বাঁচানো গেল না জোড়া লাগানো শিশু দুটিকে

বগুড়া প্রতিনিধি | শনিবার, এপ্রিল ৯, ২০১৬
বাঁচানো গেল না জোড়া লাগানো শিশু দুটিকে
বাভাবিক মানুষের মতই তাদের ছিল দুটি মাথা ও দুটি হাত। তবে বুক থেকে পেট পর্যন্ত একে অন্যের সঙ্গে জোড়া লাগানো ছিলো। এছাড়া শরীরের সব অঙ্গপ্রতঙ্গ আলাদা হলেও হৃদপিন্ড ছিলো একটি। এ অবস্থায় পৃথিবীর বুকে ভূমিষ্ট হয় দুটি শিশু। কিন্তু জন্মের এক ঘণ্টা যেতে না যেতেই তার চলে যেতে হয় না ফেরার দেশে।

গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে বগুড়া ইসলামী হাসপাতালে সফল অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে এক হৃৎপিন্ড বিশিষ্ট জোড়া কন্যা সন্তানের জন্ম দেন জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার বিনাই গ্রামের রফিকুল ইসলামের স্ত্রী ফাতেমা বেগম। বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (শজিমেক) শিশু বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল চিকিৎসক সফল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন করেন। কিন্তু অস্ত্রোপচারের এক ঘণ্টা পর মুত্যৃর কোলে ঢলে পড়ে শিশু দুটি।

ইসলামী হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. আশরাফ আলী বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, দু’টি শিশুর দেহে একটি মাত্র হৃদপিন্ড ছিলো। পরীক্ষার পর সেই হৃদপিন্ডেও ফুটো ধরা পড়ে। ফলে জন্মের পর থেকে তারা ভালভাবে শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে পারছিল না। এ কারণে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেও শিশু দু’টিকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। তবে শিশুদের মা সুস্থ আছেন বলে জানান তিনি।