব্যবস্থার বিছিন্ন হওয়ায় শিক্ষা,স্বাস্থ্য, ব্যবসা বাণিজ্যে সফলতার মুখ দেখতে পাচ্ছেনা এসব এলাকায় থাকা লোকজন।

বিভিন্ন কাজের প্রয়োজনে উপজেলা সদরে যেতে নৌকাই তাদের একমাত্র ভরসা। পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের মধ্যে ৮টি ইউনিয়নের সাথে উপজেলা ও জেলা সদরের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো থাকলেও একটি সেতুর অভাবে কালিয়াগঞ্জ ও বড়শশী ইউনিয়নের যোগাযোগ ব্যবস্থা দীর্ঘদিন থেকে ভঙ্গুর।

ইউনিয়ন দুটির মাঝদিয়ে বয়ে চলা করতোয়া নদীর ওপর সেঁতু না থাকায় তাদের যোগাযোগ ব্যবস্থায় করুণ দশার সৃষ্টি হয়েছে। শুষ্ক মৌসুমে স্থানীয় লোকজন কোন রকমে পারাপার হতে পারলেও বর্ষা মৌসুমে ওই দু’ইউনিয়নের মানুষের দুর্ভোগের সীমা থাকেনা। একই কারণে ওই দু’ইউনিয়নে

উন্নয়নের ছোয়াও তেমন একটা চোখে পড়েনা। যোগাযোগ ব্যবস্থার করুণ দশার কারণে স্থানীয় কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ফসল বাজারজাত করতে সমস্যায় পড়ছে। এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি, বর্তমান উন্নয়নমূখী সরকার অবহেলিত ও পিছিয়েপড়া এ এলাকার মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে দ্রুত করতোয়া নদীর ওপর ব্রীজ নির্মান করবেন।

বড়শশী ইউনিয়নের মিন্টু ও নাজিরগঞ্জে আব্দুল খালেক বলেন, গত কয়েক বছর ধরে নদীতে ব্রীজের জন্য শুধু মাপযোগ হচ্ছে কিন্তু সেই ব্রীজ শুধু স্বপ্নেই দেখছি বাস্তবে ব্রীজ হচ্ছেনা।
পঞ্চগড় মকবুলার রহমান সরকারী কলেজের শিক্ষার্থী শান্ত জানান, কলেজে গেলে না খেয়েই বের হতে হয়। নদীর ওপর ব্রীজ না থাকায় অতিরিক্ত ৩ থেকে ৪ ঘন্টা সময় ব্যয় করতে হয়। তাই এই নদীর উপর একটি ব্রীজ নির্মাণ করার জন্য সরকারের নিকট জোর দাবী জানাচ্ছি।

কালিয়াগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলার রহমান এ প্রতিবেদককে জানান, কালিয়াগঞ্জ ও বড়শশী ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ একটি ব্রীজের জন্য দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। চিকিৎসা, শিক্ষা, ব্যবসা সকল ক্ষেত্রে আমরা পিছিয়ে পড়ছি। সরকার বাহাদুরের কাছে আকুল আবেদন এই মাড়েয়ার নদীর উপর ব্রীজ  নির্মানের জন্য অতিসত্তর আবেদন করবো।