কুমিল্লায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই ‘ডাকাত’ নিহত

কুমিল্লা প্রতিনিধি | শনিবার, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৭

কুমিল্লায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই ‘ডাকাত’ নিহত
কুমিল্লার দেবিদ্বারে গোয়েন্দা পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে রাসেল ও ফারুক নামে ডাকাতদলের দুই সদস্য নিহত হয়েছেন। এ সময় ডিবি পুলিশের এসআই নজরুলসহ পাঁচ কনস্টেবল আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ সন্দেহজনক পাঁচ ডাকাতকে আটক করেছে।  

শনিবার ভোররাতে কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের হাতিমারা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ডিবি পুলিশ সূত্র জানায়, ভোররাতের দিকে দেবিদ্বার উপজেলার হাতিমারা এলাকায় ১০/১৫ জনের একটি ডাকাত দল রাত সাড়ে তিনটার দিকে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন খবর পেয়ে কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মামুনের নেতৃত্বে ডিবির একটি দল সেখানে পৌঁছে। এ সময় ডাকাত দল ডিবি পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালালে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এতে ঘটনাস্থলে ডাকাত দলের সদস্য ফারুক (২৪)  ও রাসেল (২৮) নিহত হন এবং ডিবির এসআই নজরুল ইসলামসহ পাঁচ সদস্য আহত হন। ডাকাত দলের আহত দুই সদস্যকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত ডাক্তার তাদের মৃত ঘোষণা করেন। তাদের লাশ কুমেক হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।

নিহত রাসেল জেলার দেবিদ্বার উপজেলার ছেড়াপুকুরিয়া গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে এবং ফারুক একই উপজেলার কুরুইন গ্রামের ফরিদ মিয়ার ছেলে।

এ বিষয়ে ডিবির এসআই শাহ কামাল আকন্দ জানান, নিহতরা আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য। ডাকাত দলটি গত ১৯ ডিসেম্বর দিবাগত গভীর রাতে সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি মো. শাহ আলমের দেবিদ্বারের জাফরগঞ্জ গ্রামের বাড়িতে ডাকাতি করতে গিয়ে তাঁর ভাই জহিরুল ইসলামকে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করেছিল। এ ছাড়াও এ দলটি আরও কয়েকটি ডাকাতির ঘটনার সাথে জড়িত বলে পুলিশের কাছে প্রমাণ আছে।

ডিবি পুলিশের ওসি মনজুর আলম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালায় ডিবি পুলিশ। উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় ডাকাত সদস্যরা, পুলিশও ডাকাতদের পাল্টা গুলি করে। এক পর্যায়ে রাসেল ও ফারুক নামের দুই ডাকাত নিহত হয়। তাদের বিস্তারিত পরিচয় এখনো পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় ডিবি পুলিশের এক উপ পরিদর্শক ও চারজন কনস্টেবলসহ পাঁচজন আহত হন।