কবর থেকে তোলা হলো আ.লীগ কর্মীর লাশ

জয়পুরহাট প্রতিনিধি, | শনিবার, ডিসেম্বর ৯, ২০১৭
কবর থেকে তোলা হলো আ.লীগ কর্মীর লাশ

জয়পুরহাটের কালাই উপজেলায় পুলিশি নির্যাতনে নিহত আওয়ামী লীগ কর্মী ও ব্যবসায়ী সাইদুর রহমানের লাশ দুই মাস পর কবর থেকে তোলা হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার হারুঞ্জা গ্রামে নিহতের পারিবারিক কবরস্থান থেকে লাশটি তোলা করা হয়।

এ সময় জয়পুরহাটের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তারেক-উজ-জামান, সদর উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সরদার রাশেদ মোবারক জুয়েল, কালাই থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সুমুন কুমার রায়সহ স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ৯ অক্টোবর উপজেলার হারুঞ্জা গ্রামে নারী নির্যাতন মামলার আসামি মেহেদি হাসান শাপলা নামে এক আসামিকে ধরতে গিয়ে তাকে না পেয়ে তার পরিবারের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করে পুলিশ।

এ সময় প্রতিবেশী সাইদুর রহমান প্রতিবাদ করায় পুলিশের নির্যাতনে তিনি আহত হন। পরে পুলিশ হেফাজতে কালাই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তাকে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় কালাই থানা পুলিশ মামলা নিতে অস্বীকৃতি জানায়। পরে নিহত সাইদুরের পিতা কাজেম উদ্দিন ঘটনার দুই দিন পর ১১ অক্টোবর দুই এসআই ও দুই কনস্টেবলের বিরুদ্ধে আদালতে হত্যা মামলা করেন।

পরিবার ময়নাতদন্তের রিপোর্টে সন্তুষ্ট না হলে পুনঃময়নাতদন্তের জন্য আদালতে আবেদন করেন বাদী। আদালতের নির্দেশে পুনঃময়নাতদন্তের জন্য সাইদুরের লাশ কবর আবার তোলা হয়।

অপরদিকে এ হত্যা মামলায় পুলিশের আসামি চার সদস্যকে প্রত্যাহার করা হলেও তাদের গ্রেপ্তার করা হয়নি। আসামিরা হলেন- এসআই রফিক ও আসাদুজ্জামান এবং কনস্টেবল রাশেদুল ও সেলিম রেজা।