পলাশবাড়ীতে বিদ্যালয় আছে ছাত্র/ছাত্রী নেই জমিও নেই

ছদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা | বুধবার, ফেব্রুয়ারী ৮, ২০১৭
পলাশবাড়ীতে বিদ্যালয় আছে ছাত্র/ছাত্রী নেই জমিও নেই
গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার পলাশবাড়ীর মহদীপুর ক্লাস্টারধীন শ্যামপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র/ছাত্রী নেই, এমনকি বিদ্যালয়ের নিজস্ব কোন জমিও  নেই।
সাংবাদিকরা গতকাল মঙ্গলবার দুপুওে অভিযোগের ভিত্তীতে সরেজমিনে বিদ্যায়য়ে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পায়। ক্লাস রুমে শুধু সহকারী শিক্ষিকা আবিদা সুলতানা ছাড়া কেহ নাই। প্রধান শিক্ষক না থাকার কারন জানতে চাইলে তিনি জানান বিদ্যালয়ে বিদ্যুৎ সংযোগের কাজে বাইরে গেছে। ছুটি নিয়ে গিয়েছে কি না  এ ব্যাপারে শিক্ষিকা কোন মন্তব্য করেননি। অপর সহকারী শিক্ষিকা জান্নাতুল ফেরদাউসি না থাকার কারন হিসেবে জানান, সে বেতন উত্তলোন করতে গিয়েছে।
ছাত্র/ছাত্রী না থাকা বিষয়ে জানতে চাইলে বলে শিক্ষক সংকট ২.৩০ টিভিনের বিরতি ৪টা পর্যন্ত কোন ছাত্রছাত্রীর দেখা মেলেনি।
স্থানীয় শামীম জানান, এখানে লেখাপড়ার মান নিন্ম হওয়ায়  ছেলে মেয়েদের অন্য বিদ্যালয়ে ভর্তি হইছে।
বিদ্যালয়ে ২টি ক্লাস রুমে ২টি অধা ভাংগা ব্যাঞ্চ দেখা যায় দরজা ভাংগা। রুমের ভিতর গরু ছাগল ও মানুষের পায়খানা লক্ষ করা যায়।
বিদ্যালয়ের কমিটি প্রসঙে জানতে চাইলে তিনি কিছু জানেনা বলে জানান। বিদ্যালয়ে জায়গা না থাকা বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কিছুই জানে ন বলে জানান।
অভিযোগকারী শ্যামপুর ওয়াকফ এষ্টেট-এর মোতায়ল্লী ছাদেকুল ইসলাম রুবেল জানান, বিদ্যালয়টি ওয়াকর্ফ এস্টেট ভুক্ত জমির মধ্যে( জি এল ১০৮ খতিয়ান ১৮৩ দাগ নং ৪০৪)। বিদ্যালয় কর্তপক্ষকে বারবার মৌখিক ও লিখিত ভাবে জমি এস্টেট বরাবর বুঝিয়ে দিতে বললে তারা সময়কালক্ষেপন করে। এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছে বলে সাংবাদিকদের জানান।