শরীয়তপুরে গৃহবধুর গলাকাটা লাশ উদ্ধার

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: | বৃহস্পতিবার, মে ১৯, ২০১৬
শরীয়তপুরে গৃহবধুর গলাকাটা লাশ উদ্ধার
শরীয়তপুরের গোসাইরহাটে ফকিরের বাড়িতে কল্পনা বেগম (২৬) নামে এক গৃহবধুর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার উপজেলার নাগেরপাড়া ইউনিয়নের ছোট কাচনা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। নিহত কল্পনা বেগম বারিশাল জেলার মুলাদী উপজেলার উত্তর বালিয়াতলী গ্রামে সজল বেপারী স্ত্রী ও একই গ্রামের মজিত বেপারির মেয়ে। এঘটনায় পুলিশ প্রাথমিক জিঙ্গাসাবাদের জন্য ফকির আনাস উদ্দিন, নিহতর মা বকুলি ও স্বামী সজল বেপারীকে আটক করা হয়েছে। এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘ দিন যাবৎ পেটে ব্যাথা নিয়ে অসুস্থতায় ভুগছে নিহত কল্পনা বেগম। বরিশাল থেকে চিকিৎসার জন্য জেলার গোসাইরহাটের ছোট কাচনা গ্রামে আনোয়ার হোসেন সরদার ওরফে আনাস উদ্দিন ফকিরের বাড়ি বুধবার সন্ধ্যায় জ্বিনে ধরছে ভেবে চিৎকিসার জন্য আসেন। রাত ১২টার দিকে ফকির আনাস উদ্দিন নিহত গৃহবধুকে গোসল করিয়ে দিয়ে পাশের ঘরে রাত যাপনের ব্যবস্থা করেন। গভির রাতে নিহতের মা বকুলি বেগমের ঘুম ভাঙ্গলে মেয়েকে পাশে না পেয়ে ঘরের আলো জ্বালিয়ে দেখি পূর্ব দিকের দরজার পাশে গলাকাটা অবস্থায় ছটফট করছে। তবে পুলিশের ধারন, এটি একটি আত্মহত্যা। যন্ত্রনা সইতে না পেরে নিজেই দাঁ দিয়ে গলা কেটে আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু এই ঘটনায় প্রাথমিক জিঙ্গাসাবাদের জন্য গোসাইরহাট থানা পুলিশ ফকির আনাস উদ্দিন, নিহতর মা বকুলি ও স্বামী সজল বেপারীকে আটক করে থানায় নিয়ে গেছে। এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যকর অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

এব্যপারে গোসাইরহাট থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোফাজ্জল হোসেন বলেন, ফকিরের বাড়িতে নিহতের পরিবার চিকিৎসা করতে এসেছিলেন, নিহত কল্পনা যন্ত্রনা সইতে না পেরে আত্মহত্যা করেছে বলে নিহতের মা জানিয়েছে। তবে প্রাথমিক জিঙ্গাসাবাদের জন্য ফকির আনাস উদ্দিন, নিহতর মা বকুলি ও স্বামী সজল বেপারীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে ঘটনা সম্পর্কে জানা যাবে। আত্মহত্যা করেছে সেই দাঁ টি উদ্ধার করা হয়েছে।