লালমনিরহাটে অসহায় দুস্থ মুমূর্ষ রুগীর পার্শ্বে দাঁড়াল আনসার-ভিডিপি’র সদস্য-সদস্যা

গোলাম মোস্তফা রাঙা | মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৫, ২০১৭
লালমনিরহাটে অসহায় দুস্থ মুমূর্ষ রুগীর পার্শ্বে দাঁড়াল আনসার-ভিডিপি’র সদস্য-সদস্যা

৫ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টায় “দুস্থদের সাহায্যে আনসার ও ভিডিপি” ও “এসএসসি ব্যাচ-৯৮-লালমনিরহাট”-এর যৌথ উদ্যোগে লালমরিহাট সদর হাসপাতালের ৪র্থ তলার ২৪ নং বেডে ভর্তি স্টোকের রুগী জনাব আলীকে চিকিৎসার ব্যয় বাবদ নগদ সাডে ৬হাজার টাকা প্রদান করা হয়।

এক সপ্তাহ ধরে ভর্তি হত-দরিদ্র জনাব আলীর চিকিৎসা ব্যয় প্রদানকালে আনসার ও ভিডিপি’র পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন লালমনিরহাট আনসার ও ভিডিপি’র জেলা কমান্ড্যান্ট ও ২৭ আনসার ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক বিকাশ চন্দ্র দাস, ৩২/৩৩ কেভি পাওয়ার গ্রিডের অঙ্গীভূত প্লাটুন কমান্ডার মোঃ নুরুল হক, অঙ্গীভূত সহকারী প্লাটুন কমান্ডার মোঃ বাদশা মিয়া ও অঙ্গীভূত আনসার ভবেশ চন্দ্র রায় এবং “এসএসসি ব্যাচ-৯৮-লালমনিরহাট”-এর পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন লালমনিরহাট সরকারী মজিদা খাতুন মহিলা কলেজের উদ্ভিদ বিদ্যা বিভাগের প্রভাষক সাহারিয়া সুলতানা, বুড়ির দীঘি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রেজাউল করিম লিমন, মকরা ঢঢগাছ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সঞ্জয় কুমার রায়,  সোনালী ব্যাংক, লালমনিরহাট শাখার সিনিয়র অফিসার সুমন সাহা, অফিসার বেগম হুরে জান্নাত সুইটি, ডাঃ মফিজ উদ্দিন খান ফাউন্ডেশনের ম্যানেজার এস এম হযরত আলী,  বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এরশাদ হোসেন মুরাদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আরিফুল ইসলাম খান সাজু, লালমনিরহাট পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান মাসুদ ও কুড়িগ্রাম জেলা আনসার ও ভিডিপি’র উচ্চমান সহকারী কাম হিসাবরক্ষক গোলাম মোস্তফা রাঙ্গা।
লালমনিরহাট আনসার ও ভিডিপি’র জেলা কমান্ড্যান্ট ও ২৭ আনসার ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক বিকাশ চন্দ্র দাস দুস্থদের সাহায্যে এগিয়ে আসায় উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং ভবিষ্যতে মানবতার সেবায় “এসএসসি ব্যাচ-৯৮-লালমনিরহাট”-এর সাথে একত্রে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার খোছাবাড়ীর বাসিন্দা মৃত আব্বাস আলী পুত্র হত দরিদ্র ৪৫ বছর বয়সী জনাব আলী প্রায় ৫ বছর আগে স্টোক করেন, সেই থেকে অর্থের অভাবে চিকিৎসাবিহীন পড়ে আছেন। ৫ ছেলে ১ মেয়ে নিয়ে গঠিত অভাবের সংসারে তার স্ত্রী রিনা বেগম মানবেতর জীবন যাপন করছেন। বড় ছেলে এনামুলের বয়স ১৭, রবিউলের ১৫, রাব্বির ১১, আব্দুর রহমানের ৫, ছোট ছেলে ইমরানের বয়স ৩ বছর আর মেয়ে জ্যোতি’র বছর ৮ বছর। অর্র্থে অভাবে শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত শিশুদের লেখাপড়ার দায়িত্ব গ্রহণ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন রংপুর গ্রুপের ডাঃ মফিজ উদ্দিন খান ফাউন্ডেশনের ম্যানেজার এস এম হযরত আলী।