মানিকগঞ্জে গ্যাসের আগুনে দম্পতি দগ্ধ

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি, | বুধবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৭

মানিকগঞ্জে গ্যাসের আগুনে দম্পতি দগ্ধ
মানিকগঞ্জে গ্যাসের আগুনে দগ্ধ হয়েছেন এক দম্পতি।  তারা হলেন- স্কুলশিক্ষক হামিদুল ইসলাম ও তার স্ত্রী সাবিনা ইয়াছমিন।

বুধবার ভোর পাঁচটার দিকে শহরের গঙ্গাধর পট্টি বনগ্রাম আবাসিক এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় দগ্ধদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

দগ্ধদের পরিবার বলছে, মঙ্গলবার রাতে গৃহিনী সাবিনা ইয়াছমিন তিতাস গ্যাসের চুলায় রান্না করতে যান। এ সময় লাইনে গ্যাস না থাকায় চুলার লাইন বন্ধ করতে ভুলে যান। মধ্যরাতে লাইনে গ্যাস আসে। রান্না ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ থাকায় গ্যাস আটকে থাকে। এই অবস্থায় ভোরে সাবিনা ইয়াছমিন রান্না করতে গিয়ে চুলার মুখে আগুন দেয়া মাত্র তিনি দগ্ধ হন।

সাবিনা ইয়াছমিনের পুত্র জেএসসি পরীক্ষার্থী সামিউল ইসলাম বলেন, ভোরে তার মায়ের চিৎকার শোনে তার ঘুম ভাঙে। এ সময় তার মায়ের পুরো শরীরে আগুন দেখতে পায়। পরে তার বাবা পানি দিয়ে তাকে রক্ষা করতে গিয়ে তিনিও দগ্ধ হন। স্থানীয়রা দুইজনকে সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

গ্যাসের আগুনে দগ্ধ এই দম্পতির গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর উপজেলায়। দীর্ঘদিন ধরে তারা পরিবার নিয়ে গঙ্গাধর পট্টি এলাকার আ. গফুর মিয়ার বাড়ির ৩য় তলার একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে বসবাস করছেন।

স্ত্রী গৃহিনী হলেও হামিদুল ইসলাম ঢাকার মিরপুর আলরাহিয়ান উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. মো. লুৎফর রহমান বলেন, গ্যাসের আগুনে দগ্ধ হামিদুল ইসলাম ও সাবিনা ইয়াছমিনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাৎক্ষণিক ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

তিনি বলেন, দুইজনের মধ্যে ইয়াছমিনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।