বংশাই-ঝিনাই নদীতে ভাঙন

মির্জাপুর প্রতিনিধি, | সোমবার, অক্টোবর ১৬, ২০১৭

বংশাই-ঝিনাই নদীতে ভাঙন
টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বংশাই ও ঝিনাই নদীতে তীব্র ভাঙন দেখা দিয়েছে। এতে সাধারণ মানুষ বিপাকে পড়ছেন। এছাড়া মির্জাপুর থেকে থলপাড়া পর্যন্ত একটি রাস্তার প্রায় তিনশ ফুট জায়গা ভাঙনের কারণে ওই রাস্তায় চলাচলকারীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে বলে জানা গেছে। আবাদি জমি  নদী গর্ভে বিলীন হয়েছে।

জানা গেছে, প্রতি বছর বর্ষার শুরু ও শেষ দিকে নদী দুইটির বিভিন্ন স্থানে ভাঙন শুরু হয়। এরইমধ্যে গত কয়েক বছর ধরে নদী দুইটি থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু তুলছেন প্রভাবশালীরা। ফলে বংশাই নদী দুইটির গোড়াইল, চাকলেশ্বর, হিলরা, ফতেপুর, সুতানড়ি ও থলপাড়া এলাকায় ভাঙন আরও ভয়াবহ রূপ ধারণ করে। এ বছরও নদী দুইটির বিভিন্ন স্থান থেকে প্রভাবশালীরা বালু তুলেছেন। ফলে ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে।

উপজেলার ভাতগ্রাম ইউনিয়নের গোড়াইল গ্রামের জুলেখা বেগম জানান, গত বুধবার রাতে তার বসতঘর ও ভিটের অধিকাংশ জায়গা বংশাই নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনের সময় টিনের চাল ও গাছ তাদের নৌকার উপরে পড়লে নৌকাটি ডুবে যায়। এখন পর্যন্ত নৌকাটি তুলতে পারেননি।

এছাড়া একই গ্রামের শাজাহান দেওয়ান, নবী মিয়া, সেকান্দার ও সাইদুর রহমানের বাড়ির অধিকাংশ বংশাই নদীতে বিলীন হয়ে গেছে।

গোড়াইল গ্রামের ইউপি সদস্য জিয়ারত আলী মৃধা জানান, নদীটির পাশ দিয়ে মির্জাপুর উপজেলা সদর থেকে গোড়াইল-চাকলেশ্বর হয়ে থলপাড়া পর্যন্ত রাস্তা রয়েছে। রাস্তাটি ভাঙনের কারণে স্থানীয়দের খুবই কষ্ট করতে হচ্ছে।

ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. আব্দুর রউফ জানান, ভাঙনের কারণে এ বছর প্রায় তিনশ ঘর অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছে। হাট ফতেপুর বাজারের অর্ধশত দোকান এরই মধ্যে ঝিনাই নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। হাট ফতেপুর উচ্চ বিদ্যালয়, চাকলেশ্বর উচ্চ বিদ্যালয় ও হিলরা বাজার ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শাহজাহান সিরাজ জানান, ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।