শিবচরের পদ্মায় স্পিডবোর্টের সংঘর্ষের ঘটনায় একনারীসহ ৩ জনের লাশ উদ্ধার

মাদারীপুর প্রতিনিধি | রবিবার, জানুয়ারী ৮, ২০১৭
শিবচরের পদ্মায় স্পিডবোর্টের সংঘর্ষের ঘটনায় একনারীসহ ৩ জনের লাশ উদ্ধার
ঘনকুয়াশায় কাওড়াকান্দি-শিমুলিয়া নৌরুটে মুখোমুখি সংঘর্ষে দুটি স্পিডবোট ডুবির ঘটনায় নিখোজ এক নারীসহ ৩ জনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরী দল।  
উদ্ধার করা লাশ হলো বরিশাল বিমান বন্দর থানার পূর্ব রহমতপুর গ্রামের মিলন মৃধার ছেলে মনোয়ার মৃর্ধা (১৮), শিবচর উপজেলার কাঠালবাড়ি ইউনিয়নের তালতল গ্রামের আবদুর রহিম মাদবরে ছেলে ইব্রাহিম মাদবর (২০) ও ফরিদপুরের ভাঙ্গার পুলিশ কনস্টেবল হায়দার হোসেনের স্ত্রী হোসনে আরা লিপি (৩২)।
শিবচর থানার এএসআই আলামগীর হোসেন ও কাওড়াকান্দি ঘাট সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সকালে ঘনকুয়াশার মাঝেই শিমুলিয়া থেকে যাত্রীবাহী একটি স্পিডবোর্ট কাওড়াকান্দি ঘাটের কাছাকাছি আসলে কাওড়াকান্দি থেকে ছেড়ে যাওয়া অপর একটি যাত্রীবাহী স্পিডবোটের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এ সময় ৮ যাত্রী উদ্ধার হয়।
এদিকে লিপি বেগম (৩৫) নামের এক মহিলা নিখোঁজ রয়েছেন বলে ওই স্পিীডবোট যাত্রী তার ভাই সফিকুল ইসলাম  দাবি করেন। ফলে ধারনা করা হচ্ছিল একজনই নিখোজ ছিল।
কিন্তু দুর্ঘটনার খবর বিভিন্ন গণমাধ্যমে  প্রচারের পর নিখোজরদের সন্ধানে শনিবার সকালে পদ্মা পাড়ে আরো ২ জনের পরিবার  আসে। এদিকে নিখোজদের লাশ উদ্ধারে শনিবার সকাল থেকে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের শিবচর, ভাঙ্গা টিমের  সাথে ঢাকার ডুবুরী দল অভিযান শুরু করে। দুপুর সাড়ে ৪ টার দিক ঘটনাস্থল থেকে ২ যুবকের লাশ পরে এক নারীর লাশ উদ্ধার করে ডুবুরী দল।
নিহতরা হলেন বরিশালের বিমানবন্দর এলাকার মিলন মৃধার ছেলে মনোয়ার মৃধা, শিবচরের তালতলা এলাকার রহিম মাদবরের ছেলে ইব্রাহিম মাদবর, ফরিদপুরের ভাঙ্গার পুলিশ কনস্টেবল হায়দার হোসেনের স্ত্রী হোসনেআরা লিপি।
শিবচর থানার অফিসার ইনচার্জ  জাকির হোসেন মোল্লা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।