বর্ণাঢ্য আয়োজনে মুন্সীগঞ্জ মুক্ত দিবস পালিত

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি, | সোমবার, ডিসেম্বর ১১, ২০১৭
বর্ণাঢ্য আয়োজনে মুন্সীগঞ্জ মুক্ত দিবস পালিত
আজ ১১ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এই দিন ভোরে হানাদার মুক্ত হয় রাজধানী ঢাকার উপকন্ঠ মুন্সীগঞ্জ। পাক সেনাদের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের চূড়ান্ত বিজয় আসে এই দিনে। দীর্ঘ সংগ্রামের এক পর্যায়ে ১১ ডিসেম্বর ভোরে পিছু হটে পাক-সেনারা। হানাদার বাহিনী ক্যাম্প ছেড়ে পালিয়ে গেলে ছাত্রাবাসের নিয়ন্ত্রণ নেয় মুক্তিযোদ্ধারা।

মুন্সীগঞ্জকে হানাদারমুক্ত করার পর জয়োল্লাসে ফেটে পড়েন মুক্তিযোদ্ধারা। তারা কলেজের ছাত্রাবাসের চার তলার ছাদে ওড়ান স্বাধীন বাংলার লাল-সবুজের পতাকা।

নানা আয়োজনে মুন্সীগঞ্জে দিবসটি পালন করা হচ্ছে। দিবসটি উপলক্ষে জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডের উদ্যোগে আজ মুন্সীগঞ্জে র‌্যালি হয়েছে।  সকাল সাড়ে নয়টায় মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ড প্রাঙ্গণ থেকে র‌্যালিটি বের হয়। জুবলি রোড হয়ে জেলা শিল্পকলা একাডেমি ঘুরে প্রধান সড়ক বাজার রোড দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড প্রাঙ্গণে গিয়ে শেষ হয় র‌্যালিটি। র‌্যালি শেষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসক ও ভারপ্রাপ্ত জেলা কমান্ডার সায়লা ফারজানার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধকালীন বিএলএফ ঢাকা বিভাগীয় কমান্ডার মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মহিউদ্দিন। মুখ্য আলোচক ছিলেন মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য মৃণাল কান্তি দাস।

বিশেষ অতিথি ছিলেন মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি। বক্তব্য দেন, পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম পিপিএম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহা. হারুন-অর-রশিদ, সাবেক জেলা কমান্ডার আনিস উজ্জামান আনিস, যুদ্ধকালীন বিএলএফ’র মুন্সীগঞ্জ-৩ থানার প্রধান মোহাম্মদ হোসেন বাবুল, মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুর রহমান, সাবেক সদর উপজেলা কমান্ডার কাদের মোল্লা, পৌর মেয়র হাজী মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লব প্রমুখ।