হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী ‘পাপ্পু’ ও ‘মিনার’

ওমর ফারুক সুমন, হালুয়াঘাট | শুক্রবার, আগস্ট ১৮, ২০১৭
হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া আসন থেকে মনোনয়ন  প্রত্যাশী  ‘পাপ্পু’ ও ‘মিনার’
ময়মনসিংহ-১ হালুয়াঘাট-ধোবাআউড়া আসনে জাতীয় পার্টি থেকে জাহিদুল ইসলাম পাপ্পু  লাঙ্গল মার্কা ও ময়মনসিংহ ক্যাপিটাল কলেজের অধ্যক্ষ মনোয়ার হোসেন খান মিনার নৌকা মার্কা থেকে মনোনয়ন চাইবেন। এ নিয়ে আওয়ামীলীগে প্রার্থী সংখা দাড়ালো ৭ জন, বি.এন.পি থেকে ৫ জন ও জাতীয় পার্টি থেকে ১ জন। আগামী সাংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন যুদ্ধে অনেকটাই নিশ্চিৎ  প্রতিদ্বন্ধি হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিবেন জাহিদুল ইসলাম পাপ্পু । একই সাথে ধোবাউড়া থেকে আরেকজন আওয়ামীলীগ প্রার্থীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেলো।  ইতিমধ্যে বিভিন্ন সুত্রে ধারনা করা হচ্ছে আগামী ২০১৯ সালের জাতীয় সংসন নির্বাচনে জাতীয় পার্টি ৩০০ আসনে প্রার্থীতা দিতে পারে। ইতিমধ্যে দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ বিভিন্ন সেমিনারে তার বক্তৃতায় তা প্রকাশও করেছেন। সেই হিসেবে  হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া আসনে জাহিদুল ইসলাম পাপ্পু জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচনে অংশ নিবেন এমনটিই নিশ্চিৎ  করেছেন তিনি। পাপ্পু জাতীয় পার্টি হালুয়াঘাট উপজেলা শাখার আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব। বিগত ২০১৪ সালের ২৩ শে মার্চ জাতীয় পার্টি থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশ নিয়ে মূলত আলোচনায় আসেন। পাপ্পু ন্যাশনাল প্রেস সোসাইটি’র (এন.পি.এস)  বিভাগীয় ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং ক্যাবল অপারেটর এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ(কোয়াব) এর সম্মানিত সদস্য। ব্যবসা জীবনেও তার যতেষ্ঠ দখল রয়েছে। তিনি একসময় জাসদ বাংলাদেশ ছাত্র লীগের প্রচার সম্পাদকও ছিলেন। এর পর জাতীয় পার্টির সাবেক নাম ‘জনদলের’ মাধ্যমে জাতীয় পার্টিতে পদার্পন করেন। ১৯৬৮ সালের ২০ শে অক্টোবর জন্ম নেয়া এ রাজনৈতিক নেতা দলমত নির্বিশেষে সকলের ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা কুড়িয়ে হাটি হাটি পা পা করে রাজনৈতিক কেরিয়ারে সফলতা অর্জন করে চলছেন। তিনি ১৯৮৭ সালে সেন্ট এন্ড্রোজ মিশন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস.এস.সি, ১৯৮৯ সালে শহীদ স্মৃতি ডিগ্রী কলেজ থেকে এইচ.এস.সি এবং ১৯৯৩ সালে তেজগাঁও কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন। হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া মানুষের ভালোবাসা নিয়েই বেঁচে থাকতে চান তিনি। অপরদিকে আওয়ামীলীগ থেকে অপর আরেকজন মনোনয়ন প্রত্যাশী অধ্যক্ষ মনোয়ার হোসেন খান মিনার ময়মনসিংহ  জেলা সেচ্ছাসেবক লীগের ভাইস প্রেসিডেন্ট। তিনি জাপান-বাংলাদেশ মানবাধিকার সংস্থার বিভাগীয় সাধারন সম্পাদক এবং আব্দুল লতিফ খান কলেজের চেয়ারম্যান। এছাড়া তিনি ময়মনসিংহ সরকারী বাানিজ্যিক কলেজের সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক ও সংসদীয় স্পীকারও ছিলেন। তার সাথে কথা বলে জানা যায়, তিনি একজন আওয়ামীলীগ রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান, তার বড় ভাই আনোয়ার হোসেন খান দিনার তিনিও ধোবাউড়া উপজেলা ছাত্রলীগের প্রেসিডেন্ট ছিলেন বলে জানান। আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন চাইবেন যা এই প্রতিবেদককে তিনি নিশ্চিৎ করেছেন।