খুলনায় বিদেশিদের নিরাপত্তায় পুলিশের বদলে আনসার

ব্যুরো প্রধান, | মঙ্গলবার, আগস্ট ২, ২০১৬
খুলনায় বিদেশিদের নিরাপত্তায় পুলিশের বদলে আনসার
জেলার রূপসা উপজেলার তিলক ও পাথরঘাটা এলাকায় খুলনা ওয়াসার পানি শোধনাগার নির্মাণ প্রকল্পে বিদেশি বিশেষজ্ঞদের নিরাপত্তায় পুলিশের বদলে আনসার নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। এই অবস্থায় বিদেশিদের নিরাপত্তা নিয়ে এক ধরনের উদ্বেগ তৈরি হয়েছে।

খুলনার রূপসা উপজেলার তিলক এলাকায় ৩৭ একর এবং পাথরঘাটা এলাকায় ২৭ একর জমির উপর খুলনা ওয়াসার দুইটি প্রকল্পের কাজ চলছে। এতে চায়না হারবার কোম্পানির ৪০ জন চীনা নাগরিক কাজ করছেন।

অথচ গত জুলাইয়ে খুলনার জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় ৪০ বিদেশির নিরাপত্তায় পুলিশের বদলে আনসার নিয়োগের সিদ্ধান্ত হয়। সভায় অংশগ্রহণকারীরা জানান, পর্যাপ্ত পুলিশ না থাকায় এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছেন তারা।

গত ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় ১৭ বিদেশি নিহতের পর বিভিন্ন প্রকল্পে কাজ করা বিদেশিদের নিরাপত্তার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে সরকার। প্রয়োজনে এ জন্য বিশেষ বাহিনী মোতায়েনের কথা বলেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। এই অবস্থায় খুলনায় বিদেশিদের নিরাপত্তায় পুলিশের বদলে আনসার সদস্য মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

খুলনা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম আব্দুল্লাহ জানান, তিলক থেকে ৫৭ কিলোমিটার দূরে গোপালগঞ্জের মধুমতি নদী থেকে পাইপলাইনের মাধ্যমে খুলনা নগরবাসীর প্রয়োজনীয় পানি আনতে মেগা প্রকল্প নেয়া হয়েছে। জাইকার অর্থায়নে দুই হাজার সাতশ কোটি টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্পের কাজ চলছে। চায়না হারবার কোম্পানি এই প্রকল্পে কারিগারি সহায়তা দিচ্ছে।

রূপসা উপজেলার কুদির বটতলার কাছে একটি ক্যাম্প করে বিদেশিরা অবস্থান করছেন। এখন পর্যন্ত তাদের নিরাপত্তা দিচ্ছে পুলিশ।

সম্প্রতি খুলনা ওয়াসার চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী তালুকদার আব্দুল খালেক এই প্রকল্পস্থান পরিদর্শন করে বিদেশিদের নিরাপত্তার বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারপরই বিদেশিদের নিরাপত্তার জন্য দশজন পুলিশ নিয়োগ করা হয়।

এই প্রকল্পের ব্যবস্থাপক খান সেলিম আহমেদ জানান, ‘সেখানে আপতত পুলিশ রয়েছে। শিগগিরই সেখানে বিদেশিদের নিরাপত্তার জন্য আনসার নিয়োগ করা হবে। আগামী বছরের ডিসেম্বর নাগাদ বিদেশিরা প্রকল্প এলাকায় অবস্থান করবেন।’

প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানান, গত মাসে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা কমিটির বৈঠকে পুলিশ সুপার হাবিবুর রহমান বিদেশিদের নিরাপত্তার জন্য অস্ত্রসহ আনসার নিয়োগের পরামর্শ দেন। আর তার ওই পরামর্শ গৃহীত হয় সভায়।

খুলনায় আনসারের সার্কেল এডজুটেন্ট ওসমান গনি ঢাকাটাইমসকে জানান, ওয়াসার চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে দশজন সশস্ত্র আনসার প্রকল্প এলাকায় নিয়োগ করা হবে। নীতিমালা অনুযায়ী এখানে একটি অস্থায়ী ক্যাম্পও থাকবে। তাদের বেতন ভাতা ওয়াসা কর্তৃপক্ষকে বহন করতে হবে।

ওই সভায় দাকোপ, ডুমুরিয়া ও বটিয়াঘাটা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন। তারা জানান, এসব উপজেলায় বিশ্বব্যাংকের প্রকল্পে এবং এনজিওগুলোতে কতজন বিদেশি কর্মরত আছেন তার তথ্য উপজেলা প্রশাসনের কাছে নেই। বিদেশিরা কোন গ্রামে অবস্থান করছেন, কখন কাজ করছেন, তার তথ্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দপ্তরে নেই।