খোলা আকাশের নিচে প্রসব: চিকিৎসক ও নার্সকে হাইকোর্টে তলব

নিজস্ব প্রতিবেদক, | বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১, ২০১৬

খোলা আকাশের নিচে প্রসব: চিকিৎসক ও নার্সকে হাইকোর্টে তলব
হাসপাতালে চিকিৎসা না পেয়ে খোলা আকাশের নিচে সন্তান প্রসবের ঘটনায় বগুড়ার শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমেপ্লক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার মোখলেসুর রহমান ও নার্স সুষমা রাণীকে তলব করেছে হাইকোর্ট। আগামী ১৪ ডিসেম্বর তাদের আদালতে হাজির হয়ে এই বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর ডিভিশন বেঞ্চ স্বঃপ্রণোদিত হয়ে এই আদেশ দেন। একই সঙ্গে ওই ঘটনার তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতেও জেলার সিভিল সার্জনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এবং আরএমও ও নার্সের বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুলও জারি করা করেছে আদালত।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, বগুড়ার জেলা প্রশাসক, এসপি, শেরপুর থানার নির্বাহী অফিসারসহ সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

‘তাড়িয়ে দিল নার্স, মাঠে প্রসব: নবজাতকের মৃত্যু' শিরোনামে একটি গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। আইনজীবী শামীম সরকার প্রতিবেদনটি আদালতে উপস্থাপন করলে হাইকোর্ট বিষয়টি আমলে নিয়ে এই আদেশ দেন।

প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, শেরপুর উপজেলার গাড়িদহ গ্রামের ইলিয়াস উদ্দিনের স্ত্রী মাজেদা খাতুন প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে মঙ্গলবার রাত ১১টায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন। রোগীর অব্স্থা দেখে জরুরি বিভাগে কর্তব্যরতরা রেজিস্ট্রার খাতায় নাম না লিখে রোগীকে নার্স সুষমা রাণীর কাছে হস্তান্তর করেন। এসময় ওই নারী রোগীর অবস্থা ভাল নয় বলে তার স্বামীকে পাশের ক্লিনিকে ভর্তি করানোর কথা বলেন। কিন্তু মাজেদার স্বামী রাজি না হলে ওই নার্স রোগীকে হাসপাতাল থেকে বের করে দেন। পরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের সামনে খোলা আকাশের নিচে কন্যা সন্তান প্রসব করেন তিনি। এর ক্ছিুক্ষণ পরই নবজাতক মারা যান। কিন্তু তাদের সেবায় কোন নার্স এগিয়ে আসেনি।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস।