মেয়ের অভিযোগে পিতা আসামী, চাচাত ভাই জেলহাজতে !

সৌরভ রক্ষিত, | বুধবার, মে ৩, ২০১৭
মেয়ের অভিযোগে পিতা আসামী, চাচাত ভাই জেলহাজতে !

পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার গোলখালী ৬নং ওয়ার্ডের ফকির বাড়ির মৃতঃ লতিফ ফকিরের ছেলে মোঃ ইব্রাহীম ফকির কে গত ০৮/০৪/১৭ ইং তারিখ রোজ শনিবার সকাল ৯.৩০মিঃ সময় ফকির বাড়ির মসজিদের সামনে পেয়ে তার শশুর বাড়ির আত্মীয়-স্বজনরা একাত্রিত হয়ে ইব্রাহীম আকনের উপর হামলা চালায় ও সাথে থাকা টাকা-পয়সা নিয়ে পালিয়ে যায়।হামলার আক্রান্ত্র হয়ে রাস্তায় পড়ে থাকলে এলাকার লোকজন এগিয়ে এসে গলাচিপা হাসাপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। কর্মরত চিকিৎসক রুগির অবস্তা আশংক্ষা জনক দেখে উন্নত চিকিৎসার জন্য পটুয়াখালী সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন বলে এলাকা সূত্রে জানা যায়।
মামলা সূত্রে জানা যায়, গলাচিপা থানায় গত ২৩/০৪/১৭ইং তারিখে ৮ জনকে আসামী করে একটি অভিযোগ দায়ের করেন মোসাঃ রাজিয়া বেগম(২৫), স্বামীঃ ইব্রাহীম ফকির। প্রশাসন অভিযোগটি আমলে নিয়ে এস. আই. মোঃ মোফাজ্জেল হোসেনকে তদন্ত করার নির্দেশ দেন। তদন্ত অফিসার গত ২৭/০৪/১৭ইং তারিখে এজাহার ভুক্ত ১নং আসামী মোঃ মাহাতাব হাং(২৮), পিতাঃ আঃ সত্তার হাং কে আটক করে গলাচিপা আদালতে প্রেরণ করেন।যাহার মামলা নম্বর (জি.আর ৮৪/১৭)।
এ বেপারে এজাহার ভুক্ত ৬নং আসামী রাজা হাওলাদার (৪৮), পিতাঃ মৃতঃ জয়নাল হাং এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইব্রাহীম ফকির আমার মেয়ের জামাই তার কাছ থেকে কিছু টাকা ধার নিয়ে ছিলাম তা ফেরত দিয়ে দেই। এ বিষয়টি নিয়ে আমার পরিবারের সাথে বেশ কয়েক বার ঝামেলা হয়। গত ২৮/০৪/১৭ইং তারিখের বিষয়টি আমি শুনেছি এবং চিকিৎসার খরচ বহন করেছি।মিমাংসার জন্য সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম গাউস নিপু তালুকদার উভয় পক্ষের অচল নিয়ে ছিল। কিন্তু কে-কাহার বুদ্ধিতে আমার মেয়ে রাজিয়া বেগম আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করে।