বিমানবন্দর সড়কে বন্ধ হচ্ছে ‘বামন গাছ’ রোপন

নিজস্ব প্রতিবেদক | রবিবার, মে ২৮, ২০১৭
বিমানবন্দর সড়কে বন্ধ হচ্ছে ‘বামন গাছ’ রোপন
সমালোচনার মুখে বিমানবন্দর সড়কে গাছ কেটে বামন গাছ বা বনসাই রোপনের কাজ বন্ধ হচ্ছে। এই সড়কটিতে মোট ৫০০টি বনসাই রোপনের পরিকল্পনা করেছিল ভিনাইল গ্রুপ নামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। এখন পর্যন্ত ৯০টি বনসাই রোপন করা হয়েছে। বাকিগুলো আর রোপন করা হবে না।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের রবিবার সাভারে এক অনুষ্ঠানে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, সৌন্দর্যবর্ধনের কাজে নিয়োজিত প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তাদের আলোচনা হয়েছে।

সম্প্রতি এয়ারপোর্ট থেকে বনানী ওভারপাস পর্যন্ত সড়কটির সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ শুরু হয়েছে। তারই অংশ হিসেবে গত একমাস ধরে চীন থেকে আমদানি করা বনসাই গাছ লাগানো হচ্ছে। আর এর আগে সড়কের ধারে থাকা দেশি গাছগুলো কেটে ফেলা হয়।

সড়ক ও ফুটপাতের সৌন্দর্যবর্ধনের কাজটি মূলত সড়ক ও জনপথ বিভাগের তত্ত্বাবধানে বনানী ওভারপাস টু এয়ারপোর্ট বিউটিফিকেশন প্রকল্পের আওতায় করা হচ্ছে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ভিনাইল ওয়ার্ল্ড গ্রুপের নিজস্ব অর্থায়নে সৌন্দর্যবর্ধনের এই কাজটি করা হচ্ছে।

ভিনাইল ওয়ার্ল্ড গ্রুপের স্বত্বাধিকারী আবেদ মনসুর চলতি মাসের শুরুর দিকে ঢাকাটাইমসকে জানান, যেসব গাছ কাটা হয়েছে সেগুলো তারা কাটেননি। যে জায়গাটিতে বনসাই লাগানো হয়েছে সেখানে সড়কের কাজ করার সময় অল্প কিছুসংখ্যক গাছ কেটে রাস্তাটি বড় করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। কিছু গাছ ঝড়ের কবলে পড়ে ভেঙে গেছে।

ভিনাইল গ্রুপ জানিয়েছে, তারা যে সৌন্দর্যবর্ধন করছে তাতে বনসাই রোপন ১০ শতাংশ কাজ মাত্র। ওই এলাকায় আরও নানা ধরনের গাছ লাগানো হবে বলেও জানিয়েছে তারা।

ভিনাইল গ্রুপের এই ব্যাখ্যার পরও আসল গাছ কেটে বামন গাছ বা বনসাই রোপনের সমালোচনা বন্ধ হয়নি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও গণমাধ্যমে এই সমালোচনা এখনো চলছে।

গত ২০ মে ঢাকাটাইমসে “বিমানবন্দর সড়কে ‘আসল’ গাছের জায়গায় ‘নকল’ গাছ” শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। সেদিন সন্ধ্যায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক ফেসবুক স্ট্যাটাসে জানান, এই কাজে তাদের কোনো দায় নেই।

গাছ কেটে রসনাই রোপনের সমালোচনার মধ্যে গত মঙ্গলবার বিমানবন্দর সড়কে এক আয়োজনে দিয়ে সড়কমন্ত্রী বলেন, সৌন্দর্যবর্ধনের এই পরিকল্পনা যদি নগরবাসীর পছন্দ না হয় তাহলে সেটা পরিবর্তন করা হবে।

সাভারে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সম্পূর্ণ বেসরকারি উদ্যোগে পাচশ বনসাই স্বেচ্ছায় প্রণোদিত হয়ে রোপন করছে একটি প্রতিষ্ঠান। পরিবেশের জন্য এটি ক্ষতিকারক নয়। তবে যেহেতু এ ব্যাপারে গণমাধ্যমে সমালোচনা হচ্ছে, তাই এ পর্যন্ত ৯০টি বনসাই রোপন করার পর বাকি চার শতাধিক রোপন করতে নিষেধ করা হয়েছে।’

সড়কমন্ত্রীর এই ঘোষণার বিষয়ে ভিনাইল ওয়ার্ল্ড গ্রুপের বক্তব্য অবশ্য পাওয়া যায়নি। প্রতিষ্ঠানটির মালিক আবেদ মনসুরের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।