সাদুল্যাপুরে স্বামীরবাড়িতে শিশু পুত্র স্ত্রী নির্যাতনের শিকার-আটক ১

গাইবান্ধা প্রতিনিধি, | রবিবার, আগস্ট ২১, ২০১৬
সাদুল্যাপুরে স্বামীরবাড়িতে শিশু পুত্র স্ত্রী নির্যাতনের শিকার-আটক ১
গাইবান্ধার সাদুল্যাপুরে স্বামীরবাড়িতে মরিয়ম বেগম (২৬) নামে এক গৃহবধূকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ছয় দিন ধরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাংবাদিকদের জানান,  দেবর-ননদ, শ্বশুর-শাশুড়ির হাতে শিশু পুত্র মাহফুজসহ (৬) নির্যাতিত হয়েছেন তিনি।

মরিয়ম বেগম জয়েনপুর গ্রামের রইচ উদ্দিনের স্ত্রী ও পার্শ্ববর্তী গাইবান্ধা সদর থানার কুপতলা ইউনিয়নের দূর্গাপুর গ্রামের আব্দুল মজিদ মিয়ার মেয়ে।

শনিবার পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, বিয়ের পর থেকেই মরিয়মকে তালাক দেয়ার জন্য শ্বশুর,শাশুড়ি, দেবর ও ননদরা চাপ দেন। কিন্তু তার স্বামী বিষয়টি মোটেই গুরুত্ব দিতেন না।

ঘটনার দিন সোমবার দুপুর ১২টার দিকে সাদুল্যাপুরের নিজ বাড়ির পালিত একটি গাভীর বাছুর নিয়ে ঝগড়ার সুত্র ধরে শ্বশুর, শাশুড়ি, খালা শাশুড়ি, দেবর, ভাসুর ও ননদরা মিলে তাকে গাছের ডাল ও রড দিয়ে বেদম প্রহার করে। এতে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।

এ সময় তার একমাত্র শিশু পুত্র মাহফুজ চিৎকার করলে তার ছোট চাচা রনি মিয়া শিশুটির মুখে ঘাস ঢুকিয়ে দিয়ে ডোবার পানিতে চুবিয়ে মারার চেষ্টা করে।

সাদুল্যাপুর উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন মরিয়ম বেগম বলেন, এ সময় তার স্বামী রইচ উদ্দিনকে ঘরের দরজায় তালা দিয়ে আটক রাখা হয়। রইচ উদ্দিন জানান, হৈ চৈ শুনে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে তাদের সহায়তায় তিনি তার স্ত্রী ও সন্তানকে সাদুল্যাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল চিকিৎসক ডা. হারুনুর রশিদ জানান, মরিয়ম বেগমের হাটুর উপর থেকে সারা শরীরে মারপিটে মারাত্মক জখম হয়েছে। ভালো হতে বেশ কিছুদিন লাগবে।

সাদুল্যাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ফরহাদ ইমরুল কায়েস জানান, গৃহবধূর শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারপিটের গুরুতর জখম আছে।

শুক্রবার রাতে থানায় মরিয়ম বেগম বাদী হয়ে মামলা দায়েরের পর ওই রাতেই ওই গৃহবধূর শ্বশুর সিরাজুল ইসলামকে (৫৮) আটক করা হয়েছে।