ঠাকুরগাঁওয়ে জমে উঠেছে ঈদ বাজার

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি ॥ | মঙ্গলবার, জুন ২১, ২০১৬
ঠাকুরগাঁওয়ে জমে উঠেছে ঈদ বাজার
-উল-ফিতরের আর মাত্র ১৩/১৪ দিন বাকি আছে। এরই মধ্যে জমে উঠেছে ঠাকুরগাঁওয়ের ঈদ বাজার। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত অর্ধ শতাধিক মার্কেটের সবগুলো ক্রেতায় পরিপূর্ণ হয়ে আছে। বিক্রেতাদের যেনো দম ফেলানোর ফুসরত নেই।

এবার আবহাওয়া ভালো থাকায় ব্যবসা ভালো হবে বলে মনে করেন ব্যবসায়ীরা। মার্কেটে আসা ক্রেতাদের নিরাপত্তার স্বার্থে ঠাকুরগাঁও বাজারে সার্বক্ষণিক থানা পুলিশের সিভিল টিম, নারী পুলিশ টিম ও ইউনিফর্ম টিম টহল দিয়ে যাচ্ছে।

ঠাকুরগাঁও বাজার ঘুরে দেখা যায়, এবারের ঈদ বাজার ইতোমধ্যে পুরোপুরি জমে উঠেছে। চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে মার্কেটগুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় শুরু হয়েছে। এর আগে অতিবৃষ্টিতে বিক্রি কিছুটা ভাটা পড়েছিলো। এখন সকাল ১০টা থেকেই বিক্রিতে ধুম লেগে যায় বাজারের ছোট বড় সকল দোকানে।

ঠাকুরগাঁও বাজারে দু'ধাপে মার্কেটগুলোতে বিক্রি হয়। দিনের প্রায় পুরো সময়টা দূরের ক্রেতারা বাজার দখল করে রাখে। স্থানীয়রা কিংবা দূরের যারা বাজারের আশপাশে ভাড়া থাকেন এ জাতীয় ক্রেতারা মার্কেটে আসেন সন্ধ্যার পরে। যার কারণে ঠাকুরগাঁও বাজারে দিনে ও রাতে সমানতালে বিক্রি হয় মার্কেটগুলোতে। এ ভিড় সাধারণত কাপড় ও গার্মেন্ট দোকানগুলোতে বেশি পড়ে।

ব্যবসায়ীদের সূত্রে জানা যায়, বর্তমান সময়টাতে প্রবাসীদের পরিবার এখন ঈদ মার্কেটে ভিড় করছে বেশি। গার্মেন্টস্ আইটেম, কাটা কাপড়ের দোকান আর কাপড়ের দোকানগুলোতে পুরোপুরি ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আবার জুতোর দোকানগুলোতে ঈদের ক্রেতায় পরিপূর্ণ হয়ে আছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, গত এক বছরের মধ্যে ঠাকুরগাঁও বাজারে নতুন করে বেশ ক'টি মার্কেট চালু হয়েছে। এ সকল মার্কেটের অধিকাংশ দোকান গার্মেন্টস্ আইটেম সম্বলিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নিয়ে চালু হয়েছে। ঠাকুরগাঁও মাসুদ হাইটস মার্কেট, শাহজালাল মার্কেট, আমাদের বাজার মার্কেটসহ আরো ক'টি মার্কেট সম্প্রতি চালু হয়েছে। এ মার্কেটগুলোর অধিকাংশ ব্যবসা এক্রোপর্ট আইটেমের কাপড়ে ভরপুর।

ঠাকুরগাঁও চৌরাস্তায় কাপরের দোকান ঘোমটার প্রোপাইটার বিপুল জানান, এর আগে স্টার জলসার বিভিন্ন নাটকের নায়িকাদের নাম করে কাপর বিক্রয় হয়। এতে এক দুইটা মডেল ছাড়া বিক্রয় হয় নাই। তাই এবার কোন মেয়েদের কাপরের নাম দেওয়া হয় নাই। এবার সব লং থ্রি পিচ বলে বিক্রয় করা হচ্ছে।

ঠাকুরগাঁও গনেশ বস্ত্রালয়ের মালিক উৎপল জানান, এখনো ঈদের ২০ দিন বাকি আছি। কিন্তু বাজারে অনেক ভির। কাটা কাপড় এখন বেশি বিক্রয় হচ্ছে। কাপড় সেলাইয়ের জন্য এখন মেয়েরা বেশি থ্রি পিচ ক্রয় করছে। পরে আবার টেইলার কাপড় সেলাই করবে না বলে এই চাপ।

ঠাকুরগাঁও আমাদের বাজার মার্কেটের আঁচল ফ্যাশনের প্রোপাইটার মালতি রায় জানান, আমাদের এখানে দেশী-বিদেশি মেয়েদের পোশাকের বিপুল সমারোহ রয়েছে। গত ক'দিনে বিক্রি অনেক বেড়েছে। ঈদের বাজার জমে উঠেনি। তবে বিক্রি ভালো হচ্ছে। মেয়েদের আইটেম সেলাই করার ভেজাল থাকার কারনে মেয়েরা বেশি ভির করছে আগে।

বাজারের ক্রেতা ও বিক্রেতাদের নিরাপত্তার কথা মাখায় রেখে ঠাকুরগাঁও থানা পুলিশের বেশ ক'টি টিম পুরো বাজারে দিনরাত দায়িত্ব পালন করছে বলে জানান ঠাকুরগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ মশিউর রহমান। তিনি আরো জানান, আমাদের পুলিশ এবারে ঠাকুরগাঁও বাজারে তিনভাগে বিভক্ত হয়ে কাজ করছে। এর মধ্যে নারী পুলিশের টিম, সিভিল পুলিশের টিম এবং ইউনিফর্ম টিম সমান তালে কাজ করছে।