আড়াই মাসের ব্যবধানে নরসিংদীর ডিবি হেফাজতে আরো এক যুবকের মৃত্যু

নরসিংদী প্রতিনিধি, | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৬
আড়াই মাসের ব্যবধানে নরসিংদীর ডিবি
হেফাজতে আরো এক যুবকের মৃত্যু
মাত্র ২ মাস ১৭ দিনের ব্যবধানে নরসিংদীর ডিবি হেফাজতে আরেকজন যুবকের মৃত্যু ঘটেছে। তার নাম মোহাম্মদ আলী (৩০)। সে বেলাব উপজেলার দেওয়ানেরচর গ্রামের জহিরুল ইসলামের পুত্র। পুলিশ বলেছে সে ইয়াবা ব্যবসায়ী। গতকাল বুধবার দুপুরে ডিবি পুলিশের এসআই খোকন চন্দ্র সরকার তাকে ১শত ১০ পিছ ইয়াবসহ বেলাব উপজেলার দেওয়ানেরচর গ্রাম থেকে গ্রেফতার করে নরসিংদী ডিবি অফিসে নিয়ে আসে। গ্রেফতারের সময় সে নেশাগ্রস্থ ছিল। পরে অফিসে নিয়ে আসলে হঠাৎ অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। তাকে দ্রুত জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাবার পর সে মারা যায়।
পক্ষান্তরে তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম জানিয়েছেন, তার স্বামী মোহাম্মদ আলী সুস্থ ও স্বাভাবিক ছিল। ডিবি পুলিশ বিনা মামলা, বিনা ওয়ারেন্টে তাকে গ্রামের একটি কনফেকশনারী থেকে ধরে নিয়ে যায়। তাকে গ্রেফতার করার সাথে সাথেই তার উপর শারীরিক নির্যাতন চালায় পুলিশ। অফিসে নিয়ে তার কাছে মোটা অংকের টাকা দাবী করে। টাকা না দিতে পারায় তার উপর অমানুষিক নির্যাতন চালানো হয়। এতেই তার মৃত্যু ঘটেছে।
এব্যাপারে নরসিংদী জেলা হাসপাতালের চিকিৎসকদের সাথে কথা বললে তারা জানায়, প্রাথমিক তথ্য মতে শারীরিক নির্যাতনের কারণেই মোহাম্মদ আলীর মৃত্যু ঘটেছে। ময়নাতদন্তের পর তার মৃত্যুর কারণে পরিপূর্ণভাবে নিশ্চিত হওয়া যাবে।
এদিকে ডিবির ওসি সাইদুর রহমান সাংবাদিকদেরকে জানিয়েছেন, গ্রেফতারকৃত মোহাম্মদ আলী মাদকাসক্ত ছিল। গ্রেফতারের পর সে হার্টএটাকের শিকার হয়। তাৎক্ষনিকভাবে তাকে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে নেয়ার পর সেখানে তার মৃত্যু ঘটে। নিহত মোহাম্মদ আলীর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।
উল্লেখ্য যে, ২ মাস ১৭ দিন পূর্বে ডিবি পুলিশের হেফাজতে দ্বীন ইসলাম নামে নরসিংদী শহরের ভেলানগর মহল্লার এক যুবকের মৃত্যু ঘটে। এব্যাপারে তার আত্মীয়-স্বজন লিখিত অভিযোগে জানিয়েছিল যে, ডিবি পুলিশের এসআই গাফ্ফার তাকে তার বাড়ী থেকে ধরে এনে পিটিয়ে হত্যা করেছে। এব্যাপারে এলাকার লোকজন দ্বীন ইসলাম হত্যাকান্ডের বিচারের দাবীতে লাশ নিয়ে নরসিংদী প্রেস ক্লাবের সামনে মিছিল ও মানববন্ধন করে। কিন্তু পরে ঘটনাটি অজানা কারণে ধামাচাপা পড়ে যায়।