মাকে মৃত দেখিয়ে মুক্তিযোদ্ধা ভাতা আত্বসাতের অভিযোগ

বরগুনা জেলা প্রতিনিধিঃ | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৬
মাকে মৃত দেখিয়ে মুক্তিযোদ্ধা ভাতা আত্বসাতের অভিযোগ
বরগুনার তালতলী উপজেলার চামোপাড়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ মজিদ হাওলাদার (অতিরিক্ত গেজেট নং ১৯০৬) ২০১৪ সালে মারা যান। নিয়মানুযায়ী মুক্তিযোদ্ধারা মারা যাওয়ার পর তার জীবিত স্ত্রীই  একমাত্র মুক্তিযোদ্ধা ভাতা পাওয়ার কথা এবং স্ত্রী না থাকলে সন্তানেরা পাবেন। কিন্তু তার ছেলে মোঃ হুমায়ূন ছগির তার মা মোসাঃ ছফুরা খাতুনকে মৃত দেখিয়ে তথ্য গোপন করে র্দীঘদিন ধরে অবৈধভাবে টাকা উত্তোলন করে আসছে।
অনুসন্ধানে জানা যায়, অগ্রনী ব্যাংক তালতলী বাজার শাখার ৯৪৩৫ নং একাউন্টের মাধ্যমে ২০১৪ সালের জুলাই মাস থেকে অধ্যবধি পর্যন্ত অবৈধভাবে টাকা উত্তোলন করে আসছে।  তালতলী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোসলেম আলী হাওলাদার জানান হুমায়ন ছগির তার মাকে মৃত দেখিয়ে অবৈধভাবে টাকা উত্তোলন করে আসছে এ ব্যাপারে আমাদের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ আসলে কিছু সময় পর ছগিরের বড় ভাই কবির সে দরখাস্তটি নিয়ে যায়। এবং ঐ সময় মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নির্বাচন হওয়ায় আমরা এর দায়িত্বে ছিলাম না। ঐ সময়ের জন্য দায়িত্বে ছিলেন জেলা প্রশাসক মহোদয় ও তালতলী উপজেলা ইউএনও। নির্বাচন শেষে এ অসহায় মহিলার পাশে থেকে  আমরা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করব। অসহায় সফুরা বেগম জানান, আমার স্বামী মারা যাওয়ার পর আমার মেঝ ছেলে সরকারি চাকরিজীবি ছগির ও বড় ছেলে হুমায়ন কবির অবৈধভাবে আমার প্রাপ্য ভাতা আতœসাৎ করছে। হুমায়ন ছগিরের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি এ ব্যাপারে কোন কথা বলতে রাজি হননি। জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুর রশীদ জানান, উক্ত খবরটি শুনে আমি জেলা প্রশাসককে লিখিত চিঠি দিয়েছি তিনি মুক্তিযোদ্ধা ভাতাটি স্থগিত করে রেখেছেন পরবর্তী মুক্তিযোদ্ধা বিষক বৈঠকে এর সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক ড. মহা বশিরুল আলম একই কথা বলেন। আরো বলেন অন্যায়ভাবে মুক্তিযোদ্ধ ভাতা উত্তোলন করার জন্য আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।