অবৈধ ভাবে উচ্ছেদ করায় তশিলদার অবরুদ্ধ

জাভেদ, শরীয়তপুর: | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী ১১, ২০১৬
অবৈধ ভাবে উচ্ছেদ করায় তশিলদার অবরুদ্ধ
শরীয়তপুর পালং ভূমি অফিসের তহশিলদার মোঃ শহিদুল ফকির অবৈধ ভাবে বিনা নোটিশে উচ্ছেদ করার সময় স্থানীয়রা প্রায় ২ঘন্টা অবরুদ্ধ করে রাখে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় কোর্ট এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। জমির মালিকেদের দাবী তাদের মালিকানা জায়গার টিনের বাউন্ডারী অবৈধ ভাবে ভাঙ্গা হয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শরীয়তপুর কোর্ট এলাকায় ৭৯ নং তুলাসার মৌজার এস.এ ৪৪৪ ও ৫৪৪ নং খতিয়ানের ৬৭১,৬৭২ ও ৬৭৩ নং দাগের জমির মালিক এড. মুরাদ হোসেন মুন্সি, এড.হুমায়ন কবির, মোঃ আলতাব হোসেন বেপারী, মোঃ মফিজ উদ্দিন বেপারী ও ইউনুছ আলী সরদার টিনের বাউন্ডারী দিয়ে ৫ জন দখলে রয়েছেন। কিন্তু শরীয়তপুর পালং ভূমি অফিসের তহশিলদার শহিদুল ফকির কোন প্রকার লিখিত বা মৌখিক নোটিশ না দিয়ে ভাঙ্গতে শুরু করে। এসময় স্থানীয়রা সহ জমির মালিকরা তহশীলদারকে প্রায় ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত আটকে রাখে। পরে জেলা প্রশাসকের কার্যলয়ের ৩য় শ্রেণী কর্মচারী সমিতের সভাপতি মোঃ মানিক হাওলাদার এসে তাকে ছাড়িয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যলয়ে নিয়ে যান। এই জমির কিছু অংশ এস.এ ৪৪৪ নং খতিয়ানের ৬৭১ নং দাগের ১ শতাংশ, ৬৭২ নং দাগের ৩ শতাংশ এবং ৫৪৪ নং খতিয়ানের ৬৭৩ নং দাগের ৪ শতাংশ সহ মোট ৮ শতাংশ জমি ভূমি অধিগ্রহন করে জেলা প্রশাসকের কার্যলয়ের বাউন্ডারী ওয়ালদ্বারা সিমানা দেয়া রয়েছে।

পালং ভূমি অফিসের তহশীলদার শহিদুল ফকিরের কাছে জানতে চাইলে এ বিষয়ে তিনি কোন কথা বলতে হননি।

এ বিষয়ে জমির মালিক এড.মুরাদ হোসেন মুন্সী বলেন, আমাদের মালিকানা জায়গা তহশীলদার অন্যকারো স্বার্থ হাসিলের জন্য বিনা নোটিশে ভাঙ্গে দিয়েছে। আমার জায়গার কাগজ পত্রে কোন ভূলক্রটি নেই, যদি থাকে তাহলে আমি জায়গা জেলা প্রশাসককে দিয়ে দিব। আমি বার বার বলেছি অবৈধ জায়গা হলে আপনারা নিয়ে যান।

তার পরেও আমাদের নোটিশ না দিয়ে তশিলদার অবৈধ ভাবে শহিদুল ফকির আমার বাউন্ডারীর টিনের বেড়া ভেঙ্গে ফেলে দেয়। তাই তাদের কার্যকলাপ দেখে স্থানীয় জনতা তাকে অবরুদ্ধ করে রাখে।

এ ব্যপারে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ভিখারুদ্দৌলা চৌধুরী বলেন,  আমি ঢাকায় মিটিং এ আছি শরীয়তপুর এসে বিষয়টি দেখে পদক্ষেপ নিব।