সিরাজদিখানে গৃহবধূর পরকিয়া ফাঁস, থানায় অভিযোগ

মোঃ ফয়সাল হাওলাদার, | সোমবার, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৭
সিরাজদিখানে গৃহবধূর পরকিয়া ফাঁস, থানায় অভিযোগ

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের চালপিতপাড়া গ্রামের রাবিনা আক্তার নামে এক গৃহবধূর পরকিয়ার অভিযোগ উঠেছে। ওই গৃহবধূর স্বামী মোঃ মুরাদ হোসেন (মজনু) এ অভিযোগ করেন।

গত ২১শে ডিসেম্বর উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের চালপিতপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।  মোঃ মুরাদ হোসেন মজনু  অভিযোগে জানান, আমি ঢাকায় এম্বুলেন্স চালক। গত ২১শে ডিসেম্বর রাত সাড়ে ১১ টায় বাড়ীতে আসিয়া দেখি আমার স্ত্রী রাবিনা আক্তার মোঃ জাহিদ এর সাথে আমার ঘরে খাটের উপর আপত্তিকর অবস্থায় শুয়ে আছে। আমি তাদের আপত্তিকর অবস্থায় দেখিয়া ফেলায় জাহিদ আমার  রুমের সাথে এটাস্ট রান্না ঘরে দৌড়াইয়া গিয়া আমাদের ব্যবহৃত বটি নিয়া বলে চুপ কোন কথা বলবিনা।

কথা বললে বটি দিয়া কোপ দিয়া জানে মারিয়া ফেলবো। আমি ভয়ে  ঘর থেকে দৌড়াইয়া বাইরে আসিয়া আমার ঘরের সমস্ত দরজা জানালা বাহির থেকে বন্ধ করে দেই। যাতে করে জাহিদ বাইরে যেতে না পারে। 

আমার ডাকচিৎকারে আশেপাশের লোকজন আগাইয়া আসলে উম্মত আলী, রাবিনা আক্তার জাহিদকে সাহায্য করে আমার রুমের গেইট সাবল দিয়ে ভেঙ্গে তাকে নিয়া যায়। বখাটে  জাহিদ ও উম্মত আলী যাওয়ার সময় বলে যদি এব্যাপারে যদি কোন বাড়াবাড়ি করিস তাহলে তোকে খুন করে গুম করে ফেলব। পরে আমার স্ত্রী বাড়ীতে থাকা লোকজনের সামনে আমার কাছে পরকিয়ার কথা স্বীকার করে।

ঘটনাটি আমি আমার শশুর বাড়ীর লোকজনদের জানাইলে ঐদিন রাতেই আমার ভায়রা মোঃ মাসুদ শেখ, আমার স্ত্রীর বড় বোন আছিয়া বেগম আমার সন্তান মোঃ মুসা‘আব সহ  আমার স্ত্রীকে তাদের বাড়ীতে নিয়া যায়। আমার স্ত্রী রাবিনা আক্তার এর চরিত্র ভালনা। তার পরকিয়ার বিষয় নিয়া এলাকায় বহুবার বিচার শালিশ করা হয়েছে। কিন্তু কোন সুরাহা হয় নাই। আমি এর দৃষ্টান্ত মূলক বিচার চাই।

মোঃ মুরাদ হোসেন মজনু জানান, এ ব্যাপারে আমি সিরাজদিখান থানায় একটি লিখিত অভিযোগ  করেছি। গতকাল সকালে সিরাজদিখান থানার এস আই আনিছুর জামান স্যার আমাদের বাসায় তদন্ত করতে গিয়েছিলেন এবং ঘটনার দিন রাত্রে আমার বাড়ীতে উপস্থিত থাকা লোকজনদের কাছে আমার স্ত্রী তার পরকিয়ার কথা স্বীকার করেছে তাদের স্বাক্ষীও নিয়েছে।

এ ব্যাপারে রাবিনা আক্তার ও মোঃ জাহিদ এর সাথে মোবাইল ফোনে বহুবার চেস্টা করার পরও যোগাযোগ করা  সম্ভব হয় নাই।

সিরাজদিখান থানার এস আই আনিছুর জামান জানান, ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। ওসি স্যারে সাথে আলাপ করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।